বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
বুধবার, ৮ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
কক্সবাজারে ১৯ ইয়াবা পাচারকারীকে ১০ বছর কারাদন্ড
প্রকাশ: ০৯:০৩ pm ২১-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ০৯:০৩ pm ২১-০৮-২০১৭
 
কক্সবাজার প্রতিনিধি :
 
 
 
 


দেশে প্রথমবারের মত ইয়াবা পাচারের মামলায় কক্সবাজারে ১৯ জনকে দশ বছর করে কারাদন্ড দিয়েছে কক্সবাজারের অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত।

২১ আগস্ট সোমবার দুপুরে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. ওসমান গণি এ মামলার রায় দেন। আদালত অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে সাক্ষী প্রমাণের পর রায় প্রদান করেন। ইয়াবা মামলায় এ রকম দ্রুত রায় প্রদান এটাই প্রথম। আর এর মধ্য দিয়ে কক্সবাজারের বিচারিক প্রক্রিয়ায় একটি নজির রচিত হলো। 

রায় ঘোষণার সময় মামলার সকল আসামি আদালতে উপস্থিত ছিল। একই সাথে ৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ৩ মাস কারাদন্ডাদেশ দেয়া হয়েছে।

সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলো সামছুল আলম ওরফে কালু (৩২), জাহেদ হোছাইন (১৮), অছিউল্লাহ (২৭), আউয়ুব আলী (৩১),আজিজুল হক (২৬), মকবুল আহমদ (১৮), রফিক আলম (২১), খাইরুল আমিন (৩৬), ফজল করিম (২৫), মোহাম্মদ ইলয়াছ (২১), মো. আব্দুল্লাহ (১৮), জাহাঙ্গীর আলম (৩২), জিয়াউর রহমান (১৮), আনোয়ার হোসেন (২৩), মোহাম্মদ রুবেল (২২), রাশেদুল হক (৩১), নুরুল আলম (২৫), মোহাম্মদ রুবেল (২৩) ও মো. ইমাম হোসেন ওরফে নবী হোসেন (৩০)।
আসামিদের সবাই টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা।

কক্সবাজারের বিচারিক প্রক্রিয়ায় একটি নজির রচিত হলো বলে জানান কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) ফরিদুল আলম। 

তিনি বলেন, ২০১৬ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ভোর রাতে বঙ্গোপসাগরের টেকনাফের সেন্টমার্টিনের নিকটবর্তী সাগর থেকে কোস্টগার্ডের একটি দল দুইটি মাছ ধরার ট্রলারসহ ১৯ জনকে আটক করে। এসময় ট্রলার ২ টি তল্লাশী করে পাওয়া যায় ৪ লাখ ইয়াবা।
তিনি বলেন, এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় কোস্টগার্ড বাদী হয়ে গ্রেপ্তার ১৯ জনের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা করেন। পরে একই বছরের ১৯ এপ্রিল পুলিশ আদালতের কাছে চার্জশিট প্রদান করেন। এ নিয়ে আইনী প্রক্রিয়া শেষে ২০১৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর আদালত চার্জগঠন করেন।

এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় কোস্টগার্ড বাদী হয়ে গ্রেপ্তার ১৯ জনের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা করেন। পরে একই বছরের ১৯ এপ্রিল পুলিশ আদালতের কাছে চার্জশিট প্রদান করেন। এ নিয়ে আইনী প্রক্রিয়া শেষে ২০১৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর আদালত চার্জগঠন করেন।

এপিপি ফরিদুল আরও বলেন, এ রায় প্রদানের মাধ্যমে আদালত একটি বার্তা সকলের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। এতে ইয়াবাপাচার ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িতরা অনেকটা নিয়ন্ত্রণ হবে।


সি/এসএম

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71