eibela24.com
শনিবার, ২৬, সেপ্টেম্বর, ২০২০
 

 
নীরবেই কাজ করতে ভালোবাসেন যিনি !
আপডেট: ১১:১৬ pm ২৯-০৪-২০২০
 
 


মৃত্যুর মিছিলে ভারি হয়ে উঠছে বাংলার আকাশ। আপনজনও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না শবদাহে। পেটের জ্বালাও বাড়ছে দিন এনে দিন খাওয়া মানুষগুলোর মধ্যে। লকডাউনের একমাস পার হতে চলল; কিন্তু আশানুরূপ ফল মনে হয় আমরা পেতে ব্যর্থ হলাম! নীরবে নিভৃকে যিনি মানুষের পাশে দাঁড়ান তাকে আমরা বলতে পরি মানবিক ব্যত্তিত্ব। এভাবেই কাজ করা মানুষের সংখ্যা সমাজে খুব অল্প। ভবতোষ মুখার্জি সুবীর এমনই এক মানবিক ব্যত্তিত্বের নাম। প্রাইভেট একটি প্রতিষ্ঠানে ভালো মানের একটি পদে কর্মরত। সাথে সাথে যুক্ত আছেন সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে এবং পাশাপাশি বঞ্চিত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় রাজনৈতিক কর্মকান্ডেও জড়িত তিনি। এ মানবিক বিপর্যয়ের দিনে তার নিজ এলাকা মাগুরার শালিখা উপজেলার সিংড়া গ্রামের মুখার্জি পরিবারের পক্ষ থেকে ধনেশ্বরগাতি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে করোনা পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।

এ সব ত্রাণ সামগ্রির মধ্যে রয়েছে পরিবার প্রতি ৫ কেজি চাউল, ১ কেজি ডাল, ২ কেজি আলু, ১ লিটার তেল, ১ কেজি লবন ও ২টি সাবান।

গত কয়েকদিন ধরে মুখার্জি পরিবারের পক্ষ থেকে পর্যায়ক্রমে ধনেশ্বরগাতি ইউনিয়নের সিংড়া, তিলখড়ি, থৈপাড়া ও ধাউখালি গ্রামের স্বামী পরিত্যাক্তা, শ্রমজীবি, ভ্যান চালক, ভাসমান দোকানদার, ভূমিহীন গুচ্ছগ্রামবাসি, ঋষি সম্প্রদায়, জেলে, পুরোহিত, সংস্কৃতি কর্মী ও অসহায় অন্যান্য পরিবার সব মিলিয়ে ৮৩টি পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসব ত্রাণ সামগ্রির পাশাপাশি বিভিন্ন অংকের নগদ অর্থও বিতরণ করা হয়।

সিংড়া মুখার্জি পরিবারের সদস্য ক্রাউন সিমেন্ট গ্রুপের সহকারি মহা-ব্যবস্থাপক ভবতোষ মুখার্জি সুবীর জানান, ত্রাণ কেবল নিজ এলাকাতে দেয়া হয়েছে তা নয়। সাধ্যমতো মাগুরা ছাড়াও ঢাকাতেও ৩৪টি অসহায় পরিবারকেও সহায়তা দেয়া হয়েছে।

দেশের এই দূর্যোগকালিন সময়ে অন্যান্যরা তাদের সাধ্যমতো অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারলে আমরা সকলেই ভালো থাকতে পারবো বলে অভিমত ব্যক্ত করেন ভবতোষ মুখার্জি সুবীর।

নি এম/