বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
ঘাসের কোর্টে পুরনো নাদাল
প্রকাশ: ০৯:৫৬ am ০৯-০৭-২০১৭ হালনাগাদ: ০৯:৫৬ am ০৯-০৭-২০১৭
 
 
 


স্পোটস ডেস্ক:: তিনি ক্লে কোর্টের সম্রাট। উইম্বলডনের সবুজ ঘাসে সাদামাটাও নন একেবারে। পাঁচবার ফাইনালে পৌঁছে শিরোপা জিতেছেন দুইবার। কিন্তু গত পাঁচ বছরে হয়ে পড়েছিলেন নিজের ছায়া। চতুর্থ রাউন্ডের বাধাই পার হতে পারেননি রাফায়েল নাদাল। এবার রোলাঁ গাঁরো জিতে এসে পুরনো ঝলক দেখাচ্ছেন সেন্টার কোর্টে। কোনো সেট না হেরে পৌঁছে গেছেন চতুর্থ রাউন্ডে। ৬ ফুট ৬ ইঞ্চির রাশান তারকা কারেন খাচানভের বিপক্ষে সহজে জিতেছেন ৬-১, ৬-৪, ৭-৬ গেমে। ৪১টি উইনার মারা নাদাল এ নিয়ে গ্র্যান্ড স্লামে জিতলেন টানা ২৮ সেট।

নাদাল দাপট দেখালেও হারতে বসেছিলেন শীর্ষ বাছাই অ্যান্ডি মারে। শেষ পর্যন্ত ইতালির ফাবিও ফগনিনিকে ৬-২, ৪-৬, ৬-১, ৭-৬ গেমে হারিয়ে টিকিট পান চতুর্থ রাউন্ডের। চতুর্থ সেটে ২-৫ গেমে পিছিয়ে পড়ার পর সেরাটা নিংড়ে জেতেন টানা পাঁচ গেম। দশমবারের মতো উইম্বলডনের চতুর্থ রাউন্ডে পৌঁছেছেন নোভাক জোকোভিচ। তৃতীয় রাউন্ডে তিনি হারিয়েছেন লাটভিয়ার আর্নেস্টস গালবিসকে। কোয়ার্টার ফাইনালে জোকোভিচের প্রতিপক্ষ ফ্রান্সের আদ্রিয়ান মানারিনো। আরেক ফরাসি জো উইলফ্রায়েড সঙ্গার অবশ্য ছুটি হয়ে গেছে উইম্বলডন থেকে, তিনি হেরেছেন যুক্তরাষ্ট্রের স্যাম কুয়েরির কাছে। ফ্রান্সের গায়েল মনফিলসও হেরেছেন স্বদেশি মানারিনোর কাছেই, টমাস বার্দিচের কাছে হেরে বিদায় ডেভিড ফেরারেরও। মেয়েদের এককে চতুর্থ রাউন্ডে নাম লিখিয়েছেন ভেনাস উইলিয়ামস, গত ফ্রেঞ্চ ওপেন জয়ী ইয়েলেনা ওস্তাপেঙ্কো ও সিমোনা হালেপ।

নাদাল সবশেষ উইম্বলডন জিতেছিলেন ২০১০ সালে। পরের বছরও পৌঁছান ফাইনালে। এরপর থেকে সেন্টার কোর্টে অচেনা নাদাল। ২০১২ সালে দ্বিতীয় রাউন্ড, ২০১৩-তে প্রথম রাউন্ড, ২০১৪ সালে চতুর্থ রাউন্ড, ২০১৫ সালে দ্বিতীয় রাউন্ডে বাদ পড়ার পর অংশই নেননি গতবার। এবার প্রচণ্ড গরমের মধ্যেও ঘাসের কোর্টে রয়েছেন ছন্দে, যা তাঁকে নিয়ে যেতে পারে বহুদূর। কারেন খাচানভের বিপক্ষে প্রথম গেমটা জিতেছিলেন মাত্র এক মিনিটে। দ্বিতীয় সেটে তাঁর জোরালো একটি ফোরহ্যান্ড দেখে ভিআইপি গ্যালারিতে থাকা ডেভিড বেকহামও হয়ে পড়েন বিস্মিত। চতুর্থ রাউন্ডে নাদালের প্রতিপক্ষ আঁলিয়েজ বেদেনকে হারানো লুক্সেমবার্গের জাইলস মুলার। ঘাসের কোর্টে বিপজ্জনক এই ১৬ নম্বর বাছাইয়ের বিপক্ষে নামার আগে সতর্ক নাদাল, ‘ফোরহ্যান্ড, ব্যাকহ্যান্ডসহ ভালো কয়েকটি শট খেলেছি, যা সন্তুষ্টির। মুলার ঘাসের কোর্টে সব সময় বিপজ্জনক। ওকে হারাতে আরো আক্রমণাত্মক হতে হবে আমাকে। ’

চোটের জন্য অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিল অ্যান্ডি মারের উইম্বলডন খেলাটা। সে শঙ্কা কাটিয়ে তিনি এখন চতুর্থ রাউন্ডে। তবে অঘটন ঘটতে পারত ফাবিও ফগিনির বিপক্ষে। চতুর্থ সেটে একটা পর্যায়ে ২-৫ গেমে পিছিয়ে পড়েছিলেন তিনি। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে টানা পাঁচ গেম জিতে সেট জিতে স্বস্তি ঝরল মারের কণ্ঠে, ‘প্রথম দুই রাউন্ডের চেয়ে একেবারে আলাদা ম্যাচ ছিল এটা। হিপের ব্যথায় কোর্টে নড়াচড়া করতে কষ্ট হচ্ছিল। আশা করছি পরের ম্যাচে পরিস্থিতিটা বদলাবে। ’

সেরেনা উইলিয়ামস না থাকায় মেয়েদের এককে অনেকের বাজি ভেনাস উইলিয়ামস। তৃতীয় রাউন্ডে তাঁর প্রতিপক্ষ ছিল ‘বুলেট ট্রেন’ খ্যাত টিনএজার নাওমি ওসাকা। এই জাপানির আক্রমণাত্মক টেনিস সামলে ভেনাস শেষ পর্যন্ত জিতেছেন ৭-৬, ৬-৪ গেমে। চতুর্থ রাউন্ডে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী আরেক টিনএজার আনা কনজু।

গত ২০ বছরে ফ্রেঞ্চ ওপেনের পর উইম্বলডন জিতেছেন কেবল স্টেফি গ্রাফ ও সেরেনা উইলিয়ামস। মর্যাদার এই ডাবলের পথে এগিয়ে চলেছেন ইয়েলেনা ওস্তাপেঙ্কো। তৃতীয় রাউন্ডে ক্যামিলা গিওর্গিকে হারিয়েছেন ৭-৫, ৭-৫ গেমে। ম্যাচ চলার সময় ওস্তাপেঙ্কোকে বিরক্ত করতে ভিআইপি বক্স থেকে ‘কাশি’ দিচ্ছিলেন গিয়র্গির বাবা। ম্যাচ শেষে তাঁকে একহাতই নিলেন ওস্তাপেঙ্কো, ‘সার্ভের আগে হঠাত্ করে কাশির শব্দ কানে বাজছিল। এটা অখেলোয়াড়সুলভ আচরণ। সবাইকে বুঝতে হবে আপনারা গ্যালারিতে বসে দেখছেন উইম্বলডনের মতো মর্যাদার টুর্নামেন্ট। ’

 

এইবেলাডটকম/প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71