বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯
বৃহঃস্পতিবার, ১১ই মাঘ ১৪২৫
 
 
আজকের দিনটির বর্বরতার কথা আজও ভুলতে পারেনি জামালপুরবাসী
প্রকাশ: ০৩:২৬ am ২৩-০৪-২০১৭ হালনাগাদ: ০৩:২৬ am ২৩-০৪-২০১৭
 
 
 


জামালপুর : আজ ২২ এপ্রিল। জামালপুর গণহত্যা দিবস। একাত্তরের এই দিনে জামালপুরে হত্যাযজ্ঞে মেতে উঠে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। তারা জামালপুর শহরে প্রবেশকালে শত শত বাড়ি-ঘর ও দোকান-পাট আগুনে পুড়িয়ে দেয় এবং নিরস্ত্র অসহায় ৭০ থেকে ৭২ জন মানুষকে হত্যা করে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এই হত্যাযজ্ঞ এবং বর্বরতা কথা আজও ভুলতে পারেনি জামালপুরবাসী।

২৬ মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণার পর থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দীর্ঘ ২৭ দিন মুক্তিকামী জনতাকে সাথে নিয়ে ছাত্র সংগ্রাম এবং মুক্তি সংগ্রাম পরিষদের নেতারা টাঙ্গাইলের মধুপুরে ব্রিজ-কালভার্ট ভেঙে পাকিস্তানি বাহিনীর অগ্রযাত্রা ঠেকিয়ে রাখে। 

১৪ এপ্রিল থেকে আকাশ ও স্থল পথে জামালপুরে আক্রমণ চালায় পাকহানাদার বাহিনী। বিমান হামলায় লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় জামালপুর রেলওয়ে স্টেশন, জামালপুর-শেরপুর ফেরিঘাট এলাকার বিভিন্ন স্থাপনা। পাকিস্তানের শক্তিশালী ৩১ বালুচ রেজিমেন্টের টানা এক সপ্তাহের আকাশ ও স্থলপথের আক্রমণে টিকতে পারেনি হালকা অস্ত্রধারী মুক্তিকামী জনতা। তারা রাতের আঁধারে পিছু হটে শেরপুর হয়ে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের তোড়া জেলার মহেন্দ্রগঞ্জে আশ্রয় নেন।

এই সুযোগে ২২ এপ্রিল সূর্যদোয়ের সাথে সাথে পাকহানাদাররা বিনা বাধায় জামালপুর শহরে প্রবেশ করে। হানাদার বাহিনী শহরে প্রবেশকালে দিগপাইত থেকে পাথালিয়া পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশের দোকান-পাট বাড়ি-ঘর আগুনে পুড়িয়ে দেয়, ভেঙে দেয় মন্দির আর প্রতিমা। মেশিনগানের আর কামানের গোলায় মন্দিরের পুরোহিত, ছাত্রনেতা আব্দুল হালিমসহ হত্যা করা হয় ৭০ থেকে ৭২ জন নিরস্ত্র মুক্তিকামী মানুষকে। পাক হানাদারদের আগুনে পুড়ে দেয়া তৎকালীন  এমএলএ ও মুক্তিযোদ্ধের সংগঠন মো. আব্দুল হাকিমের বাড়ি এখনও নীরব সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে। তবে সে দিন পাক হানাদাররা কত মানুষকে হত্যা করেছে তার সঠিক কোন হিসাব নেই কারো কাছে।

এরপর ২২ এপ্রিল দুপুরে শহরের পিটিআই এ ক্যাম্প স্থাপন করে হানাদার বাহিনী। প্রাণ ভয়ে নিরাপদস্থানে পালিয়ে যায় শহরের নিরস্ত্রধারী হাজার হাজার মানুষ।

২২ এপ্রিলের ওই বিভীষিকাময় ঘটনা আজও ভুলতে পারেনি জামালপুরবাসী। ভুলতে পারেনি স্বজন হারানো ব্যথা। তবে এই দিনটি উদযাপনে কোন উদ্যোগ নেই স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বা রাজনৈতিক সংগঠনের।

এইবেলাডটকম /আরডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71