বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৩০শে কার্তিক ১৪২৫
 
 
ঠাকুরগাঁওয়ে ধান-চালের দাম কমায় ভোক্তাদের মধ্যে স্বস্তি
প্রকাশ: ০৮:০১ pm ২৪-০৯-২০১৭ হালনাগাদ: ০৮:০১ pm ২৪-০৯-২০১৭
 
ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি
 
 
 
 


ঠাকুরগাঁওয়ে আকস্মিক ভাবে সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় ধান-চালের বাজার দর কমতে শুরু করেছে। দাম কমায় ভোক্তাদের মধ্যে অনেকটা স্বস্তি ফিরে এসেছে। 

বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার এবং ওএমএস এর (খোলা বাজারের চাল বিক্রি) কর্মসূচি শুরু হওয়ায় ঠাকুরগাঁওয়ে বিভিন্ন হাট-বাজারে ধান ও চালের সরবরাহ বেড়েছে। সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরে বাজারে ছেড়ে দিচ্ছে মজুদ করা ধান ও চাল। এতে বাজার দর নেমে এসেছে। কেজি প্রতি ৫ থেকে ৭ টাকা চালের দাম কমেছে। প্রতি মণ ধান ১০০ থেকে ১৫০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি চিকন চাল ভোক্তা পর্যায়ে বিক্রি হচ্ছে এখন ৪৮ টাকা দরে এবং মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৩৮ টাকা দরে। ধানের দামও কমেছে। 

সূত্র জানায়, অভিযানের ভয়ে ধানের মজুদ না বাড়িয়ে বড় ব্যবসায়ীরা চাল আমদানিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। প্রায় ১৫ দিন ধরে স্থানীয় ছোট-বড় চালকলগুলো চাল উৎপাদন বন্ধ রেখেছে। এ কারণে জেলার হাট-বাজারে ধানের দাম হ্রাস পেয়েছে। 

খোচাবাড়ী হাটের অটোমিল মালিক মনির বলেন ধরপাকড় শুরু হওয়ায় এবং মনিটরিং জোরদার হওয়ায় বাজার এখন স্থিতিশীল। 

ধান-চাল ব্যবসায়ী নুর ইসলাম বলেন, ব্যবসায়ীদের ক্ষেপিয়ে ফল ভাল হয়না। মন্ত্রীর অদক্ষতা-যোগ্যতার অভাবে সাধারণ মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

সদর উপজেলার গড়েয়া অটো রাইস মিল মালিক আসলাম বলেন, দেশে পর্যাপ্ত ধান চাল মজুদ রয়েছে। সংকট সৃষ্টির জন্য তিনি সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, এই পরিস্থিতির জন্য সরকারের সিদ্ধান্তহীনতা দায়ী এবং সময়োপযোগী পদক্ষেপের অভাবে আমদানিকারকরা ফায়দা লুটেছে।

তিনি আরও বলেন, পাইকারি পর্যায়ে এক সপ্তাহ ধরে চাল বেচা-কেনা হচ্ছে না। এর প্রভাব পড়েছে বাজারে। তাই ধানের দাম কমেছে। এছাড়া ভারত থেকে এলসির চাল আসছে। 

 

এমএসএইচ/আরপি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71