সোমবার, ২০ মে ২০১৯
সোমবার, ৬ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
 
 
কালের বিবর্তনে বিলুপ্তি হচ্ছে হারিকেন
প্রকাশ: ০৪:৪৮ pm ১৪-০২-২০১৯ হালনাগাদ: ০৪:৪৮ pm ১৪-০২-২০১৯
 
কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
 
 
 
 


কুড়িগ্রাম থেকে হারিয়ে যাচেছ প্রাচীনতম আলোর উৎস হারিকেন। কিছুদিন আগেও গ্রামবাংলায় একমাত্র আলোর  উৎস ছিল হারিকেন। যাকে রাতের বন্ধু বলে ডাকা হত।

জানা গেছে, হারিকেন হচেছ জ্বালানি তেলের মাধ্যমে বদ্ধ কাঁচের পাত্রে আলো জ্বালাবার ব্যবস্থা। হারিকেনের বাহিরের অংশে অর্ধবৃক্তার কাঁচের অংশ থাকে, তেল শুষে অগ্নি সংযোগের মাধ্যমে আলো জ্বালাবার জন্য কাপড়ের শলাকা থাকে এবং সম্পৃণ হারিকেন বহন করার জন্য এর বহিরাংশে থাকে একটি লোহার ধরনি। হারিকেনের  আলো কমানোর বা বাড়ানোর জন্য বহিরাংশে থাকে একটি চাকটি যা কমালে বা বাড়লে শলাকা ওঠা নামার থাকে যা দ্বারা আলো কমা বা বাড়ানো যায়। মোঘল আমলে হারিকেনের প্রচলন শুরু  হয়। রাতের আধারে বিকল্প আলোর উৎস হিসাবে ধীরে ধীরে গ্রামবাংলায় জনপ্রিয় হয়ে ওঠে হারিকেন। 

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচেছ হারিকেন। গ্রামীন জনপদের মানুষের কাছে  এক সময় হারিকেনই ছিলো একমাত্র আলো উৎস উৎস। সন্ধ্যা হলে হারিকেন নিয়ে পড়তে বসতো গ্রামীন জনপদের ছেলে আর মেয়েরা। দিনদিন নতুন প্রযুক্তি গ্রামীন জনপদের মানুষকে উন্নত করছে যার দরুন হারিকেন ছেড়ে মানুষ  এখন বিদ্যুতের দিকে ঝুঁকছে। তাপ, বিদ্যুতের, জল বিদ্যুৎ, সৌর বিদ্যুৎ সহ জ্বালানী খাতে অব্যাহতভাবে  উন্নতির ফলে ঐতিহ্যবাহী হারিকেন বিলুপ্তর পথে।

এছাড়াও আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে বিদ্যুৎকে সংরক্ষন করার মতো পন্থা আবিষ্কার করেছে বিজ্ঞানীরা। যেমন চার্জার লাইট সৌর বিদ্যুৎসহ বেশ কিছু আলোর যোগান থাকায় আর এখন কেউ হারিকেনের দিকে ঝুঁকছেননা। 

অনেকের মতে অদুর ভবিষ্যতে হয়তোবা হারিকেন স্থান পাবে যাদু ঘরে। নতুন প্রজম্ম হযতোবা জানবেওনা হারিকেনের ইতিহাস! চায়না, জাপান, ভারত সহ পৃথিবীর বিভন্ন দেশ খুব দ্যুতই আরোও চার্জ সংরক্ষনকারী প্রযুক্তি উতদ্ভাবন করছে। এক সময় চিরোতরে কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাবে হারিকেন। 

নি এম/রতি কান্ত

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71