শনিবার, ১৯ জানুয়ারি ২০১৯
শনিবার, ৬ই মাঘ ১৪২৫
 
 
উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি
প্রকাশ: ০৪:১৩ pm ২২-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ০৪:১৩ pm ২২-০৮-২০১৭
 
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :
 
 
 
 


সিরাজগঞ্জ জেলা সহ উত্তরাঞ্চলে ভয়াবহ বন্যার কারণে মানুষজনসহ গবাদি পশু নিয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছে। টানা ৩ দিনের বন্যায় উত্তরাঞ্চলবাসী। বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়ন সমূহে প্লাবিত ছাড়াও বন্যায় কারণে রাস্তাঘাট, বিদ্যালয় মাঠ, বিভিন্ন ফসলি জমি, পুকুর, নদী, খাল-বিল, ডোবা-নালাসহ বিভিন্ন সড়ক ও মহাসড়ক হাটু পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এমন কি উত্তরাঞ্চলে বেশ কয়েকটি জেলায় কাঁচা ঘরবাড়ী, কয়েক হাজার হেক্টর জমির ফসল, মৎস্যচাষীদের পুকুরে মাছ চলে গেছে। 

মৎস্যচাষীদের প্রায় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে এমনটাই আভাস পাওয়া গেছে। সোমবার রাত থেকে দেশের উত্তরাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি দিনাজপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ জেলায় বন্যার অনেকটাই উন্নতি হয়েছে। বন্যার কারণে জেলার উপজেলা, ইউনিয়ন ও গ্রাম এলাকায় নিম্নাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও ভুক্তভোগীরা পড়েছে বিপাকে। 

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার বলা হয়, দেশের উত্তরাঞ্চলের ব্রহ্মপুত্র-যমুনার পানি হ্রাস অব্যাহত থাকায় বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি অব্যাহত থাকবে। তিস্তা-ধরলা-দুধকুমার অববাহিকার নদীর পানি হ্রাস অব্যাহত রয়েছে, এই অঞ্চলেও বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি অব্যাহত থাকবে। 

বর্তমানে যমুনা, তিস্তা  নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে বিপদসীমার প্রায় ৪১ সেন্টিমিটার থেকে ১০৪ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। যমুনা অববাহিকায় বন্যা পরিস্থিতি আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টায় উন্নতি অব্যাহত থাকবে। 

পূর্বাভাসে বলা হয়, যমুনার ভারতীয় অংশের আগামী ২৪-৩৬ ঘণ্টায় গড়ে ২০ সেন্টিমিটার পানি হ্রাস পেতে পারে। যমুনা নদীর বিভিন্ন্ পয়েন্টে আগামী ৭২ ঘণ্টায় হ্রাস অব্যাহত থাকবে।  তিস্তা ও যমুনা নদীর পানি সমতল বৃদ্ধি আগামী ৪৮ ঘণ্টায় অব্যাহত থাকবে, এবং বিপদ সীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হবে। যমুনা নদীর পানি সমতল হ্রাস আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। তিস্তা অববাহিকা নদীর পানি আগামী ৪৮ ঘন্টা পর্যন্ত হ্রাস অব্যাহত থাকবে।

যমুনা অববাহিকার পানি বৃদ্ধি পেলেও তা বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। উত্তরাঞ্চলের চতুর্দিকের তিস্তা, যমুনা পানি বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপরদিকে, ব্রহ্মপুত্র নদের বন্যা পানি বিপদসীমার ১৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় বিপাকে পড়েছে জামালপুর জেলার মানুষ।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, যমুনা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র এই তিন অববাহিকার মধ্যে গঙ্গার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।  ব্রহ্মপুত্র এবং মেঘনা অববাহিকার ভারতীয় ও বাংলাদেশ অংশে পানি হ্রাস অব্যাহত আছে। বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ব্রহ্মপুত্র-যমুনার পানি সমতল বগুড়া জেলার সারিয়াকান্দি এবং সিরাজগঞ্জ জেলার বিভিন্ন পয়েন্টে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে।

সি/এসএম

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71