বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
ধর্ষিতা হিন্দু শিক্ষিকার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে
প্রকাশ: ১১:১২ am ০৫-০৯-২০১৭ হালনাগাদ: ১১:১২ am ০৫-০৯-২০১৭
 
বরগুনা প্রতিনিধি
 
 
 
 


সামাজিক জীবন নিয়ে শঙ্কায় বরগুনার বেতাগী উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ধর্ষিত সেই সহকারী হিন্দু শিক্ষিকা। ১৭ আগস্ট স্বামীকে আটকে রেখে তাকে গণধর্ষণ করে এলাকার আ’লীগের স্থানীয় সমর্থকরা । ঘটনার পরদিনই ভিকটিমের স্বামী ভারত চলে যান, তিনি ওই দেশেরই নাগরিক। তবে হিন্দু পরিবারটির কাছে এখন বড় বিষয় হচ্ছে নিরাপত্তা।

এদিকে শিক্ষিকার বাড়িতে পুলিশি পাহারা থাকলেও আতঙ্ক কাটেনি পরিবারটির। ঘটনার ১১ দিন অতিবাহিত হলেও অধরা রয়েছে মামলার তিন আসামি। তারা হলেও আবদুল হাকিমের ছেলে মো. রাসেল, মো. দুলালের ছেলে মো. রেজাউল ও কুদ্দুস কাজির ছেলে মো. সুমন কাজি। তবে প্রধান আসামি সুমন বিশ্বাসকে লক্ষ্মীপুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলার সব আসামিই ক্ষমতাসীন দলের সমর্থক। বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগের নানা কর্মসূচিতে তাদের সক্রিয় দেখা গেছে বলে জানান এলাকাবাসী।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বেতাগী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হুমায়ুন কবির জানান, গত বৃহস্পতিবার আসামি রবিউল ও জুয়েলের তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে। তবে এখনো তাদের থানায় আনা হয়নি। প্রধান আসামির রিমান্ড মঞ্জুর হলে আজ (সোমবার) তাদের মুখোমুখি করা হতে পারে।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মামুন-অর-রশিদ বলেন, পলাতক বাকি তিন আসামিকে গ্রেপ্তারে করা হয়েছে। তবে ভিকটিমের পরিবারের আতঙ্কের কোনো কারণ নেই। ঘটনার পরদিন থেকেই ওই বাড়িতে তিন পুলিশ সদস্য ২৪ ঘণ্টা পাহারা দিচ্ছেন।

মাদকসেবী সুমন থেকে রামদা সুমন 

সুমন বিশ্বাস গ্রেপ্তার হওয়ায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন এলাকাবাসী। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক এলাকাবাসী জানান, সুমনের চাচাতো ভাই মন্টু বিশ্বাস ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) মেম্বার। তার ক্যাডার বাহিনী হিসেবে গড়ে ওঠা সুমন বাহিনী বেতাগীর হোসনাবাদ ইউনিয়নের কদমতলায় এক আতঙ্কের নাম। তিনি কয়েক বছর আগেও মাদকাসক্ত ছিলেন। তবে থাকতেন লক্ষ্মীপুরে শ্বশুরবাড়িতে। ইউপি নির্বাচন কেন্দ্র করে তাকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনেন মন্টু বিশ্বাস।
সম্প্রতি একটি সালিশকে কেন্দ্র করে ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান ফোরকানকে হত্যার হুমকি দেন সুমন। একই এলাকার কলেজছাত্র ইমন জোমাদ্দারকেও বেদম মারধর করেন তিনি। এ ঘটনায় মামলা করতে গেলে উল্টো প্রাণনাশের হুমকি দেন। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদের পথেঘাটে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ কারায় ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের ছেলের ওপর মরিচের গুঁড়া ছুড়ে দেওয়াসহ নানা অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন মোকামিয়ার ৪ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার দেলোয়ার হোসেন বলেন, মাস তিনেক আগে মো. ফোরকান হোসেনের ছেলে মো. সৌরভকে ঠুনকো অভিযোগে কুপিয়ে আহত করেন সুমন; কিন্তু এতোকিছুর পরও তার বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণ মামলাটি ছাড়া মাত্র একটি মামলা রয়েছে। ভয়ে তার বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলতে সাহস পায় না।  

প্রচ 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71