শনিবার, ১৯ জানুয়ারি ২০১৯
শনিবার, ৬ই মাঘ ১৪২৫
 
 
আজ বঙ্কিমের প্রয়াণ দিবস
প্রকাশ: ০৪:০৫ am ০৮-০৪-২০১৫ হালনাগাদ: ০৪:০৫ am ০৮-০৪-২০১৫
 
 
 


ঢাকা: মাত্র ৫৫ বছর বয়সে ১৮৯৪ সালের ৮ এপ্রিল জীবনপ্রদীপ নির্বাপিত হয়েছিল সাহিত্যিক বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের। তাঁকে বাংলা সাহিত্য নবজাগরণের পথিক বলে মনে করা হয়। সাহিত্যজগতে তিনি ‘কমলাকান্ত’ ছদ্মনামে পরিচিত।
ভারতের জাতীয় স্তোত্র ‘বন্দে মাতরম্’-এর উদ্ভাবক তিনি। বঙ্কিম মোট ১৩টি উপন্যাস লেখেন। ১৮৬৫ সালে প্রকাশিত হয় তার প্রথম উপন্যাস ‘দুর্গেশনন্দিনী’।

বাংলা গদ্য ও উপন্যাসের বিকাশে তাঁর অসীম অবদানের জন্যে তিনি বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে অমরত্ব লাভ করেছেন। তাঁকে সাধারণত প্রথম আধুনিক বাংলা ঔপন্যাসিক হিসেবে গণ্য করা হয়। তবে হিন্দু সাস্ত্র গীতার ব্যাখ্যাদাতা হিসাবে, সাহিত্য সমালোচক হিসাবেও তিনি বিশেষ খ্যাতিমান। ১৮৫২ সালে ‍কবিতা লিখরি মাধ্যমে সাহিত্য চর্চার শুরু করে কৃতিমান এ লেখক।
কৃষ্ণকান্তের উইল, রাজসিংহ, বিষবৃক্ষ, সীতারাম, দুর্গেশনন্দিনীর মতো বঙ্কিমের কালজয়ী সব উপন্যাস বাংলা সাহিত্য ভাণ্ডারকে করেছে সমৃদ্ধ এবং বাংলা সাহিত্যে অমরত্ব লাভ করার গৌরব অর্জন করেন। একদিকে উপন্যাসের কাব্য অন্যদিকে প্রবন্ধ তথা গদ্যের বিজ্ঞান, তার সঙ্গে কিছু গান, কবিতা ও ভারতবর্ষ সব মিলিয়েই বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। সমসাময়িক জাতীয়তাবাদের ঝোড়ো হাওয়ায় বাংলা-বাঙালির সাংস্কৃতিক ইতিহাসের নির্মাণকল্পে বঙ্কিমচন্দ্র তাঁর সাহিত্য-রচনার সমস্ত শক্তি ঢেলে দিলেও, তাঁর মননসঞ্জাত রসই বাংলা সাহিত্যকে প্রথম আধুনিকতার আলো দেখিয়েছিল। বৌদ্ধিক রসের সঙ্গে সাহিত্য রসের এমন মিশেল পরবর্তী বাংলা সাহিত্যেও বিরল।
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71