শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
শনিবার, ৪ঠা ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
টং দোকানের মালিক ভন্ড পীর মোতাহিরের উৎপাতে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী
প্রকাশ: ১০:২৮ am ০৯-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ১০:২৮ am ০৯-০৮-২০১৭
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার পূর্ব শ্রীমঙ্গল (লালবাগ) গ্রামের মনাইউল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশ্ববর্তী পুকুর পাড়ে  মৃত নূর মিয়ার ছেলে মোতাহির তার নিজের বসত ভিটায় নূরে দরবারিয়া নামে ৭টি কবরস্থান বানিয়ে ৭ পীরের মাজার নামে ভুয়া মাজার গড়ে তুলেছেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। 

চলতি বছরের গত ২২ ফেব্রুয়ারী পুর্ব শ্রীমঙ্গল (লালবাগ) এলাকাবাসী ভুয়া মাজার ও ভন্ড পীরের নানান কু-কর্মের বিরুদ্ধে এবং ভুয়া মাজার উচ্ছেদের জন্য মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপার,শ্রীমঙ্গলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা,উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, কমান্ডিং অফিসার শ্রীমঙ্গল র‌্যাব ৯, শ্রীমঙ্গল থানা অফিসার ইনর্চাজ ও ৩নং ইউপি চেয়ারম্যান বরাবরে পৃথক পৃথক ভাবে ৭ পৃষ্ঠায় গণস্বাক্ষর সম্বলিত অভিযোগ পত্র দাখিল করে।

অভিযোগে জানা যায়, শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৩ নং শ্রীমঙ্গল ইউনিয়নের পূর্ব শ্রীমঙ্গল (লালবাগ) গ্রামের মৃত নূর মিয়ার ছেলে মোতাহির ৪/৫ বছর আগ থেকে বসত ভিটায় কপ্লিত ৭টি কবরস্থান বানিয়ে ৭ পীরের মাজার নাম দিয়ে একটি মিথ্যা ও ভুয়া মাজার রাতের আধাঁরে তৈরি করে । লোকমুখে প্রচার চালিয়ে মানুষের মধ্যে এই ভুয়া মাজারের প্রতি আকর্ষণ সৃষ্টি করে উক্ত মাজারের কবরগুলো পীরের বংশধর ও নিজেকে জ্বীনের বাদশা হিসেবে জাহির  করছে। পূর্ব শ্রীমঙ্গল এলাকার মৃত নূর মিয়ার তৃতীয় ছেলে মোতাহির মিয়া পূর্ব পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে একটি ভুয়া মাজার তৈরি করে লোকমুখে প্রচার করে প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা।

এলাকাবাসী জানায়, ভন্ড মোতাহিরের পূর্ব পরিকল্পীত প্ল্যান অনুযায়ী মাজার নামধারী ভুয়া মাজারকে ৭ পীরের মাজার হিসেবে আখ্যায়িত করে ইসলাম ধর্মের সঙ্গে প্রতারণা করছে।

মকবুল মিয়া জানান, ৪/৫ বছর আগে ভন্ড পীর নামক মোতাহিরের একটি টং দোকান ছিল আর এই টং দোকানে বসেই সে আমাদের এলাকার অনেকের সঙ্গে বেশি কামাইয়ের পরামর্শ করত। বলতো তার কু-বুদ্ধির কথা। বিদেশে গিয়েও কিছু না করার ব্যর্থতার কথা। তার স্বপ্ন বাস্তবায়নের পাঁয়তারায় বারবার চাপ প্রয়োগ করেন অন্য ভাইদের উপর, বলেন  তড়িৎ গতিতে পিতৃ সম্পদ ভাগ বাটোয়ারা করার জন্য। তার চাপের কারণে বিগত ৪/৫ বছর আগে সম্পদ ভাইদের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা করা হয়। আর তখন থেকেই জ্বিনের বাদশা ভন্ডপীর মোতাহিরের নানা রূপ প্রকাশ পেতে থাকে।

এদিকে ৫ আগস্ট শ্রীমঙ্গল থানার এস আই ফজলে রাব্বি, এ এস আই নূরে আলমসহ তিন সদস্যের একটি দল কল্পিত ৭ পীরের মাজার পরিদর্শন করেন। পরিশর্দন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তদন্ত কর্মকর্তা জানান, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টে উল্লেখ করা হয় অতীতে পূর্ব শ্রীমঙ্গলে কোন ৭ পীরের মাজার ছিল না; এটি একটি কল্পিত ও ভুয়া মাজার। এই মাজারের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ রয়েছে। তাই  পুলিশ হেডকোর্য়াটারের নির্দেশে মাজার বন্ধের বিষয়টি মোতাহিরসহ তার অনুসারীদের  জানাতে এসেছি।

এলাকাবাসীর জোর দাবি এই ভন্ড মোতাহির ও তার কল্পিত এবং ভূয়া ৭ পীরের মাজারের সাথে যারা জড়িত রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাদেরকে দ্রুত গ্রেফতার করতে হবে এবং অবিলম্বে এই ভুয়া ৭ পীরের মাজারটি  উচ্ছেদ করতে হবে। সূত্র : দৈনিক সিলেট

বিএম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71