বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিশুদের হাতে মাতৃভাষায় পাঠ্যবই
প্রকাশ: ০৪:০৪ pm ০৩-০১-২০১৭ হালনাগাদ: ০৪:০৯ pm ০৩-০১-২০১৭
 
 
 


শ্যামল দত্ত ||

বছরের পথম দিন শিশুদের হাতে বিনামূল্যে পাঠ্যবই তুলে দেয়ার মধ্য দিয়ে সারা দেশেই পালিত হলো পাঠ্যবই উৎসব। ২০১০ সাল থেকে ১ জানুয়ারি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে নতুন বই দেয়া হচ্ছে এবং দিনটিকে বই উৎসব হিসেবে পালন করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, সরকারি উদ্যোগে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের সব শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে পাঠ্যবই সরবরাহের এ ঘটনা পৃথিবীতে একটি বিরল দৃষ্টান্ত। সরকারের এ উদ্যোগ দেশে-বিদেশে ইতোমধ্যেই ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে। তবে এবারের পাঠ্যবই উৎসবের একটি বিশেষ দিক হলো- এবারই প্রথম মাতৃভাষায় নতুন বই পাচ্ছে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিশুরা। এছাড়া প্রথমবারের মতো দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদেরও ব্রেইল বই সরবরাহ করা হয়েছে। দেশের সর্বজনীন শিক্ষার ক্ষেত্রে এটি একটি মাইলফলক নিঃসন্দেহে।

২০১০ সালের শিক্ষানীতিতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের নিজ নিজ মাতৃভাষায় লেখাপড়ার সুযোগের বিষয়টি পরিষ্কার বলা আছে। তারই আলোকে বর্তমান সরকার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মাতৃভাষায় শিক্ষা দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। দেশে সরকারি হিসাবে ৩৭টি এবং বেসরকারি হিসাবে ৪৫টি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় সব নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব ভাষা ও বর্ণমালা রয়েছে। কিন্তু তাদের নিজস্ব মাতৃভাষায় সরকারিভাবে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সুযোগ না থাকায় তাদের শিশুদের বাধ্য হয়েই বাংলা ভাষায় শিক্ষা নিতে হচ্ছে। এর ফলে দেখা যাচ্ছে তাদের মধ্যে স্কুল থেকে ঝড়ে পড়ার হার খুব বেশি। অন্যদিকে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব ভাষাগুলোও দিন দিন হারিয়ে যেতে বসেছে। শিশুরা পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে মাতৃভাষায় কথা বলা শিখলেও নিজেদের বর্ণমালা সম্পর্কে ধারণা পাচ্ছে না। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সরকার চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা, গারো ও সাদ্রী এ পাঁচটি নৃ-গোষ্ঠীর প্রাক-প্রাথমিকের শিশুদের মাতৃভাষায় পাঠদানের সিদ্ধান্ত নেয়। জাতীয় পাঠ্যক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) তত্ত্বাবধানে বইয়ের পান্ডুলিপি তৈরির কাজ হয়। ২০১৭ শিক্ষাবর্ষে পাঁচটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর প্রাক-প্রাথমিকে ৫১ হাজার ৭৮২টি বই সিরাজগঞ্জ, হবিগঞ্জের বাহুবল, মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল, বড়লেখা ও কুলাউড়া, রংপুরের পীরগঞ্জ, বদরগঞ্জ, মিঠাপুকুর, জামালপুরের বকশিগঞ্জ, শেরপুরের শ্রীবর্দী, নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলাসহ রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান জেলার শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণের টার্গেট নেয়া হয়। কিন্তু বছরের একেবারে শেষ সময় এসে এসব বই ছাপার টেন্ডার হওয়ায় যথাসময়ে বই বিতরণ নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। ভালো যে শেষ পর্যন্ত যথাসময়েই ছাপানো সম্ভব হয়েছে। ইতোমধ্যে বই শিক্ষার্থীদের হাতেও পৌঁছে যাওয়ার কথা। নিজস্ব ভাষায় নতুন বই হাতে পেয়ে নিশ্চয়ই ছোট-বড় সবাই খুবই আনন্দিত হয়েছেন। প্রথম ধাপে পাঁচটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিশুদের তাদের নিজদের ভাষায় লেখা প্রাক-প্রাথমিকের বই ও শিক্ষা উপকরণ এবং শিক্ষকদের শিক্ষক নির্দেশিকা দেয়া হচ্ছে। ধারাবাহিকভাবে পরবর্তী শ্রেণিসমূহের বই ও পাঠ উপকরণ তৈরির কাজও অব্যাহত রাখতে হবে। আর উপযোগিতা যাচাই করে অপর নৃ-গোষ্ঠীগুলোর শিশুদের জন্যও পর্যায়ক্রমে মাতৃভাষায় শিক্ষার বই ও শিক্ষা উপকরণ প্রণয়ন করতে হবে।

এখানে একটি বিষয় বিশেষভাবে লক্ষণীয় যে, শুধু মাতৃভাষায় রচিত পাঠ্যবইই ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মাতৃভাষায় শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য যথেষ্ট নয়। বিশেষায়িত ভাষায় পাঠদানের জন্য শিক্ষকের অভাব রয়েছে। উপযুক্ত শিক্ষক নিয়োগ দেয়া খুবই জরুরি। এ ক্ষেত্রে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা নিয়ে কাজ করা এনজিওগুলোর সহায়তা নেয়া যেতে পারে। শিক্ষাক্রম বিশেষজ্ঞদের মতে, আদিবাসী গোষ্ঠীর শিশুদের মাতৃভাষা সঠিক উচ্চারণের মাধ্যমে শিক্ষা না দিলে আসল উদ্দেশ্য ব্যাহত হবে। সঠিকভাবে পাঠদান করা হচ্ছে কিনা তাও তদারকি খুব দরকার। এজন্য আদিবাসী গোষ্ঠীর মানুষদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করার সুপারিশ রয়েছে বিশেষজ্ঞদের, তা আমলে নেয়া যেতে পারে। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজেদের ভাষায় রচিত পাঠ্যপুস্তক যথাসময়ে শিশুদের হাতে তুলে দেয়ার রেওয়াজ অব্যাহত রাখতে এবং যথাযথ পাঠদান নিশ্চিত করতে সরকার কার্যকর ব্যবস্থা নেবেন এমন প্রত্যাশা রাখছি। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব ভাষায় পড়ালেখার সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় শিশুদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা থেকে ঝরে পড়ার হার কমবে, পাশাপাশি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা এবং সংস্কৃতিও সুরক্ষিত হবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

 

 

এইবেলাডটকম/প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71