শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৭ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
এক সপ্তাহ অনশনের পর অবশেষে জয় হলো সুরবালার
প্রকাশ: ০১:৫৯ pm ০২-০৬-২০১৭ হালনাগাদ: ০১:৫৯ pm ০২-০৬-২০১৭
 
 
 


কুড়িগ্রাম: বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে পুরো এক সপ্তাহ অনশনের পর সফল হলেন কুড়িগ্রামের সদর উপজেলার সুরবালা।

সুরবালা রায় শিল্পী (২৫) এনজিওকর্মী।বাড়ি কুড়িগ্রামের দুর্গাপুর ইউনিয়নের গোড়াই মন্ডলপাড়া গ্রামে।সুরবালার প্রেমিক অমল চন্দ্র বর্মনের বাড়িও একই উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নের বানছারাম গ্রামে।দীর্ঘ ৪ বছর ধরে তাদের প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। গত এক বছর ধরেই বিয়ের প্রলোভনে সুরবালার সঙ্গে  ঘনিষ্ট সম্পর্ক বজায় রাখছিলো প্রেমিক অমল চন্দ্র।

জানা যায়, প্রেমিক অমল চন্দ্র ডিগ্রি পাস করলেও বেকার জীবনযাপন করছিলেন। প্রেমের বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সুরবালার পরিবার অমল চন্দ্রের পরিবারকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠায়।কিন্তু ছেলের পরিবার তা প্রত্যাখ্যান করে অমলকে অন্যত্র বিয়ে করানোর চেষ্টা চালায়।

এ অবস্থায় গত ২৪ মে রাত ১০টার দিকে বিয়ের দাবি নিয়ে প্রেমিক অমল চন্দ্র বর্মনের বাড়িতে আসেন প্রেমিকা সুরবালা । অবস্থা বেগতিক দেখে বাড়ি থেকে অমল পালিয়ে যায়। অমলের পরিবারের লোকজন নানাভাবে সুরবালাকে বাড়ি থেকে বের করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। সুরবালা আত্মহত্যার হুমকি দেন এবং বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেন।

ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। অন্যদিকে প্রতিদিন ভিড় বাড়তে থাকে উৎসুক মানুষের।দিনের পর দিন অনশন চালিয়ে যাওয়া সুরবালার অনড় অবস্থানের কারণে গতকাল বুধবার রাতে ফিরে আসতে বাধ্য হয় পলাতক প্রেমিক অমল চন্দ্র বর্মন।রাতেই এলাকাবাসী, স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে মহা ধুমধামে বিয়ের কাজ সম্পন্ন হয়।

বিয়ের পর খুশি প্রেমিকা সুরবালা । সুরবালা বলেন, ‘আমি সকলের কাছে আর্শিবাদ চাই যেন আমি আমার মনের মানুষকে নিয়ে সুখী হতে পারি।এলাকার একটি সূত্র জানায়, উপায়ন্তর না পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুস ছালাম, সবুজ ও মোগলবাসা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান বাবলু প্রেমিককে হাজির করে দ্রুত এই বিয়ের ব্যবস্থা করে দেন।

এব্যাপারে প্রেমিক অমল চন্দ্রের পিতা নিবারন চৌধুরী ছেলের বিয়ের ব্যাপারে কোন অনুভূতি প্রকাশ না করলেও  সুরবালার পিতা সম্মারু চন্দ্র বর্মন মেয়ের বিয়েতে খুব খুশি বলে জানিয়েছেন।এব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুস সোবহান বলেন, ‘ছেলের বাড়িতে প্রেমিকার অনশনের ঘটনাটি শোনার পর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে।

এইবেলাডটকম/এবি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71