মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮
মঙ্গলবার, ২৭শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
আগুনে ভস্মীভূত দেবী চৌধুরানীর মন্দির
প্রকাশ: ১০:০৯ pm ১৮-০২-২০১৮ হালনাগাদ: ১০:০৯ pm ১৮-০২-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


বিধ্বংসী আগুনে ভস্মীভূত হয়ে গেছে জলপাইগুড়ির ঐতিহ্যবাহী দেবী চৌধুরানী ও ভবানী পাঠকের মন্দির। 

স্থানীয় মানুষের আত্মার সঙ্গে জড়িয়ে ছিল দেবী চৌধুরানী ও ভবানী পাঠকের স্মৃতিবিজড়িত এই মন্দির। কয়েকশো বছরের প্রাচীন ঐতিহ্যও নষ্ট হয়ে গেল। শুক্রবার রাতে আচমকা মন্দিরটি দাউদাউ করে জ্বলতে দেখে কান্নার রোল পড়ে যায় গোটা এলাকায়। আগুনের লেলিহান শিখা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে মন্দিরটি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়। পুড়ে ছাই হয়ে যায় মন্দিরের ভেতরে থাকা সমস্ত কাঠের মূর্তি। জাপানের প্যাগোডার অনুকরণে তৈরি করা হয়েছিল প্রাচীন এই কাঠের তৈরি মন্দিরটি। জলপাইগুড়ি থেকে দমকলের দুটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে গেলেও, তার আগেই সব শেষ হয়ে যায়। প্রদীপের আগুন থেকে এই অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে বলে মনে করা হলেও, কোনও অন্তর্ঘাত আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এসজেডিএ-‌র চেয়ারম্যান সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, ‘‌প্রয়োজনীয় তদন্ত হওয়া দরকার। এই মন্দিরের বয়স দেড়শো বছর। পাশাপাশি জলপাইগুড়ির বয়সও দেড়শো বছর চলছে। আমরাও আলাদা করে তদন্ত করব।’‌

তিনি আরও বলেন, ‘‌পর্যটন দপ্তরকে সঙ্গে নিয়ে এই মন্দিরটিকে ফের গড়ে তোলার ব্যবস্থা করা হবে। মন্দিরটির জমি এখন শিকারপুর চা-‌বাগানের অধীনে। জমির মালিকানা এসজেডিএ-‌র হাতে তুলে দিতে জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছি।’

পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, ‘‌দেবী চৌধুরানী ও ভবানী পাঠকের স্মৃতি বিজড়িত এই মন্দিরটির প্রাচীন ঐতিহ্য বজায় রেখেই ফের গড়ে তোলা হবে। এখানে যাতে আরও বেশি করে পর্যটক আসতে পারেন সেই ব্যবস্থাও করা হবে। আগের মতোই তৈরি করা হবে মন্দিরের মডেল। ধর্মীয় সার্কিটের সঙ্গে যুক্ত করে রাজ্যের পর্যটন মানচিত্রে স্থান দেওয়া হবে এই মন্দিরকে। যাতায়াতের জন্য গড়ে তোলা হবে নতুন রাস্তাও।
‌ ‌‌
নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71