সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোমবার, ৯ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী এ দেশের নাগরিক
প্রকাশ: ১২:৩৯ am ২০-০৪-২০১৫ হালনাগাদ: ১২:৩৯ am ২০-০৪-২০১৫
 
 
 


 ‘বাপ-দাদার আমল থেকে আমরা আমাদের ভূমিতেই বাস করেছি। অথচ ওই ভূমির জন্য আমাদেরকে এখন মামলা-মোকদ্দমা, জীবন দেয়া ও নানা হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। আদালতের রায় থাকা সত্ত্বেও আমরা আমাদের জমিতে যেতে পারছি না। দেশে দুর্বলের ওপর সবলের আগ্রাসন চলছে। ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। রাষ্ট্র অসম সমাজ গঠনে অসম ক্ষমতা প্রয়োগ করছে। আমাদের কোনো নিরাপত্তা নেই। রাষ্ট্রও আমাদের পাশে নেই। আমাদের ওপর থেকে সব নিপীড়নের অবসান ঘটানো হোক।’
গতকাল রোববার দিনাজপুর পর্যটন মোটেলে ‘ক্ষুদ্র জাতিসত্তাসমূহের মানচিত্র, পরিচয় অধিকার বিষয়ে পুনর্ভাবনা’ শীর্ষক এক সংলাপ অনুষ্ঠানে এ আকুতি জানান চাঁপাইনবাবগঞ্জের আদিবাসী নেত্রী বিচিত্রা তির্কিসহ অন্য নেতারা। ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ইকো কো-অপারেশনের সহযোগিতায় এ অনুুষ্ঠানের আয়োজন করে সেড, জিবিকে ও জাতীয় আদিবাসী পরিষদ নামের তিনটি সংগঠন।
জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্র সরেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবু রায়হান মিয়া। সেড পরিচালক ফিলিপ গাইনের সঞ্চালনায় সংলাপে আলোচনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড. তানজিম উদ্দীন খান, গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রের প্রধান নির্বাহী মোয়াজ্জেম হোসেন, ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা রবিউল আউয়াল খোকা, দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি চিত্ত ঘোষ, টাঙ্গাইলের মধুপুর আদিবাসী কালচারাল ডেভেলপমেন্ট ফোরামের সভাপতি অজয় এ মৃ, টাঙ্গাইল মধুপুরের আচিক মিচিক সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক সুলেখা ম্রং, হেক্স এর কান্ট্রি ডিরেক্টর অনিক আজাদ, জয়পুরহাটের আদিবাসী লেখক বাবুল রবিদাস, আদিবাসী নেতা লুকাস কিনপট্টা, রবাট আর এন দাস, দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল  প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আবু রায়হান মিয়া জানান, বাংলাদেশে রাষ্ট্র ও প্রশাসন বিশ্বাস করে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী জাতির লোকজন এ দেশের নাগরিক। এ দেশে তাদের সব ধরনের অধিকার আছে। ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর লোকজনকে তাদের অধিকারের ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।
ডা. তানজিম উদ্দীন খান বলেন, বাঙালি জাতি তার পরিচয়ে পরিচিত হওয়ার জন্য ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ করেছিল। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে অন্যের পরিচিতি দেয়ার ক্ষেত্রে কার্পণ্যতা অবলম্বন করছে। রাষ্ট্র আদিবাসী জনগোষ্ঠীর অধিকার থেকে তাদের বঞ্চিত করতে পারে না।


ফিলিপ গাইন বলেন, সরকারিভাবে ২৭টি ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর সাংবিধানিক স্বীকৃতি রয়েছে। অথচ বাংলাদেশের চা বাগান এলাকায় ৯০টিসহ সমতলে আরো ৪০টি ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী রয়েছে, যাদের সাংবিধানিক স্বীকৃতি নেই।
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71