বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
গাছে বেঁধে হিন্দু শিক্ষককে মারধর, ৫ লাখ টাকা দিয়ে মুক্তি
প্রকাশ: ১২:৩৯ pm ০৭-১০-২০১৭ হালনাগাদ: ০৯:২৬ am ০৮-১০-২০১৭
 
নড়াইল প্রতিনিধি
 
 
 
 


নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার মাঝিপাড়া গ্রামে চাঁদার দাবিতে এক শিক্ষককে গাছে বেঁধে বেধড়ক পিটিয়েছে একই গ্রামের কয়েকজন ব্যক্তি। পরে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দিয়ে ছাড়া পেলেও বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার হুমকি দেওয়া হয়েছে তাকে। ফলে ভয়ে ভুক্তভোগী শিক্ষকের পরিবার থানায় মামলাও করতে পারছেন না। বুধবার রাতের ঘটনাটি শুক্রবার জানাজানি হয়।

ভুক্তভোগী শিক্ষক মনি কুমার সরকার উপজেলা লাহুড়িয়া ইউনিয়নের মাঝিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও স্থানীয় পূজামণ্ডপ কমিটির সভাপতি। শুক্রবার প্রতিবেদক ভুক্তভোগীর বাড়িতে গিয়ে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পেয়েছেন।

মনি কুমারের স্ত্রী বাসনা রানী জানান, মাঝিপাড়া গ্রামের রোস্তম মিয়ার ছেলে মনিরুল ইসলাম ও আনিচুর রহমান দীর্ঘদিন ধরে তাদের কাছে মোটা অঙ্কের টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল। পরিকল্পিতভাবে তারা তার স্বামীর নামে ইভ টিজিংয়ের মিথ্যা অভিযোগ এনে বুধবার রাতে লাহুড়িয়া বাজার এলাকায় একটি গাছের সঙ্গে বেঁধে মারধর করে। তার কাছে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। খবর পেয়ে ৫০ হাজার টাকা ও সাড়ে চার লাখ টাকার একটি চেক দিয়ে তার স্বামীকে ছাড়িয়ে আনেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে দেশ ছাড়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মনিরুল ইসলামের দাবি, প্রাইভেট পড়ানোর সময় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ডহরপাড়া গ্রামের নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ইভ টিজিংয়ের অভিযোগ রয়েছে। 

তবে এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্থানীয় ইউপি সদস্য আকবার মিলিটারি ও তার ভাই আমিনুরকে সঙ্গে নিয়ে মনিরুল ও আনিচুর বিভিন্ন লোকের কাছে দীর্ঘদিন ধরে চাঁদাবাজি করে আসছে। তাদের ভয়ে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ মুখও খুলতে পারেন না।

লাহুড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন জানান, তার এলাকায় এ রকম একটি ঘটনা হয়েছে বলে শুনেছি। তবে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি দেখা হবে। উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মদন কুমার জানান, শিক্ষককে মারধর ও চাঁদা আদায়ের ব্যাপারে আইনের আশ্রয় নেব আমরা।

লোহাগড়া থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে এখনও কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71