রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
রবিবার, ৫ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
 দিনাজপুরে সূর্যপূজা অনুষ্ঠিত
প্রকাশ: ১১:২২ am ২৮-১০-২০১৭ হালনাগাদ: ১১:২২ am ২৮-১০-২০১৭
 
দিনাজপুর প্রতিনিধি
 
 
 
 


কালীপূজার পর শুক্লাপক্ষের ষষ্টি তিথিতে বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের পুনর্ভবা নদীর তীরে পালিত হয়েছে সূর্যপূজা। মনোবাসনা পূর্ণ, আপদ-বিপদ দূরসহ বিভিন্ন মানত পূরণে হিন্দু ধর্মাবলম্বী হরিজন, রবিদাস ও রজক সম্প্রদায়ের লোকজন এ পূজায় অংশ নেয়।

স্থানীয় লোকজন জানায়, পুনর্ভবা নদীকে স্থানীয় লোকজন বলে কাঞ্চন নদী। এই নদীর এক পাশ সদর উপজেলার বালুয়াডাঙ্গা, আরেক পাশ বিরল উপজেলার কাঞ্চনঘাটে পূজা হয়।

পূজার প্রথম দিন বৃহস্পতিবার সূর্য অস্ত যাওয়ার আগে পুণ্যার্থীরা উপবাস থেকে ফুল, প্রসাদ, বাদ্য-বাজনাসহ পূজার সামগ্রী নিয়ে পুনর্ভবা নদীর তীরে কাঞ্চন (নতুন) সেতুর কাছে উপস্থিত হয়। সূর্য অস্ত যাওয়ার আগ মুহূর্তে পুণ্যার্থীরা নদীতে গোসল করে। তারা হাঁটুপানিতে দাঁড়িয়ে সূর্যের দিকে মুখ করে কুলায় সাজানো প্রসাদ নিয়ে পূজা শুরু করে। সূর্য অস্ত যাওয়ার পর সবাই বাড়িতে ফিরে যায়। আবার পরের দিন শুক্রবার নদীর তীরে উপস্থিত হয়ে সূর্য উদয় হওয়ার আগ মুহূর্ত থেকে একই নিয়মে পূজা শুরু করে।

সূর্য উদয় হওয়ার পর তাকে প্রণাম করে নদীতে স্নান এবং শরবত পানের মধ্য দিয়ে শেষ করে পূজা। এরপর একে অন্যকে আবির মাখিয়ে দেয় পুণ্যার্থীরা।

পূজা করতে আসা ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত, মালা সরকার ও শুক্লা সাহা বলেন, ‘আমরা সূর্য দেবতাকে সন্তুষ্ট করতে এই পূজা করে থাকি। এই পূজাকে ছটপূজাও বলা হয়। ছটপূজার মাধ্যমে সূর্য দেবতা সন্তুষ্ট হয় আর আমাদের মনবাসনা ও মানত পূরণ করে দেয়। এই আশায় আমরা প্রতিবছর ছটপূজা করতে আসি। এ ছাড়া জগতের সবার শান্তি কামনায় এই পূজা করা হয়ে থাকে। ’

এদিকে এই পূজা উপলক্ষে পুনর্ভবা নদীতে ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে এক মিলনমেলায় পরিণত হয়। বিভিন্ন খেলনা ও খাওয়ার দোকান বসে।

প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71