বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
জানেন, বাড়িতে শিবের ত্রিশূল রাখলে কী হয়
প্রকাশ: ০৮:৫৮ pm ০৪-০৫-২০১৮ হালনাগাদ: ০৮:৫৮ pm ০৪-০৫-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


ভগবান শিব হলেন সর্বশক্তিমান। তাই তো শাস্ত্রে বলে নিরাপদ এবং সুখ-শান্তিতে ভরা জীবনের সন্ধান যদি পেতে চান, তাহলে দেবাদিদেবের স্বরণাপন্ন হতেই হবে। এক্ষেত্রে প্রতিদিন সকালে উঠে "ওম নমঃ শিবার" পাঠ করার মধ্যে দিয়ে একদিকে যেমন দেবের আরাধনা করতে পারেন, তেমনি বাড়িতে যদি শিবের ত্রিশূল বা ত্রিশূলের ছবি এনে রাখতে পারেন, তাহলে কিন্তু দারুন উপকার মেলে। 

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হিউমেন নেচারের উপর একটি স্টাডি করা হয়েছিল। তাতে দেখা গেছে বেশিরভাগ মানুষই মনে করেন অনেক অনেক টাকার মালিক হলে তবেই নাকি প্রকৃত সুখের সন্ধান পাওয়া যায়। যদিও বাস্তবে এমনটা ঘটে না ঠিকই। কারণ শাস্ত্র বলে খুশি বা ইনার পিস তখনই মেলে যখন মন শান্ত হয়। আর মজার বিষয় হল শিবের আশীর্বাদে মনের শান্তি তো ফেরেই, সেই সঙ্গে অর্থনেতিক সমৃদ্ধির পথও প্রশস্ত হয়। ফলে জীবন আনন্দে ভরে উঠতে সময় লাগে না। তবে তার জন্য একটি ত্রিশূল কিনে এনে দেবের সামনে রেখে পুজো করতে হবে। তাহলেই দেখবেন কেল্লা ফতে! 

তবে এখানেই শেষ নয়, হিন্দু শাস্ত্রের দিকে নজর ফেরালে জানা যায় প্রতিদিন ত্রিশূলের পুজো করলে আরও অনেক উপকার মেলে। যেমন ধরুন... 

১. গৃহস্থের অন্দরে সুখ-শান্তির পরিবেশ বজায় থাকে: 
খেয়াল করে দেখবেন আজকের দিনে কেউই যেন খুশি নেই। কারও কারও মনে ছেলে-মেয়ের পড়াশোনা নিয়ে চিন্তা, তো কেউ ভাইয়ের সঙ্গে সারক্ষণ লড়ে চলেছেন। এমন অশান্তকর পরিবেশ যাতে আপনার পরিবারের অন্দরে মাথা চাড়া দিয়ে না ওঠে, তা সুনিশ্চিত করতে নিয়মিত ত্রিশূলের পুজো শুরু করুন। দেখবেন উপকার পাবেন একেবারে হাতে নাতে। আসলে বাড়িতে ত্রিশূল এনে রাখলে গৃহস্থের অন্দরে পজেটিভ শক্তির প্রভাব এতটা বেড়ে যায় যে কোনও খারাপ ঘটনা ঘটার আশঙ্কা একেবারে কমে যায়। সেই সঙ্গে সুখের ঝাঁপি খালি হওয়ার সম্ভাবনাও যায় কমে। তবে কর্মব্যস্ততার কারণে যারা নিয়মিত পুজো করতে পারেন না, তারা ত্রিশূলের স্টিকার ঠাকুর ঘরে লাগাতে পারেন। শুনলে অবাক হয়ে যাবেন। এমনটা করলেও কিন্তু সমান উপকার পাওয়া যায়। 

২. খারাপ দৃষ্টির থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব হয়: 
মুখে হাসি, এদিকে আপনার ক্ষতি চায়, এমন মানুষের সংখ্যা কিন্তু নেহাতিই কম নয়। খেয়াল করে দেখবেন আপনার পরিবারেও এমন দু-চারজন মানুষ আছেই আছে। কি আছে না? তাই তো বলি বন্ধু তাদের কু-দৃষ্টির কারণে যাতে আপনার কোনও ক্ষতি না হয়, তা সুনিশ্চিত করতে শিবের ত্রিশূলের পুজো শুরু করুন। দেখবেন আপনার কোনও ক্ষতিই হবে না, উল্টে যে যতই খারাপ চাক না কেন, আপনার বিজয় রথকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে কেউ আটকাতে পারবে না। প্রসঙ্গত, কালা যাদুর প্রভাবও কেটে যাবে যদি ত্রিশূলের পুজো শুরু করা হয় তো। তাই এই বিষয়টি মাথায় রাখতেও ভুলবেন না যেন! 
৩. সুখবর মিলবে: 
এমনটা বিশ্বাস করা হয় যে বাড়িতে ত্রশূলের ছবি, স্টিকার বা সত্যিকারের ত্রিশূল এনে রাখলে চারিপাশে পজেটিভ শক্তির বিকাশ এত মাত্রায় হয় যে গুড লাক রোজের সঙ্গী হয়ে ওঠে। ফলে সাফল্য তো আসেই। সেই সঙ্গে একের পর এক খুশির ঘটনা ঘটার সম্ভাবনাও যায় বেড়ে। ৪. রক্ষা কবজ হিসেবে কাজ করে: শাস্ত্র মতে পরিবেশে উপস্থিত নানাবিধ খারাপ উপাদানের প্রভাবে যাতে কোনও ক্ষতি না হয়, সেদিকে নজর রাখেন দেবাদিদেব। সেই সঙ্গে জীবন পথে চলতে চলতে মাথা চাড়া দিয়ে ওঠা হাজারো সমস্যার পাহাড়ও সরে যায়। ফলে আনন্দে ভরে ওঠে জীবন। মধ্যা কথা শিবের ত্রিশূল পরিবারের প্রতিটি সদস্যের রক্ষা কবজ হিসেবে কাজ করে। ফলে কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা যায় কমে। 

৫. পাপের হাত থেকে রক্ষা মেলে: 
এমন ধরণা আছে যে প্রতিদিন ওম নম শিবার, এই মন্ত্রটি জপ করার মধ্যে দিয়ে যদি শিবের ত্রিশূলের পুজো করা হয়, তাহলে গত জন্ম এবং এ জন্মে করা সব ধরনের পাপের হাত থেকে রক্ষা মেলে। ফলে কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার বা দুঃখের সম্মুখিন হওয়ার আশঙ্কা যায় কমে। প্রসঙ্গত, বাড়িতে যদি ত্রিশূল রাখার জায়গা না পান, তাহলে ওম চিহ্ন সহ ত্রিশূলের এতটা স্টিকার এনে ঠাকুর ঘরে লাগাতে পারেন। কারণ এমনটা করলেও কিন্তু দারুন সুফল মেলে। 

৬. কর্মক্ষেত্রে পদন্নতি ঘটে: 
এমনটা মানা হয় যে নিয়মিত দেবাদিদেবের পুজো করার পাশাপাশি যদি ত্রিশূলের পুজো করা যায়, তাহলে কর্মক্ষেত্রে চুরান্ত সফলতা লাভের সম্ভাবনা যায় বেড়ে। সেই সঙ্গে অর্থনৈতিক উন্নতিও ঘটে চোখে পরার মতো। তাই তো বলি বন্ধু, অল্প সময়ে যদি অনেক টাকার মালিক হতে চান, তাহলে শিব মন্ত্র জপ করার মধ্য়ে দিয়ে দেবাদিদেব এবং তাঁর ত্রিশূলের পুজো করতে ভুলবেন না যেন!

বিডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71