বুধবার, ১৬ জানুয়ারি ২০১৯
বুধবার, ৩রা মাঘ ১৪২৫
 
 
আয়রনের ঘাটতি মেটাতে ৫ খাবার
প্রকাশ: ০৫:১৭ pm ১৯-১২-২০১৭ হালনাগাদ: ০৫:১৭ pm ১৯-১২-২০১৭
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


মানবদেহে আয়রনের ভূমিকা অনেক, হিমোগ্লোবিন উৎপাদনের জন্য আয়রন অত্যাবশ্যকীয়। হিমোগ্লোবিন এক ধরনের প্রোটিন, যা লাল রক্তকণিকার মধ্যে থাকে এবং শরীরের বিভিন্ন অংশে অক্সিজেন সরবরাহ করে। হিমোগ্লোবিনের মতোই আর একটি উপাদান হচ্ছে মায়োগ্লোবিন যা মাংসপেশিতে থাকে। এই মায়োগ্লোবিনের উৎপাদনের জন্যও আয়রন প্রয়োজনীয়।

প্রাপ্তবয়স্ক একজন পুরুষ মানুষের জন্য দৈনিক ৮ মিলিগ্রাম আয়রন প্রয়োজন। আর মহিলাদের প্রয়োজন ১৮ মিলিগ্রাম। গর্ভবতী মহিলার দৈনিক ২৭ মিলিগ্রাম আয়রন প্রয়োজন।

শরীরে আয়রনের ঘাটতি হলে অ্যানেমিয়া হয়। এই প্রকারের অ্যানেমিয়া হলে দুর্বল ও ক্লান্ত লাগার পাশাপাশি মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়। সাধারণত শিশু ও গর্ভবতী নারীদের আয়রনের ঘাটতিজনিত অ্যানেমিয়া হয়ে থাকে। এর ফলে নারীদের প্রিম্যাচিউর ডেলিভারি হতে পারে।

প্রাণিজ আয়রন ও উদ্ভিজ আয়রন এই দুই ধরনের আয়রন পাওয়া যায়। আয়রনের ঘাটতি পূরণের জন্য এই দুই ধরনের আয়রনই গ্রহণ করা প্রয়োজন। এবার তাহলে জেনে নেই আয়রনের উৎসগুলো কী কী?

পালংশাক : এক কাপ রান্না করা পালংশাকে ৬ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে, এছাড়াও এতে প্রোটিন, ফাইবার, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন এ ও ই থাকে। রান্না করা পালং শাকের পুষ্টি উপাদান খুব সহজেই শরীর শোষণ করে নিতে পারে। বাচ্চাদের জন্য এটা খুবই ভালো।

সিদ্ধ আলু : সিদ্ধ আলুতে ভিটামিন সি, বি ভিটামিন, প্রচুর পটাশিয়াম থাকার পাশাপাশি উচ্চমাত্রার আয়রন থাকে। খোসাসহ একটি সিদ্ধ আলুতে ৩ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে।

ডার্ক চকলেট : আপনারা সবাই জেনে খুশি হবেন যে ডার্ক চকলেট আমাদের জন্য ভালো। হ্যাঁ ডার্ক চকলেট আয়রনের একটি ভালো উৎস এবং এতে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্টও থাকে।

ছোলা : এক কাপ ছোলাতে ৫ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে এবং এতে প্রোটিনও থাকে। নিরামিষ ভোজীদের জন্য ছোলা আদর্শ খাদ্য। ছোলা খুবই উপাদেয় খাবার। এটা সালাদ ও পাস্তার সাথেও ব্যবহার করা যায়।

কুমড়ার বিচি : এক কাপ কুমড়ার বীচিতে ২ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে। সুস্বাদু কুমড়ার বীচি রান্না করে, সালাদের সাথে, সিদ্ধ করে বা ভেজে বিভিন্নভাবে খাওয়া যায়। তাই কিছু কুমড়ার বীজ বাসায় রাখুন।

ডাল : আয়রনের একটি ভালো উৎস হলো ডাল। এক কাপ ডালে ৬ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে এবং প্রচুর ফাইবার থাকে। এতে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কম থাকে এবং রক্তের সুগার লেভেল ঠিক রাখে।

এ ছাড়া আরও অনেক আয়রন সমৃদ্ধ খাবার আছে, যেমন- কাজুবাদাম, কিশমিশ, টমাটো, মটরশুঁটি, শিমের বিচি ইত্যাদি। আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরে চা বা কফি খাওয়া ঠিক নয়।

শরীরে আয়রন যাতে ঠিক মতো শোষিত হয় তার জন্য আয়রন জাতীয় খাবারের সাথে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার, যেমন- কমলা, স্ট্রবেরি, ব্রকলি ইত্যাদি খেতে হবে। আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খেলে যদি কারো সমস্যা হয় তাহলে আয়রন সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করতে হবে। সেক্ষেত্রে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

আরপি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71