বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯
বৃহঃস্পতিবার, ১১ই মাঘ ১৪২৫
 
 
দিনাজপুরে কলেজছাত্র জয় শর্মার মরদেহ উদ্ধার
প্রকাশ: ০৪:৫৯ pm ০৪-০৭-২০১৮ হালনাগাদ: ০৪:৫৯ pm ০৪-০৭-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় প্রেমিকার বাড়ির সামনে থেকে গলায় ফাঁস লাগানো জয় শর্মা (১৭) নামে এক কলেজছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার উপজেলার খামারপাড়া ইউনিয়নের গাড়পাড়া শাহাপাড়ার ফাগুনের বাড়ির সামনে থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত জয় শর্মা পার্শ্ববর্তী ভাবকী ইউনিয়নের রামনগর নাপিতপাড়ার ধনঞ্জয় শর্মার ছেলে ও কাচিনীয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ১ম বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

নিহতের পরিবারের দাবি, প্রেমঘটিত কারণে জয় শর্মাকে হত্যা করা হয়েছে। অপরদিকে মেয়ের পরিবারের দাবি, তারা জয় শর্মাকে কোনো দিন দেখেননি।

জয় শর্মার মা লক্ষ্মী রানী রায় বলেন, বিনোদ চন্দ্র রায় ফাগুনের মেয়ের সঙ্গে ফোনে আমার ছেলে প্রায়ই কথা বলত। এর জের ধরে ১৫-২০ দিন আগে দক্ষিণ গাড়পাড়ার হরিবাসরে মেয়ের ভাই আমার ছেলেকে মারধর করে। কমিটির লোকেরা আমার ছেলেকে বাঁচিয়েছে। সোমবার মৃত্যুর আগের দিন বিকালে মেয়ের ভাই মুকুন্দ আমাদের বাড়িতে এসে জয়কে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে যায়। মঙ্গলবার সকালে ছেলের মৃত্যুর খবর পেলাম। ওই মেয়ের সঙ্গে আমার ছেলের অনেক অন্তরঙ্গ ছবি আছে।

তার অভিযুক্ত দশম শ্রেণির ছাত্রী (১৫) ও তার মা বানী রানী বলেন, আমরা মা ও মেয়ে ভোর ৫টার দিকে প্রকৃতির ডাকে বাড়ির বাইরে যাই। এ সময় টয়লেটে গেলে ছেলেটার পা দেখতে পাই। তখন চিৎকার করতে থাকি। আমরা তাকে চিনি না কোনো দিন দেখিনি।

মেয়ের ইউনিয়ন খামারপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. সাজেদুল হক সাজু বলেন, প্রেমের ঘটনা শুনেছি। মঙ্গলবার সকালে এলাকার মানুষ আমাকে মোবাইলে জয়ের মৃত্যু খবর দেয়। তার মৃত্যু রহস্যজনক।

ছেলের ইউনিয়ন ভাবকী ইউপি চেয়ারম্যান মো. সফিকুল ইসলাম জানান, বিষয়টি দেখছি। মৃত্যুর রহস্যটি ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে। তবে প্রেমের বিষয়টি সবার মুখে মুখে শোনা যাচ্ছে।

খানসামা থানা পুলিশের উপ পরিদর্শক (এসআই) এ কে এম আতিকুর রহমান জানান, মরদেহটিকে ঝোলানো অবস্থায় ছিল। ছেলের বাবা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ করেছে। মামলার রেকর্ডের কাজ চলছে।

বিডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71