রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯
রবিবার, ৬ই শ্রাবণ ১৪২৬
 
 
শহীদের মর্যাদার দাবিতে
আমরণ অনশনে বসতে চলেছে শুকদেবের পরিবার
প্রকাশ: ০৫:১৯ pm ২৩-০৩-২০১৮ হালনাগাদ: ০৫:১৯ pm ২৩-০৩-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


ব্রিটিশের হাত থেকে স্বাধীনতা ছিনিয়ে নিতে হবে। তার জন্য যদি প্রাণও যায় তাতে পিছুপা হওয়া যাবে না। দেশকে বাঁচাতে গেলে সম্মুখসমরে লড়াই আবশ্যক। এই লক্ষ্যে নিজেদের স্থির রেখে তিন যুবক লড়াইতে নেমেছিলেন ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে। ১৯২৮ সালে লাহোরে গুলি করে হত্যা করেছিলেন ব্রিটিশ পুলিস অফিসার জন সনডার্সকে। কিন্তু তাঁদের উদ্দেশ্য ছিল ব্রিটিশ পুলিস সুপার জেমস স্কটকে হত্যা করার। যিনি স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা লালা লাজপত রায়ের ওপর লাঠিচার্জ করেছিলেন। যার ফলে মৃত্যুও হয়েছিল লালা লাজপত রায়ের। এরপর ব্রিটিশ পুলিসের হাতে ধরা পড়েছিলেন এই তিন তরুণ স্বাধীনতা সংগ্রামী। ১৯৩১ সালের ২৩ মার্চ একসঙ্গে এই তিন তরুণকে ফাঁসি দেওয়া হয়েছিল। তাঁরা হলেন, ভগৎ সিং, শুকদেব থাপর এবং শিবরাম রাজগুরু। আজ ২০১৮ সালের ২৩ মার্চ। স্বাধীনতার ৭০ বছর পরও এখন এই ঘটনা প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। কারণ এই তিন বীরের আজ ৮৭তম মৃত্যুবার্ষিকী। অথচ তাঁদের আজও মেলেনি শহীদের মর্যাদা। যা ভারতের কাছে অত্যন্ত লজ্জার, দুঃখের এবং আক্ষেপের বলে মনে করেন ভারতবাসী।
 
এই শহীদের মর্যাদার দাবিকে সামনে রেখে স্বাধীনতা সংগ্রামী শুকদেবের পরিবার শুক্রবার দিল্লিতে আমরণ অনশনে বসতে চলেছে।

একদিকে যখন সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় ভোট চলছে তখন এই ঘটনা নরেন্দ্র মোদির সরকারের বিড়ম্বনা বাড়ালো বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। কারণ কেন এই স্বীকৃতির জন্য রাস্তায় নামতে হল স্বাধীনতা সংগ্রামীর পরিবারকে?‌ স্বাধীনতার ৭০ বছর পর কি এটাই প্রাপ্য?‌ মাত্র ২২–২৩ বছর বয়সে যাঁরা দেশের জন্য আত্মবলিদান দিয়েছেন তাঁদের কী এইটুকু প্রাপ্য নয়?‌ স্বাধীনতা সংগ্রামী শুকদেবের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে সরকারের কাছে তাঁদের দাবি জানানো হবে। সরকার তা না মানলে শুক্রবার থেকে শুরু হবে আমরণ অনশন। চলবে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত।
 
কিন্তু ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কি বলবেন?‌ তিনি এদিন টুইট করেছেন। সেখানে বলা হয়েছে, ‘‌ ভগৎ সিং, শুকদেব থাপর এবং শিবরাম রাজগুরু এই তিন শহীদের যন্ত্রণা ইতিহাসের পাতায় জলজ্যান্ত উদাহরণ হয়ে রয়েছে। প্রত্যেক ভারতবাসীর গর্বিত হওয়া উচিত, কারণ এই মাটিতেই এমন তিনজনের জন্ম হয়েছিল যাঁরা দেশের স্বাধীনতার জন্য নিজেদের প্রাণ পর্যন্ত দিয়েছিলেন।’‌কিন্তু শহীদের মর্যাদা?‌ সে বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

নি এম/ 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71