শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮
শুক্রবার, ২রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
তবু ‘চোক’ শব্দটাকে এড়ানো যাচ্ছে না
প্রকাশ: ০৭:২০ am ১৬-০৩-২০১৫ হালনাগাদ: ০৭:২০ am ১৬-০৩-২০১৫
 
 
 


সিডনি (অস্ট্রেলিয়া): সিডনি ক্রিকেট মাঠে ভদ্রলোকের নামে একটা স্ট্যান্ড আছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে তাকে  ‘দ্বিতীয় ব্র্যাডম্যান’ বলে ডাকা হতো। তবে তাঁর জীবন যাপন, চালচলন, কথাবার্তা সব কিছু মিলিয়ে নাকি তাঁকে ফুটবলার জর্জ বেস্টের কাছাকাছি রাখা যায়!

অস্ট্রেলিয়ান মিডিয়ার বর্ষীয়ানরা অবশ্য এখনো তা-ই মনে করেন। বিয়ার-সিগারেট এগুলো ছাড়া তাঁর চলেই না। সত্তর পেরিয়ে আসা ভদ্রলোক ডগলাস ওয়াল্টার অবশ্য এখন আর ক্রিকেট খুব একটা দেখেন না গ্যালারিতে বসে। সিডনিতে টেস্ট হলে অবশ্য ভিন্ন কথা। সেই ভদ্রলোক হঠাৎ করেই বিশ্বকাপ নিয়ে কথা বলেছেন! এবং তিনি রীতিমতো বিরক্ত। সেটা নানা কারণে। তবে একটা বিরক্তির কারণ, এতো লম্বা সময় ধরে কেন বিশ্বকাপ!

হ্যাঁ; সেই লম্বা সময়ের বিশ্বকাপ এখন ছোট হয়ে আসছে। রোড টু ফাইনালের যাত্রা শুরু করছে বিশ্বকাপ। আর সেই রোড টু ফাইনালের  ‘জিরো পয়েন্ট’ হচ্ছে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড। এবারের বিশ্বকাপের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালটা এখানেই হবে। বুধবারের সেই কোয়ার্টার ফাইনালের গায়ে অবশ্য নানা রকম লেবেল এঁটে দেওয়া হচ্ছে! অথচ শুরুর আগে ম্যাচটা যে শ্রীলংকা বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা সেটাই মনে হচ্ছে না!

হবে কিভাবে? এবারের বিশ্বকাপে দু’দলের দুজন ব্যাটসম্যান এমন স্বপ্নের ফর্মে আছেন, যেখানে প্রতিপক্ষের বোলাররা স্বপ্নেও এদের নাম শুনলে রীতিমতো আঁতকে উঠবেন!একজন যদি হন শ্রীলংকার কুমার সাঙ্গাকারা, অন্যজন নিশ্চয়ই দক্ষিণ আফ্রিকার এবি ডি-ভিলিয়ার্স। কুমার সাঙ্গাকারা টানা চারটা সেঞ্চুরি করেছেন এবারের বিশ্বকাপে। প্রথমজন ছ’ ম্যাচে রান করেছেন ৪৯৫। দ্বিতীয়জন ৪১৭। এদের ফর্ম বোঝানোর জন্য স্ট্রাইক রেট, অ্যাভারেজ লিখে শব্দ খরচের কোনো মানে হয় না। তাই ম্যাচটাকে  বলা হচ্ছে সাঙ্গা বনাম এবিডি!

এই ম্যাচের পর একজনই থাকবেন বিশ্বকাপে। থাকবে দু’দলের একটা। সেটা দক্ষিণ আফ্রিকা নাকি শ্রীলংকা? অস্ট্রেলিয়ান সাবেক ক্রিকেটারদের বেশির ভাগ মনে করছেন প্রথম সেমিফাইনালিস্ট দলটার নাম দক্ষিণ আফ্রিকা হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। সিডনির পিট স্ট্রিটের মার্টিন প্লেসের এক অনুষ্ঠানে সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান মাইক হাসি যেমন বললেন ;‘ আমার তো মনে হয় অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকা ফাইনাল হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।’ বাকিটুকু না বললেও চলে। প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে কোন দলটাকে এগিয়ে রাখলেন সাবেক এই অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান তা বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।

মাইক হাসির অবশ্য আরো একটা পরিচয় তুলে ধরতে হচ্ছে; দক্ষিণ আফ্রিকা টিমের ব্যাটিং কনসালট্যান্ট হিসেবেও কাজ করছেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং কনসালট্যান্ট হিসেবে আরো একজন আছেন।  গ্যারি কারস্টেন। গত বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন ভারতীয় দলের কোচ ছিলেন তিনি। এবার নিজের দেশের ব্যাটিং কনসালট্যান্ট। হাসি এবং কারস্টেন দু’জনেরই বিশ্বকাপ জেতার অভিজ্ঞতা আছে। একজনের আছে ক্রিকেটার হিসেবে। অন্যজনের কোচ হিসেবে। এই দু’জনের কেউই অবশ্য ম্যাচটাকে ব্যক্তির লড়াই হিসেবে দেখতে রাজি নন। তারা দেখতে চান শ্রীলংকা বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা লড়াই হিসেবে। কিন্তু আমজনতা তাদের মতো করে ভাবতে যাবে কেন? তারা ভাবছে তাদের নিজেদের মতো করেই।

 সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড থেকে রুমে ফেরার পথে ফ্লেমিংটন স্টেশনে অনেক শ্রীলংকান চোখে পড়লো। এই এলাকাটায় মূলত লংকান আর চাইনিজদের ব্যাবসায়িক আধিপত্য। সেখানে শ্রীলংকানদের একটাই কথা ;‘ কুমার( সাঙ্গাকারা) যে ফর্মে আছেন, তাতে দক্ষিণ আফ্রিকা এসসিজিতে দাঁড়াতে পারবে না। আর ওদের এবিকে তাড়াতাড়ি ফেরানোর ফর্মুলা লাসিথের( মালিঙ্গা) জানা।’ তাহলে লড়াইটা কি সেই সাঙ্গাকারা বনাম এবিডি ভিলিয়ার্স হচ্ছে?

না। তাহলে মাহেলা জয়াবর্ধনে, তিলকরতেœ দিলশান, লাসিথ মালিঙ্গা কিংবা ডেইল স্টেইন,  ফ্যাফ ডুপ্লিসেস, ইমরান তাহির এদের তো মনকষ্টের অনেক কারণ থাকবে। ডেইল স্টেইন তো বলেই রেখেছেন ;‘প্রথম রাউন্ডে খুব ভাল ছন্দে ছিলাম তা দাবি করতে পারছি না। তবে দলের প্রয়োজনের মুহূর্তে নিজের সেরা ফর্মেই ফিরতে চাই।’ কোয়ার্টার ফাইনালের চেয়ে প্রয়োজনীয় মুহূর্ত আপাতত দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে কিছু নেই। সুতরাং সেরা ফর্মের ডেইল স্টেইনকে দেখা যাবে কি সিডনিতে? যদি তাই হয় তাহলে লাসিথ মালিঙ্গার বিধ্বংসী ফর্মটাও দেখা যেতে পারে এখানে। আর সেটা খুব প্রয়োজন লংকানাদের। তাহলে লড়াইয়ের মধ্যে আরো একটা লড়াইয়ের নামকরণ কি হতে পারে না ; ‘স্টেইন বনাম মালিঙ্গা’! দুই পেস বোলারারের লড়াইকে  এসসিজি স্বাগত জানালে স্পিনাররাও খুব মন খারাপ করবেন না। কারণ, এসসিজিতে শেষ দিকে স্পিনাররা সব সময় একটু সুবিধা পান। ইমরান তাহির এবং শ্রীলংকান স্পিনাররা সেটা ভেবে খানিকটা স্বস্তিতে আছেন। তাহলে স্পিনারদের লড়াইটাও দেখার আশা করা যেতেই পারে।

কিন্তু এতো লড়াইয়ের মধ্যে আবার সেই  ‘চোক’ শব্দটা ঢুকে পড়বে নাতো! দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো সংবাদ সম্মেলনে এসে অবশ্য বলে গেলেন ;‘ এ বিষয়টা নিয়ে  আমরা অনেক কাজ করেছি। অনেক কথা হয়েছে। ওটাকে আমরা এখন অতীত ছাড়া কিছু মনে করি না। আর আগামী দিনে ম্যাচ বলতে শ্রীলংকার বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনাল। সেখানে আমরা অতীতের কোনো ছায়া দেখতে চাই না।’

সামনের দিকে তাকিয়ে অতীতকে ফিরিয়ে আনতে চাইলেন না শ্রীলংকান ক্রিকেটের প্রধান নির্বাচক সনৎ জয়সুরিয়া। এসসিজিতে সংবাদ সম্মেলনে এলেন তিনি। সাবেক এই  মারমুখি বাটসম্যান অবশ্য রীতিমতো  রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে সব প্রশ্নের  জবাব দিয়ে গেলেন। অর্জুনা রানাতুঙ্গার মতো বিশ্বকাপজয়ী সাবেক অধিনায়ক শ্রীলংকা দল নির্বাচন নিয়ে অনেক কথা বলেছেন। সংবাদ সম্মেলনে সেই প্রসঙ্গটাও একটু উঠলো। কিন্তু সেখানেও জয়াসুরিয়া রক্ষণাত্মক। আর শ্রীলংকার প্রতিপক্ষ সম্পর্কে যে কথাটা বারবার উঠছে, সেই  ‘চোকার’ অপবাদের প্রসঙ্গ আসতেই জয়সুরিয়া  বললেন ‘অনেকদিন ধরে এই কথাটা বলা হচ্ছে। তবে এরকম বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ওদের চেয়ে আমাদের রেকর্ডটা বোধহয় ভাল।’

লড়াইটা আসলে মোটেও সাঙ্গাকারা বনাম এবিডি ভিলিয়ার্স নয়। মালিঙ্গা বনাম স্টেইনও নয়। সত্যিই এসসিজিতে লড়াইটা শ্রীলংকা বনাম দক্ষিণ আফ্রিকার। তবে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডের গ্যালারিতে আরো একটা প্রতিপক্ষ  থাকবে দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য। তাদের ঢাক-ঢোল-কাশা-ঘন্টার শব্দে সত্যিই দক্ষিণ আফ্রিক‘ চোক’ করবে নাতো!
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71