রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
রবিবার, ৮ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
নলছিটিতে ইউপি মেম্বরের বেপরোয়া হিন্দুদের জমি দখল: স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ
প্রকাশ: ০৭:১৮ pm ৩১-০৭-২০১৭ হালনাগাদ: ০৭:১৮ pm ৩১-০৭-২০১৭
 
 
 


নলছিটিতে বেপরোয়া সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালানোর অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য ইউনুছ ফকিরের বিরুদ্ধে। গায়ের জোরে অন্যের জমি দখল করে নেওয়া, সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার, সরকারি বন বিভাগের কাঠ কেটে নেওয়া, সরকারি বিভিন্ন সম্পদ বিক্রি করে দেওয়াসহ এমন কোনো অপরাধ নেই, যা করছে না ইউনুছের পরিবার।

কিন্তু একাধিক মামলা থাকলেও এদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না স্থানীয় প্রশাসন। সম্প্রতি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এ ধরনের একটি অভিযোগ জমা দিয়েছে গ্রামের লোকজন।

অভিযোগপত্রে স্বাক্ষর করেন হালিম ফকির, কবির উদ্দিন আহমেদ, আফজাল হোসেন, আবু বকর সিদ্দিক, শহিদুল ইসলাম ফকির এবং আমজেদ মল্লিক।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আকতারুজ্জামান বাচ্চু বলেন, ইউনূছের নামে বেশ কিছু অভিযোগ রয়েছে। তবে লিখিতভাবে জানলে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারি। তবে বিষয়টি নিয়ে কোনো কথা বলতে রাজি নয় অভিযুক্ত পরিবার।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়, নলছিটি থানার কুলকাঠী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বর ইউনূছ। স্থানীয় হিন্দু পরিবার থেকে শুরু করে মসজিদের ইমাম পর্যন্ত এমন কেউ নেই, যাকে ইউনূছ ফকির, তার ছেলে মিজানুর রহমান সজীব ও তার ভাইয়েরা মারধর করে নাই। সম্প্রতি ১০টি পরিবারের জমি জোর করে দখল করে নেয়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। যাদের জমি দখল করে নেওয়া হয়েছে, এদের মধ্যে রয়েছেন- মোশারর হোসেন, মনির হোসেন, আবু বক্কর সিদ্দিক, হুমায়ুন কবির, আবদুল কাদের মিন্টু, সৈজদ্দিন এবং রফিকুল ইসলাম। জমিতে থাকা দুই লাখ টাকার ফলদ গাছ কেটে নিয়ে যায় ইউনূছ। কেউ কথা বললে তাকে দুনিয়া ছাড়া করা হবে বলে হুমকি দিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

এক্ষেত্রে ভয়ংকর হয়ে উঠছে ইউনুছের ছেলে থানা ছাত্রদল নেতা একাধিক মামলার আসামি মিজানুর রহমান সজীব। এই সজীবের নেতৃত্বে প্রতিদিন রাতে অস্ত্র নিয়ে ১৫ থেকে ২০টি মোটরসাইকেলসহ প্রায় ৪০জন সন্ত্রাসী থানার বিভিন্ন এলাকায় মহড়া দেয়। সজীব বাহিনীর ভয়ে বর্তমানে এলাকার সবাই আতংকিত। আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে, এই প্রত্যাশায় এখনই থেকে বেপরোয়া এরা। কেউ কোনো প্রতিবাদ করলেই তার ওপর চলে নির্যাতন।

অভিযোগপত্রে আরও উল্লেখ করা হয়, চলতি বছরের মে মাসে স্থানীয় সংখ্যালঘু কালাচান হালদারের জমির ফসল কেটে নেয় ইউনূছ ফকির। এ নিয়ে নলছিটি থানায় একটি মামলা হয়েছে। রহস্যজনক কারণে ইউনূছকে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। এছাড়া নিজের জমির গাছ কাটতে গেলে সম্প্রতি সংখ্যা লঘু পরিবার নারায়নসাধুর উপর নির্যাতন করা হয়।

গত বছর কাপড়কাঠীর মদিনাবাজার জামে মসজিদের ইমাম আব্দুল মান্নানকে প্রকাশ্যেই মারধর করে মসজিদে আসা বন্ধ করে দেয়। এছাড়াও গত ২০১৫ সালে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সরকারি ২৬টি গাছ কেটে নেয়। এ ব্যাপারে ইউনূছ ফকিরের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বন বিভাগ।

অভিযোগপত্রে আরও উল্লেখ করা হয়, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করায় গত বছর একই গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আমজেদ মল্লিককে প্রকাশেই পিটিয়ে রক্তাক্ত করেছে ইউনূছ ও সজীব ফকির। এছাড়া গায়ের জোরে আপন চাচাত ভাই হালিম ফকির ও পলাশ ফকিরের জমি ও পুকুর দখল করে নেয় এই ইউনূসের পরিবার।

ঘটনার প্রতিবাদ করলে হালিম ফকিরের মা, বোনসহ ৫ জনকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে। এ ব্যাপারে নলছিটি থানায় একটি মামলা হয়। যার নম্বর ১১৮০(৩)/১, তারিখ ২৪.০৩.২০১৩। এই মামলায় চার্জশিট পরে দেওয়ার আসামীরা গ্রেফতার হয়।

কিন্তু মাত্র ১০দিন জেল খেটেই জামিনে ছাড়া পায় প্রধান দুই আসামী সজীব এবং ইউনূছ। এরপর আরও বেপরোয়া হয়ে উঠে এরা। মামলার বাদী হালিম ফকিরের ঘরের সামনে বাউন্ডারি দিয়ে জিম্মি করে রাখে এই সন্ত্রাসীরা। এখনও ভাউন্ডারি দিয়ে পরিবারটিকে জিম্মি করে রাখা হয়েছে।খবর: দ্যা রিপোর্ট২৪

 

পিসিএস

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71