সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
সোমবার, ৬ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
চৈত্র মাসের নাম করণের কাহিনী........
প্রকাশ: ১০:৫৮ pm ১৩-০৪-২০১৭ হালনাগাদ: ১০:৫৮ pm ১৩-০৪-২০১৭
 
 
 


ঢাকা : আদি গ্রন্থ পুরাণে বলা হয়েছে, রাজা দক্ষের সুন্দরী কন্যাদের নামানুসারে মহাবিশ্বে সাতাশটি নক্ষত্র আছে। সুন্দরী কন্যাদের বিয়ে দেওয়ার চিন্তায় উৎকণ্ঠিত ছিলেন রাজা। উপযুক্ত পাত্র কোথায়? যোগ্যপাত্র খুঁজে পাওয়া কি সহজ বিষয়?

যোগ্যপাত্র পাওয়া না গেলে তারা কি অনূঢ়া থেকে যাবেন? বিধির বিধানে উপযুক্ত পাত্র পাওয়া গেল। একদিন মহাধুমধামে চন্দ্রদেবের সাথে বিয়ে হলো দক্ষের সাতাশ কন্যার। সেই কন্যাদের মধ্যে এক কন্যা চিত্রার নামানুসারে ছিল চিত্রা নক্ষত্র। সেই চিত্রা নক্ষত্র থেকে চৈত্র মাসের নামকরণ করা হয়।

চৈত্র মাসের শেষ দিনটিকে বলা হয় চৈত্র সংক্রান্তি। সনাতন ধর্মালম্বীরা দিনটিকে পুণ্যদিন বলে মনে করেন। চৈত্র সংক্রান্তির দিনের সূর্যাস্তের মধ্যে দিয়ে কালের গর্ভে হারিয়ে যায় একটি বঙ্গাব্দ।

সনাতন পঞ্জিকা মতে দিনটিকে গণ্য করা হয় মহাবিষুব সংক্রান্তি হিসেবে। সনাতন শাস্ত্র ও লোকাচার অনুসারে এইদিনে স্নান, দান, ব্রত, উপবাস প্রভৃতি ক্রিয়াকর্মকে পূণ্যজনক বলে মনে করা হয়।

অতীতে চৈত্র থেকে বর্ষার শুরু পর্যন্ত সূর্যের যখন প্রচণ্ড উত্তাপ থাকতো, তখন সূর্যের তেজ প্রশমণ ও বৃষ্টি লাভের আশায় কৃষিজীবীরা চৈত্র সংক্রান্তি পালন করতেন। এখনো চৈত্র সংক্রান্তিতে নানা কাজের মধ্য দিয়ে সূর্যকে তুষ্ট করার চেষ্টা করেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা।

কালের পরিক্রমায় এই উৎসব এখন সবার জন্য। জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সবাই এখন চৈত্র সংক্রান্তি পালন করেন নিজের মত করে।

এইবেলাডটকম /আরডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71