সোমবার, ২৭ মে ২০১৯
সোমবার, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
 
 
গলাচিপায় ও রাঙ্গাবালীতে আমন ধানের বাম্পার ফলন 
প্রকাশ: ০১:৫৫ pm ২৩-১১-২০১৭ হালনাগাদ: ০১:৫৫ pm ২৩-১১-২০১৭
 
পটুয়াখালী প্রতিনিধি:
 
 
 
 


প্রকৃতির চিরাচরিত নিয়মে হেমন্তে সোনালী ধানের মিষ্টি গন্ধে মেতে উঠেছে বাংলার জনপদ। এখন পুরোদমে শুরু হয়েছে মাঠে মাঠে রোপা আমন ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ । পটুয়াখালী জেলার রাংগাবালী ও গলাচিপা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষান-কৃষানীরা। আবহাওয়া অনুকূল থাকায় নির্বিঘ্নে ধান কাটা-মাড়াই কাজ করছে কৃষক। 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পটুয়াখালী উপ-পরিচালক খামারবাড়ির দাবি, ধান উৎপাদনের এবার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাওযার সম্বাবনা রয়েছে। রাংগাবালী উপজোলায় ৩৫ হাজার ৫ হেক্টর আমন চাষের মধ্যে ২১ হাজার ৫ শত হেক্টর জমিতে উন্নত প্রজাতির উকশি আমন ধানের চাষাবাদের পাশাপাশি ১৪ হাজার হেক্টর জমিতে স্থানীয় প্রজাতীর আমন চাষ হয়েছে বলে রাঙ্গাবালী উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়। 

কয় একটি ইউনিয়নের মধ্যে,  চরমোন্তাজ ইউনিয়ন বিচ্ছিন্ন দ্বীপাঞ্চল হলেও প্রতিবছর কৃষি আবাদিতে বাম্পার ফলন হয়ে থাকে বলে তথ্য ও অনুসন্ধানে পাওয়া যায়। ইতোমধ্যে প্রায় ২৫ শতাংশ জমির ধান কাটা শেষ হয়েছে। কৃষকের আঙিনা ভরে উঠছে সোনালি ধানে, মুখে ফুটে উঠেছে হাসির ঝলক। ফসলের মৌ মৌ গন্ধে ভরে উঠছে সারা বাড়ি। উঠানে ছড়ানো সোনালি ধান। সাথে আনন্দের বন্যা। কয়েক দিন পরে ঘরে ঘরে হবে নবান্ন উৎসব। কন্যা-জায়া-জননীর ব্যস্ততা এখন দিনরাত। 

উক্ত উপজেলার বাশবাড়িয়া ইউনিয়নের দক্ষিন দাসপাড় গ্রামের কৃষক শংকর চন্দ্র জানান, তিনি ৩ একর ১৬শতাংস জমিতে চাষ করেছেন রোপা আমন ধান। ধান কাটা শুরু করেছি ফলন ভাল হয়েছে। দামও পেয়েছি ভাল। প্রতি বছর ধান উঠার সময় দাম পড়ে যায়। কিন্তু এবার দাম পড়েনি। এ জন্য কৃষকদের খুব বেশি লোকসান হওয়ার সম্ভাবনা নেই। 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো.বনি আমিন খান জানান, এ বছর আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে কৃষকরের ধান কাটা শুরু হয়েছে। কৃষকরা আগামী দুই/তিন সপ্তাহের মধ্যে সব ধান ঘরে তুলতে পারবে। অকালে ভারি বর্ষণে ফসলের কিছুটা ক্ষতি হলেও এ বছর ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এস/আরডি/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71