শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৭ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
ডাক বিভাগের ডিজি’র খামখেয়ালিতে হাজার হাজার গ্রাহক ক্ষুব্ধ
প্রকাশ: ০৭:০৯ pm ০৬-১০-২০১৬ হালনাগাদ: ০৭:০৯ pm ০৬-১০-২০১৬
 
 
 


নিজস্ব প্রতিবেদক:

ডাক কিভাগের ডিজি’র একটি চিঠির প্রেক্ষিতে পোষ্ট অফিসে স্থায়ী আমানতকারীরা বিপাকে পড়েছেন।

সম্প্রতি ডিজি স্বাক্ষরিত একটি চিঠি দিয়ে বলা হয়, যারা পোষ্ট অফিসে ৩ বৎসরের জন্য স্থায়ী আমানত রেখেছেন যা ৩ বছর পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে আরো ৩ বছর বেড়ে মোট ৬ বছর হয়, তা ৮ই মে ২০১৩ থেকে বাতিল করা হলো।

পিছনের তারিখে এমন বাতিলের সংবাদে এর গ্রাহকরা শুধু ক্ষুব্ধ নয়, রীতিমত বিপাকে পড়েছেন।

সূত্র জানায়, ডাক বিভাগে দীর্ঘদিন যাবৎ জনপ্রিয় একটি স্কীম হলো স্থায়ী বা মেয়াদী আমানত। যে কেউ প্রাপ্ত বয়স্ক বাংলাদেশী নাগরিক এ হিসাবে টাকা রাখতে পারেন।ঐ হিসাবে যৌথভাবে বা একক ভাবে কত টাকা রাখা যায় তা উলে­খ করা আছে।

সাধারণ মানুষ ফটকা ব্যবসায়ী বা এমএলএম এর কালো হাত থেকে রক্ষা পাবার জন্য ডাক বিভাগের স্থায়ী আমানতে সমস্ত নিয়ম কানুন মেনে টাকা জামা রাখছেন। স্থায়ী বা মেয়াদী আমানতে প্রাথমিক ভাবে ৩ বছরের জন্য একক বা যৌথ হিসাব খুলে টাকা রাখা যায়। পরবর্তীতে মেয়াদান্তে টাকা না উঠালে তা আরো ৩ বছর বেড়ে যায়। তবে কোনভাবেই ৬ বছরের অধিক রাখা যাবেনা। এভাবেই সাধারণ মানুষ সরকারের ডাক বিভাগের প্রতি আস্থা রেখে স্থায়ী বা মেয়াদী আমানতে টাকা রেখে আসছেন ছেলে-মেয়ের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে। হয়তো বা কেউ অবসরের পর জমানো টাকায় জীবনযাপন করবেন ভেবে টাকা পোষ্ট অফিসের স্থায়ী আমানতে টাকা জমা রেখেছেন। অনেকের ৩ বছর হয়ে গেছে। বর্ধিত মেয়াদের ৩ বছর ছুঁই ছুঁই অবস্থা।

এমন সময় ডাক বিভাগের মহাপরিচালক কোন রকম আগামবার্তা  না দিয়ে ১০/১৫ দিন আগে একটি চিঠি দিয়ে জানায় ৩ বছরের পর যে সমস্ত স্থায়ী আমানত রাখা আছে, তাদের মুনাফা দেয়া হবেনা। উল্লিখিত আদেশ যা সম্প্রতি দেয়া হয়েছে, তা ৮/৫/১৩ইং থেকে বাতিল বলে গণ্য হবে। প্রায় সাড়ে ৩ বছর আগে যদি বাতিল করা হবে, তার চিঠি ২০১৬ সনের শেষ দিকে পাঠিয়ে গ্রাহকদের কাঁধে চাপিয়ে প্রতারণা করা হচ্ছে, না ঠকানো হচ্ছে, তা বোধগম্য নয়।

সাধারণত নিয়ম হলো, যখন আইন হবে, তখন থেকেই তা বলবৎ হবে। এর আগে সে আইন বাস্তবায়ন হবেনা। এখন ডাক বিভাগের ডিজি মহোদয় কোন আইন বলে পিছনের তারিখে বাস্তবায়নের চিঠি দিয়ে সাধারণ গ্রাহকদের ঠকানোর কৌশল নিয়েছেন, তা বোধগম্য হচ্ছে না। তাহলে যাদের স্থায়ী আমানত প্রথম ৩ বছর পার হয়ে পরবর্তী ৩ বছর ছুঁই ছুঁই অবস্থা তারা  মুনাফা থেকে বঞ্চিত হবেন পিছনের তারিখে ইস্যু করা চিঠির পেক্ষিতে।

এ ব্যাপরে ময়মনসিংহ প্রধান ডাকঘরের এপিএমজি এ কে এম সালেমূল হক জানান, ডিজি মহোদয়ের চিঠির ব্যাখ্যা আমরাও বুঝিনি। পিছনের তারিখে তা বাস্তবায়নের নির্দেশ দেয়ায় গ্রাহকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। তাই পিছনের তারিখের চিঠি দিয়ে গ্রাহকদের ৩ বছরের অধিক সময়ের মুনাফা থেকে বঞ্চিত হবে বিধায় ডাক বিভাগের গ্রাহকদের ক্ষোভের কারণে ডিজি বরাবর চিঠি দিয়ে ৭/৮ দিন আগে ব্যাখা চেয়েছি। এখনো সে চিঠির জবাব আসেনি। পিছনের তারিখে দেয়া চিঠি দিয়ে এখন বাস্তবায়ন করা সঠিক কোন প্রসেস কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ডিজি মহোদয়ের কাছে দেয়া চিঠির উত্তর না আসা পর্যন্ত আমি কিছু বলতে পারছিনা। তবে নিয়মানুযায়ী যখন আইন হবে তখন থেকে বাস্তবায়নের কথা। পিছনের তারিখ দিয়ে (৩ বৎসর) আগের তারিখ দিয়ে এখন বাস্তবায়ন হলে গ্রাহকরা পোষ্ট অফিসের প্রতি আস্থা হারাবে, তাতে সন্দেহ নেই।  

গ্রাহকগণ প্রত্যাশা করেন, ডাক বিভাগের ডিজি মহোদয় পুরো বিষয়টি নিয়ে একটি সঠিক সিদ্ধান্ত দিয়ে গ্রাহকদের বিপাকে ফেলা থেকে রক্ষা করবেন।

 

এইবেলাডটকম/রবীন্দ্রনাথপাল/এমআর

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71