বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৩০শে কার্তিক ১৪২৫
 
 
চাষ ও চাহিদা বাড়ছে নানা গুণে সমৃদ্ধ কাগুজি লেবুর
প্রকাশ: ০৩:৫৬ pm ০৯-০৮-২০১৬ হালনাগাদ: ০৩:৫৬ pm ০৯-০৮-২০১৬
 
 
 


খুলনা প্রতিনিধি : নানা গুণে সমৃদ্ধ কাগুজি লেবু। যেমন বেড়েছে চাষাবাদ তেমনি বাড়ছে চাহিদা। কাগুজি লেবু আমাদের প্রায় সকলের পরিচিত।

 ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ ফল। ভিটামিন-সি এর প্রধান কাজ চামড়াকে মসৃন উজ্জল রাখে, দাঁত ও মাড়ি সুস্থ রাখে, ক্ষতস্থান তাড়াতাড়ি শুকাতে সাহায্য করে এবং সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ করে। সুতরাং ভিটামিন-সি এর অভাব আমরা অনেকাংশে লেবু দিয়ে পূরণ করতে পারি। চলতি মওসুমে খুলনার পাইকগাছায় কাগুজি লেবুর বাম্পার ফলন হয়েছে। বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ও ঔষুধী গুণ সমৃদ্ধ কাগুজী লেবুর বাজারে ব্যাপক চাহিদা থাকায় বাগান মালিক এবং ব্যবসায়ীরা লাভবান হয়েছে। ভিটামিন-সি অতি সহজেই পানিতে দ্রবিভূত হয় এবং বাতাসের সংস্পর্শে জারিত হয়ে নষ্ট হয়ে যায়। ভিটামিন-সি শরীরে জমা থাকে না। তাই প্রতিদিন খেতে হয়।
 

সূত্র মতে-মানব দেহে ভিটামিন-সি এর দৈনিক চাহিদা শিশু ২০ মিলিগ্রাম, প্রাপ্ত বয়স্ক ৩০ মিলিগ্রাম এবং গর্ভবতী ও প্রসূতী ৫০ মিলিগ্রাম। সুতরাং ভিটামিন-সি এর অভাব আমরা অনেকাংশে লেবু দিয়ে পূরণ করতে পারি। লেবুর ১০০ গ্রাম খাদ্যোপযোগী উপাদানে রয়েছে ৬৩ মিলিগ্রাম ভিটামিন-সি, ১.৫ গ্রাম আমিষ, ১০৯ গ্রাম শর্করা, ৯০ মিলিগ্রাম ক্যালশিয়াম, ০.৩ মিলিগ্রাম লৌহ, ১৫ মাইক্রোগ্রাম ক্যারোটিন ০.০৫ মিলিগ্রাম ভিটামিন-বি। শুধু ঔষুধী গুণ নয় লেবুর সুগন্ধ সকলের কাছেই প্রিয় বিধায় বিভিন্ন প্রসাধনী, ওয়াশিং পাউডার, সাবান, এয়ার ফ্রেশনার ইত্যাদিতে লেবুর গন্ধ ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও মানবদেহে কাগুজি লেবুর ব্যবহার বহুমুখী। আর এ কারনে দিন দিন কাগুজি লেবুর চাহিদাও বাড়ছে।

উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, পাইকগাছা উপজেলার লবণাক্ত মাটিতে ছড়ানো ছিটানো ভাবে প্রায় ২২ হেক্টর জমিতে লেবুর চাষ হয়। সব মিলিয়ে উপজেলায় ৫ হাজারটি’র মত লেবু গাছ আছে। উপজেলার গদাইপুর, হরিঢালী, কপিলমুনি ও রাড়–লী ইউনিয়নে আংশিক এলাকায় লেবুর বাগান রয়েছে। গদাইপুর ইউনিয়নের মটবাটী, হেতামপুর ও গদাইপুর গ্রামে বাণিজ্যিক ভাবে লেবুর বাগান গড়ে উঠছে। বিশেষ করে জমির সিমানার চারপাশে কাগুজি লেবুর গাছ লাগিয়ে অন্যান্য ফসলোর শুরক্ষা করা হয়। লেবু গাছের ঘণ ছোট ছোট কাটা থাকায় গরু, ছাগলসহ অন্যান্য প্রাণী বাগানে প্রবেশ করতে পারে না। তাছাড়া বাগানের বেড়া দিতে প্রয়োজনি বাঁশের মূল্যও অনেক বেশি। সে ক্ষেত্রে একদিকে কাগুজি লেবু গাছ লাগিয়ে অর্থনীতিক ভাবে লাভবান হচ্ছে বাগান মালিক, অন্যদিকে অল্প খরচে দীর্ঘস্থায়ীভাবে অন্যান্য গাছের সুরক্ষা হচ্ছে। অনেকে আবার বাড়ীর ছাদে এবং বিভিন্ন পাত্রে মাটিতে কাগুজি লেবু চাষ করেন।

এপ্রিল মাসে লেবু গাছে ফুল ধরে। পুরা জুলাই মাস লেবুর ভরা মওসুম। এক একটি লেবু গাছে ৫০০ থেকে ১ হাজার লেবু ধরে। উপজেলার চেচুয়া গ্রামের লেবু ব্যবসায়ী আবুল কাশেম ও আব্দুর রহিম জানান, তারা লেবু গাছের মালিকের গাছ থেকে এক থেকে দেড়টাকা দরে ক্রয় করে ঢাকা, খুলনা, যশোর’সহ বিভিন্ন জেলায় লেবু সরবরাহ করছেন। বাজারে খুচরা এক একটি লেবু বিশেষ ২ থেকে ৩ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এএইচএম জাহাঙ্গীর আলম জানান, পাইকগাছার এ এলাকা লবণাক্ত হওয়ায় ৩/৪টি ইউনিয়নে কাগুজি লেবু আবাদ হয়। কাগুজি লেবু লাভ জনক হওয়ায় খেতের আইলের পাশাপাশি বাণিজ্যিক ভিত্তিকে লেবু বাগান তৈরী শুরু হয়েছে। লেবু বাগান লাগাতে তেমন কোনো খরচ হয় না, সামান্য পরিচর্যা করলে লেবু বাগান থেকে প্রচুর ফলন পাওয়া যায়।

এইবেলাডটকম/মিন্টু/এএস
 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71