শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
শুক্রবার, ১০ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
নরসিংদীতে ডাকাতের উৎপাত: রাত জেগে পাহারা
প্রকাশ: ০২:৩৮ pm ২৪-১১-২০১৭ হালনাগাদ: ০২:৩৮ pm ২৪-১১-২০১৭
 
নরসিংদী প্রতিনিধি
 
 
 
 


রাতের আঁধার যতই বাড়তে থাকে নরসিংদী জেলার পলাশ উপজেলার গ্রামবাসীর চোখে-মুখে ডাকাত আতঙ্কের ছাপ ততই বাড়ে। এই বুঝি সশস্ত্র ডাকাতদল বাড়িঘরে হানা দিল। এ ভেবেই উপজেলার অধিকাংশ মানুষ এখন রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন। প্রায় প্রতিদিনই উপজেলার কোনো না কোনো গ্রামে সশস্ত্র ডাকাতদল হানা দিচ্ছে। শুধু ডাকাতি করেই ক্ষান্ত নয়, ডাকাতিকালে বেশ কয়েকটি ঘটনায় বেরিয়ে এসেছে নারীদের লাঞ্ছিত হওয়ার কথাও। কিন্তু লোকলজ্জার ভয়ে তারা ওইসব ঘটনা চেপে যাচ্ছেন। ডাকাত আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন গ্রামের অনেক মানুষ। গত দুই মাসের ব্যবধানে উপজেলার চরসিন্দুর ইউনিয়ন, জিনারদী ইউনিয়ন, ঘোড়াশাল পৌর এলাকার ভাড়ারিয়া ও তেলিখলাপাড়াসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

গত ১৬ অক্টোবর রাতে উপজেলার চরসিন্দুর ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া গ্রামের একটি চীনা প্রতিষ্ঠানে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় ডাকাতরা প্রতিষ্ঠানের লকার ভেঙে আট লাখ টাকা লুট ও ছয় চাইনিজ এবং দুই বাংলাদেশি নিরাপত্তাকর্মীকে পিটিয়ে আহত করে। গত ৩ নভেম্বর রাতে জিনারদী ইউনিয়নের পণ্ডিতপাড়া বাজারের রাসেল মিয়া নামে এক নৈশপ্রহরীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মেসার্স ত্রি-ব্রাদার্স ট্রেডার্স নামে একটি দোকানের ৪৮ বস্তা চাল ও চার কন্টেনার তেল লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার ১০ দিনের মাথায় গত ১৩ নভেম্বর রাতে ঘোড়াশাল পৌর এলাকার ভাড়ারিয়া গ্রামের মুদি ব্যবসায়ী মুজিবুর মিয়ার বাড়ির দরজা ভেঙে পরিবারের সদস্যদের দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দুই ভরি স্বর্ণ, নগদ ৫৫ হাজার টাকা ও দুটি মোবাইল লুট করে নিয়ে যায় ডাকাতরা।

পলাশ থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, ইতিমধ্যে আমরা কয়েকজন ডাকাত সদস্যকে আটক করে আদালতে পাঠিয়েছি। এছাড়া ডাকাতি প্রবণ এলাকাগুলোতে পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে। 

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71