সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোমবার, ৯ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
আপনার ঘুম কেড়ে নেয় যে রং
প্রকাশ: ০৫:৪০ pm ২৬-০৬-২০১৮ হালনাগাদ: ০৫:৪০ pm ২৬-০৬-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


ঘুমের সঙ্গে রংয়ের সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা। তারা বলছেন, চোখের ঘুম-ঘুম ভাব কেড়ে নিয়ে মস্তিষ্ক সজাগ করে তুলতে পারে একটি বিশেষ রং। বিশেষ ওই রংটির নাম ‌‌‘সায়ান’। সহজ ভাবে বললে, সবুজ আর নীল মেশালে যে রং হয় ঠিক সে রকম।

জীব বিজ্ঞানীদের মতে, এই রং-এর মধ্যে এমন একটি গোপন উপাদান আছে, যা মানুষের ঘুম তাড়িয়ে মস্তিষ্ককে সজাগ করে তুলতে পারে। যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক বলছে, চোখের সামনে সায়ান রং বেশি মাত্রায় থাকলে মানুষের ঘুম কমে যায়। অন্যদিকে এই রং সরিয়ে রাখলে ঘুমিয়ে পড়া সহজ হয়।চোখের সামনে এই রং-এর পরিবর্তন যদি তেমন একটা দৃশ্যমানও না হয় তাও এর প্রভাব অনুভব করা যায় বলে জানায় তারা।

গবেষকরা জানান, তারা কম্পিউটার এবং মোবাইলের স্ক্রিনের জন্য এমন কোন জিনিষ তৈরি করতে চান যেটি দিয়ে সায়ান রং-এর মাত্রা কমানো বাড়ানো যাবে।

'নাইট মোড'
স্মার্টফোন বা ল্যাপটপের সেটিংসে নাইট মুড নামে একটি অপশন থাকে, যা এই ব্লু লাইটের পরিমাণ কমিয়ে দিতে সহায়তা করে। এতে রাতে ঘুমের ব্যাঘাত কম হয়। এ নিয়ে ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের জীব বিজ্ঞানীরা সুইজারল্যান্ডের বাসেন শহরে একটি গবেষণা পরিচালনা করে। ওই গবেষণা ফল 'স্লিপ' নামে একটি জার্নালে প্রকাশ করেন তারা। সেখানে সায়ান রং-এর কয়েকটি বিশেষ প্রভাবের তথ্য উঠে আসে। তারা বলেন, যখন মানুষ চোখের সামনে কম বা বেশি পরিমাণ সায়ান রং দেখতে পায় তখন তাদের লালার নমুনায় স্লিপ হরমোনের মাত্রায় তারতম্য পাওয়া যায়।

অধ্যাপক রব লুকাস জানান, কারো জন্য এটা জরুরি নয় যে তিনি নিজে রং-এর পার্থক্য দেখতে পারছেন কিনা। খালি চোখে এই পার্থক্য দৃশ্যমান না হলেও শরীর এই পরিবর্তনের কারণে কোন প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে কিনা সেটা বেশি জরুরি। সায়ান রং-এর সাথে মিলিয়ে যদি অন্য কোন রং তৈরি করা হয় তাহলে সেটাও মানুষের ঘুমে প্রভাব ফেলতে পারে। সবুজের এমন বিভিন্ন শেডে সায়ান রং মেশানো থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে সায়ানের কাছাকাছি অন্য কোন রং মিশিয়ে কাঙ্ক্ষিত রং তৈরি করা যেতে পারে।

স্ক্রিনের রং

যদি মানুষকে জাগিয়ে রাখার লক্ষ্য থাকে, যেমন যেসব কাজে রাতের বেলা প্রতি মুহূর্তে সতর্ক থাকা প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে কম্পিউটারের স্ক্রিনে সায়ান রং বা এর সঙ্গে মিশিয়ে তৈরি করা অন্য কোন রং রাখার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা। তবে যদি লক্ষ্য থাকে ঘুম বাধাগ্রস্ত হওয়ার সমস্যা কমানো তাহলে কম্পিউটারে স্ক্রিনে এমন রং রাখতে হবে যেখানে সায়ানের কোন মিশ্রণ নেই। গবেষকরা এই ধারণাটি প্রমাণ করতে মানুষকে বিভিন্ন সিনেমা দেখান। যেখানে কিছু সিনেমার পর্দায় সায়ান রং ব্যবহার করা হয় এবং কোনটিতে হয়নি। এতে দর্শকদের লালায় মেলাটোনিন হরমোনের মাত্রা এবং এতে ঘুমের তারতম্যে লক্ষণীয় পরিবর্তন দেখা যায়।

অধ্যাপক রব লুকাস এবং ডক্টর এনেটে অ্যালেন নেতৃত্বে পরিচালিত এই গবেষক দলটি জানায়, এই আবিষ্কারের বিষয়ে কম্পিউটার, টেলিভিশন বা স্মার্টফোনের স্ক্রিনে বিশেষ অ্যাপ্লিকেশন থাকতে পারে।

অধ্যাপক লুকাস বলেন, এই গবেষণার ফলাফল এক অর্থে দারুণ। কারণ এ থেকে আমরা জানতে পেরেছি যে, সায়ান রং পরিবর্তন না করে শুধুমাত্র এই রং থেকে বিচ্ছুরিত আলোর সংবেদনশীলতা বা লাইট এক্সপোজার নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে আমরা কতোটা ঘুম-ঘুম বোধ করবো সেটাকে প্রভাবিত করতে পারি।

যেসব পরিবারের কিশোর কিশোরীরা রাতের বেলা মোবাইল ফোন ব্যবহার করে, এই গবেষণা তাদের সাহায্য করতে পারে বলে জানান অধ্যাপক লুকাস। সূত্র: বিবিসি


বিডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71