বুধবার, ২২ মে ২০১৯
বুধবার, ৮ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
 
 
গৌরনদীতে অপহরনের ২১ দিনেও উদ্ধার হয়নি দশম শ্রেনীর ছাত্রী পাপিয়া
প্রকাশ: ০৫:৪১ pm ১০-০৩-২০১৯ হালনাগাদ: ০৫:৪১ pm ১০-০৩-২০১৯
 
গৌরনদী (বরিশাল) সংবাদদাতা 
 
 
 
 


অপহরনের ২১দিন পরও বরিশালের গৌরনদী উপজেলার পূর্ব বেজহার গ্রামের দশম শ্রেনীর স্কুলছাত্রী অপহৃতা পাপিয়া আক্তার (১৭)কে পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। ফলে অপহৃতার পিতা-মাতাসহ তার পরিবারের সদস্যরা রয়েছেন গভীর উৎকন্ঠায়। ভিকটিমকে উদ্ধারে পুলিশের রহস্যজনক নিরবতায় ক্ষুব্দ হয়ে উঠছেন মামলার বাদিসহ অপহৃতার স্বজনরা।

গ্রামবাসী ও অপহৃতার স্বজনরা জানান, উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়নের পূর্ব বেজহার গ্রামের কাঠ ব্যবসায়ী মোঃ মজিবুল হক মোল্লার মেয়ে ও মাহিলাড়া এ.এন বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর ছাত্রী পাপিয়া আক্তার (১৭)কে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে একই গ্রামের মোকছেদ চোকদারের বখাটে ছেলে ইব্রাহিম চোকদার (২২) দীর্ঘদিন যাবত উত্যাক্ত করে আসছিল। ছাত্রীর বাবা একাধিক বার এ ঘটনা জানিয়ে বখাটে ইব্রাহিমের মা ও বাবার কাছে বিচার দেন। কিন্তু তারা তাদের ছেলের কোন বিচার বা ছেলেকে সংশোধন করতে কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেননি। পিতা মাতার কাছে বিচার দেয়ায় বখাটে ইব্রাহিম চোকদার ক্ষিপ্ত হয়ে ওই স্কুল ছাত্রীকে অপহরনের হুমকি দেয়। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ ও আতংকিত হয়ে ওই স্কুল ছাত্রী গত ৩১শে জানুয়ারি গৌরনদী নির্বাহী কর্মকর্তা খালেদা নাছরিনের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। নির্বাহী অফিসার গৌরনদী মডেল থানার ওসিকে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন।

অপহৃতার বাবা মজিবুল হক মোল্লা জানান, গত ১৬ই ফেব্রুয়ারি রাত ৮টা ২০ মিনিটের দিকে আমার মেয়ে পাপিয়া আমাদের বসতঘর সংলগ্ন টয়লেটে যায়। সেখান থেকে বখাটে ইব্রাহিম চোকদার ও তার সহযোগীরা মিলে পাপিয়াকে অপহরন করে নিয়ে যায়।

তিনি অভিযোগ করেন, পুলিশের নির্লিপ্ততার ফলে আমার মেয়ে স্কুল ছাত্রী পাপিয়া আক্তার অপহরনের ঘটনা ঘটেছে। নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে পুলিশ তাৎক্ষনিক পদক্ষেপ নিলে এ অপহরনের ঘটনা ঘটতোনা। এখনও ভিকটিমকে উদ্ধারে পুলিশ রহস্যজনকভাবে নিরব ভূমিকা পালন করছে। ফলে আমরা এখন চরম হতাশ ও ক্ষুব্ধ হয়ে আছি। 

গৌরনদী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ মাহাবুবুর রহমান জানান, এ ঘটনায় অপহৃতা স্কুলছাত্রীর বাবা মজিবুল হক মোল্লা বাদী হয়ে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বখাটে ইব্রাহিম চোকদার, তার বাবা মোকছেদ চোকদার ও সহযোগী মোকলেছ চোকদারকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ অপহৃতা স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার ও অপহরনকারীকে গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। 

নিএম/বিশ্বজিত 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71