eibela24.com
বুধবার, ০৫, আগস্ট, ২০২০
 

 
পাকিস্তানী হিন্দুদেরকে সম্পত্তি ক্রয় ও ব্যাংক হিসাবের সুযোগ দিচ্ছেন মোদি!
আপডেট: ০২:০৮ pm ১৭-০৪-২০১৬
 
 


আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যদি এটা সত্যিই বাস্তবায়িত হয় তবে তা প্রকৃতপক্ষেই পাকিস্তানী হিন্দুদের জন্য অনেক বড় সুখবর। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কেন্দ্রীয় সরকার হিন্দু পাকিস্তানীদের জন্য বিশেষ কিছু সুযোগ-সুবিধার কথা চিন্তা করছে।

পাকিস্তানের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের যে সকল শরণার্থী ‘দীর্ঘমেয়াদী ভিসা’ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ভারতে অবস্থান করছেন তাদের জন্যই কেন্দ্রীয় সরকারের এই পরিকল্পনা। শীঘ্রই তারা ভারতে সম্পত্তি ক্রয় ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। শরণার্থীদেরকে ‘পিএএন’ ও ‘আধার’ নামে দুইটা কার্ড দেওয়ার চিন্তা-ভাবনা চলছে যা তাদেরকে  বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দেবে।

অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার মধ্যে বড় একটা অফার হলো, ভারতের নাগরিকত্ব নিবন্ধন ফি ১৫,০০০ টাকা থেকে কমিয়ে শরণার্থীদের জন্য মাত্র ১০০ টাকা করা হচ্ছে।

পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান থেকে আগত সংখ্যালঘু শরণার্থীদের প্রকৃত সংখ্যা খোদ কেন্দ্রীয় সরকারও জানে না। তবে অফিসিয়াল হিসাব অনুযায়ী প্রায় দুই লাখ শরণার্থী রয়েছে ভারতে। এদের অধিকাংশই হিন্দু এবং শিখ।

প্রায় ৪০০ পাকিস্তানি হিন্দু শরণার্থীদের আশ্রয় শিবির রয়েছে ভারতের যোধপুর, জয়সালমার, জয়পুর, রায়পুর, আহমেদাবাদ, রাজকোট, কুচ, ভোপাল, ইন্দোর, মুম্বাই, নাগপুর, পুনে, দিল্লী এবং লক্ষ্ণৌতে।

ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক থেকে একটি নোটিশে বলা হয়েছে, ‘ভারতে অবস্থানরত পাকিস্তানী সংখ্যালঘুদের কঠিন সমস্যাগুলো কেন্দ্রীয় সরকার অব্যাহতভাবে পর্যবেক্ষণ করে যাচ্ছে। তাদের সমস্যাগুলোর সমাধান কল্পে কিছু সুযোগ-সুবিধা প্রদান করার প্রস্তাব করা হয়েছে।’

এই সুবিধাগুলোর আওতায় শরণার্থীরা কেন্দ্রীয় রিজার্ভ ব্যাংকের পূর্বানুমতি ছাড়াই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবে। নিজের বসবাসের জন্য বা আত্ম-কর্মসংস্থানের জন্য বাড়ি কিনতে পারবে। ড্রাইভিং লাইসেন্সও পাচ্ছেন তারা।

ইতোপূর্বে শরণার্থীরা শিবির এলাকার বাইরে তেমন যেতে পারতেন না। তবে শীঘ্রই তাদেরকে আশ্রয়দাতা রাজ্যে মুক্তভাবে চলাফেরার অধিকার দেওয়া হবে। সেইসাথে কিছু নিয়মের অধীনে অন্যান্য রাজ্যেও ঘুরতে পারবেন তারা।

 

এইবেলাডটকম/এমআর