সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮
সোমবার, ৫ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
নদীর চরে বাদাম চাষ
প্রকাশ: ০৪:২০ pm ২৯-০৬-২০১৫ হালনাগাদ: ০৪:২০ pm ২৯-০৬-২০১৫
 
 
 


যে নদীর ভয়াল থাবায় হারিয়েছে বসতভিটা, চাষের জমিসহ সহায়-সম্বল সব। সে নদীর জেগে ওঠা চরে বাদামের আবাদ করে তারা দিন ফেরানোর স্বপ্নে বিভোর ।  নদীর চরে যতোদূর চোখ যায় কেবল বাদামের সবুজ গাছের সমারোহ। পদ্মা ও যমুনার ভাঙনের শিকার বাদাম চাষিরা নতুন চরে আবাদ করা বাদাম থেকেই  ক্ষতিপূরণ তুলবেন। এ চিত্র মানিকগঞ্জ জেলার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া পদ্মা আর যমুনার তীর সংলগ্ন এলাকার।


পদ্মা ও যমুনার ভাঙা-গড়ার খেলায় এসব এলাকার অনেকেই হারিয়েছেন ঘর-বাড়ি, জমি ও ফসল। নদীর এক তীর নিষ্ঠুরের মতো ভেঙে গ্রাস করে নিয়েছে সব, মানুষকে করেছে সর্বস্বান্ত। আবার অপর তীরে জেগে উঠেছে বিশাল চর। ওই চরেই নতুন করে শুরু হয় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের বসবাস। নতুন করে জেগে ওঠা এসব চরেই এখন বাদাম চাষ 
করে দিন বদলের স্বপ্ন বুনছেন তারা 

 
পদ্মা তীরবর্তী
 যমুনা তীরবর্তী দৌলতপুর উপজেলার বাঁচামারা, বাঘুটিয়া, চরকাটারি এবং হরিরামপুর উপজেলার  কাঞ্চনপুর, আজিমনগর, লেছড়াগঞ্জ, ধূলসুরা  ও শিবালয় উপজেলার মধ্যনগরত্রিশুন্ডি, কানাইদিয়া, আলোকদিয়া এবং রশিবালয় চরগুলোতে বাদামের চাষ হয়েছে ব্যাপক হারে 


আজিমনগর চরের কৃষক মাঈনুদ্দিন মোল্লা জানান, বালিমাটি হওয়ায় চরাঞ্চলে অন্য ফসলের আবাদ তেমন ভালো হয় না। তাই বাধ্য হয়েই বাদাম চাষ করতে হয়। তাছাড়া অল্প খরচে বাদাম চাষে 
ভালোই লাভ  হয় 


এইবেলা ডটকম/ দেবাশীস


 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71