মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮
মঙ্গলবার, ১০ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
কৃত্রিম আলোয় হারিয়ে যাচ্ছে রাত
প্রকাশ: ০৮:২১ pm ০১-১২-২০১৭ হালনাগাদ: ০৮:২২ pm ০১-১২-২০১৭
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


রাতের পৃথিবীর ছবি নিয়ে করা এক গবেষণায় দেখা গেছে, বিশ্বজুড়ে কৃত্রিম আলো ও এর উজ্জ্বলতার পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে। কেবল ২০১২ থেকে ২০১৬-র মধ্যেই ঘরের বাইরে কৃত্রিম আলোর ব্যবহার প্রতি বছর ২ শতাংশ হারে বেড়েছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এলইডি ও ফ্লুরোসেন্ট বাতির অতি ব্যবহারে অনেক দেশ থেকেই ‘রাত হারিয়ে যাচ্ছে’। এর ফলে ‘উদ্ভিদ, প্রাণী ও মানুষের জীবন ধারণে’ নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বলেও সতর্ক করেছেন তারা। যুক্তরাষ্ট্রের সাময়িকী সায়েন্স অ্যাডভান্সে গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। রাতের আলোর উজ্জ্বলতা মাপতে বিশেষভাবে বানানো নাসার স্যাটেলাইট রেডিওমিটারের সাহায্যে এ গবেষণা করা হয়েছে।

বিভিন্ন দেশে রাতের উজ্জ্বলতার হারে তারতম্য দেখা গেছে বলেও গবেষণায় জানানো হয়েছে। ‘উজ্জ্বল রাতের’ জন্য বিশেষভাবে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্র ও স্পেনে গড়পড়তা একইরকম থাকলেও দক্ষিণ আমেরিকা, আফ্রিকা ও এশিয়ার দেশগুলোতে কৃত্রিম আলোর ব্যবহার ও এর উজ্জ্বলতার পরিমাণ বাড়ছে। যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়া ও ইয়েমেনের মতো দেশগুলোতে রাতের উজ্জ্বলতার পরিমাণ কমে এসেছে।

স্যাটেলাইটের ছবিতে ঝকমকে উপকূল ও মাকড়সার জালের মতো ছড়িয়ে থাকা শহরগুলোতে রাতের আলো চমৎকার দেখালেও বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই প্রবণতা মানবস্বাস্থ্য ও পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। নেচার সাময়িকীতে প্রকাশিত সাম্প্রতিক এক গবেষণায় বলা হয়েছে, কৃত্রিম আলোরে কারণে নিশাচর পতঙ্গের কর্মকাণ্ড বদলে যায় এবং ফসলের পরাগায়ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

নাসার স্যাটেলাইট রেডিওমিটারের ছবি নিয়ে করা গবেষক দলের প্রধান জার্মান রিসার্চ সেন্টার ফর জিওসায়েন্সের ক্রিস্টোফার কাইবা জানান, কৃত্রিম আলোর এ ব্যবহার পরিবেশের জন্য ভয়াবহ হুমকি হয়ে দাঁড়াচ্ছে। সম্পদশালী ও শিল্পোন্নত শহরগুলো হলুদ আলোর সোডিয়াম বাতির বদলে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী এলইডি ব্যবহার শুরু করায় সেখানকার রাতের উজ্জ্বলতা কমবে বলে ধারণা করলেও তা হয়নি বলে জানান তিনি।

কৃত্রিম আলোর পরিমাণ এখন এতটাই বেড়েছে যে ইউরোপে এখন রাতে প্রাকৃতিক আলো খুঁজে পাওয়াই দুষ্কর বলে মন্তব্য করেছেন এক্সেটর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কেভিন গেস্টন।  কৃত্রিম আলো মানুষের দৃষ্টিসীমাকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে এবং এ ক্ষতি সহজে পূরণ হবে না বলেও শঙ্কা তার।


আরপি


 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71