রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
রবিবার, ৮ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
আরো সহজ হল ভারত ভ্রমণ
প্রকাশ: ০২:৪১ pm ০৪-০৬-২০১৭ হালনাগাদ: ০৩:১৮ pm ০৪-০৬-২০১৭
 
 
 


প্রতিবেশী ডেস্ক : দেশটির সরকারি নাম ভারতীয় প্রজাতন্ত্র। ভৌগোলিক আয়তনের বিচারে এটি দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম এবং বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম রাষ্ট্র। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি ভারত।

এর এক দিকে যেমন রয়েছে হিমালয় পর্বতমালা, আরেক দিকে রয়েছে থর মরুভুমি। রয়েছে বিশ্বের ৩ নং সর্বোচ্চ চুড়া কাঞ্চনজঙ্ঘা। বুক চিরে বয়ে গেছে অসংখ্য নদী। রয়েছে অনেক বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীর জন্য অভয়ারণ্য। প্রায় ১৩৫ কোটি জনসংখ্যার এ দেশটি হাজারো সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যে ভরপুর। ভারত বাংলাদেশের প্রতিবেশি দেশ। শুধু তাই নয় বাংলাদেশের তিন দিকেই বেষ্টন করে আছে ভারত। তাই বাংলাদেশীদের একটি অন্যতম ভ্রমণ গন্তব্য হল ভারত।কিন্তু ভিসাতে স্থল বন্দর সংক্রান্ত জটিলটার কারণে ভারত ভ্রমণে অনেকেরই অনাগ্রহ।কি সেই জটিলতা!!!

ভারত ভ্রমণের প্রস্তুতির অংশ হল ভিসা সহ পাসপোর্ট আর ট্র্যাভেল ট্যাক্স। ছবিঃ ড. জিনিয়া রহমান। 

 

 

তামাবিল/ডাউকি সীমান্তের সাইনবোর্ড। ছবিঃ ড. জিনিয়া রহমান।  

 

বাংলাদেশের সাথে ভারতের ১৬ টি স্থল বন্দর আছে যা দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ যাতায়াত করে। কিন্তু শুধুমাত্র ভিসা তে উল্লেখিত বন্দর দিয়েই যাতায়াত করা সম্ভব ছিল, ভারতীয় ভিসা থাকা সত্ত্বেও নির্দিষ্ট বন্দর ছাড়া অন্য কোন বন্দর দিয়ে যাতায়াত করা যেতনা। যেমন ধরুন আপনি ভিসা নিয়েছেন ডাউকি বন্দর দিয়ে মেঘালয়ে যাতায়াত করার জন্য। এখন যদি কোন কারণে হরিদাশপুর বন্দর দিয়ে আপনাকে কলকাতা যেতে হয়, তাহলে আপনি যেতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে আপনাকে হয় মেঘালয় ঘুরে কলকাতা যেতে হবে, অথবা আবার নতুন করে হরিদাসপুর বন্দর উল্লেখ করে ভিসা নিতে হবে। 

 

বেনাপোল সীমান্ত। ছবিঃ ড. জিনিয়া রহমান। 

এই জটিলতা অবসানে নতুন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। নতুন নিয়ম করা হয়েছে ভারতের যেকোন চেকপোষ্টের ভিসা থাকলেই হরিদাসপুর দিয়ে যাতায়াত করা যাবে। আপনার যদি চেংড়াবান্ধা, ডাউকি, আগরতলা, ফুলবাড়ী, হিলি সহ অন্য যেকোন বন্দরের ভিসা থাকে তাহলে আপনি হরিদাসপুর সীমান্ত বন্দর দিয়েও যাতায়াত করতে পারবেন।অর্থাৎ আপনার যে চেকপোষ্ট উল্লেখ করেই ভিসা থাক না কেনো হরিদাসপুর চেকপোষ্ট দিয়ে যেতে আসতে পারবেন। ইতোমধ্যে জানা গেছে গত শুক্রবার শ্যামলী পরিবহন সহ আরো কয়েকটি আন্তর্জাতিক পরিবহনে করে অন্যন্য চেকপোষ্টের ভিসাধারী অনেকেই  হরিদাসপুর হয়ে ভারতে প্রবেশ করেছেন।ভারত ভ্রমনেচ্ছু সকল বাংলাদেশীদের আরো সহজ হল ভারত ভ্রমণ। আশা করা যায় নিকট ভবিষ্যতে হরিদাসপুরের মতো সকল চেকপোষ্ট  উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে বা ভিসাতে পোর্ট উল্লেখ বন্ধ করে দেওয়া হবে যাতে ভ্রমণকারীরা প্রয়োজন অনুযায়ী চেকপোষ্ট দিয়ে ভারতে প্রবেশ করতে পারে।

 হরিদাসপুর স্থল বন্দর। ছবিঃ ড. জিনিয়া রহমান। 

সম্পাদনা: ড. জিনিয়া রহমান।

আপনাদের মতামত জানাতে ই-মেইল করতে পারেন zinnia@priyo.com এই ঠিকানায়।

এইবেলাডটকম /আরডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71