শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৩রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
নাসিরনগরে হিন্দুদের উপর হামলা: আটক চেয়ারম্যান আঁখি ফের রিমান্ডে
প্রকাশ: ০৮:১৩ pm ১৮-০১-২০১৭ হালনাগাদ: ০৮:১৪ pm ১৮-০১-২০১৭
 
 
 


ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার অন্যতম প্রধান সন্দেহভাজন হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেওয়ান আতিকুর রহমানের আবারও দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আজ বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম শফিকুল ইসলামের আদালত শুনানি শেষে আতিকুরের দুই দিনের রিমান্ডের আবেদন মঞ্জুর করেন।

নাসিরনগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইশতিয়াক আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নাসিরনগর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের হরিণবেড় গ্রামের রসরাজ দাসের বড় ভাই দয়াময় দাসের করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আতিকুরকে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত তাঁর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।


ইশতিয়াক আহমেদ আরও বলেন, এর আগে মন্দির ভাঙচুরের ঘটনায় করা মামলায় আতিকুরকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ওই মামলায় তাঁকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে গত রোববার তাঁকে আদালতে হাজির করে দয়াময় দাসের মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। আদালত আজ বুধবার রিমান্ডের আবেদন শুনানির দিন ধার্য করেছিলেন।

গত ৩০ অক্টোবর হরিপুর ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামের সুদাম দাসের বাড়ির মহাদেব মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় রসরাজ দাসের বড় ভাই দয়াময় দাস বাদী হয়ে গত ১৬ নভেম্বর নাসিরনগর থানায় অজ্ঞাতনামা প্রায় ১৫০ জনকে আসামি করে মামলা করেন। এ মামলায় ১৩ ডিসেম্বর গেন্দু মিয়া নামের এক ব্যক্তিকে প্রথম গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নাসিরনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শওকত হোসেন  বলেন, ৩০ অক্টোবর সমাবেশের জন্য হরিপুর ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি হাজি বিল্লাল হোসেন ও জাহাঙ্গীর আলম ট্রাক ভাড়া করেছিলেন।

পরে জাহাঙ্গীর ট্রাকভাড়া বাবদ ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুরের কাছে ১০ হাজার টাকা চেয়েছিলেন। আতিকুর ট্রাকভাড়া বাবদ জাহাঙ্গীরকে ১০ হাজার টাকা দিয়েছেন বলে পাঁচ দিনের জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানিয়েছেন।

এর আগে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মফিজ উদ্দিন জানান, গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদে আতিকুর কয়েকজনের নাম বলেছেন। তা ছাড়া নাসিরনগরের হামলার ঘটনা তদন্তে আতিকুরের সম্পৃক্ত থাকার যথেষ্ট প্রমাণ পুলিশের কাছে রয়েছে।

৫ জানুয়ারি ভোরে ঢাকার ভাটারা থানার পুলিশ ভাটারা এলাকা থেকে আতিকুরকে গ্রেপ্তার করে। পরে সন্ধ্যার দিকে তাঁকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মফিজ উদ্দিন ও এসআই ইশতিয়াক আহমেদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আতিকুর রহমান গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নাসিরনগর উপজেলার হরিপুর ইউনয়ন থেকে জয়লাভ করেন।

গত ৩০ অক্টোবর রাতে রসরাজ দাস নামের এক ব্যক্তির ফেসবুক থেকে ধর্মীয় অবমাননাকর পোস্ট নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলা সদরে হিন্দু বসতি ও মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটে।

নাসিরনগর সদর থেকে ১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে হরিণবেড়ে রসরাজদের বাড়িও ভাঙচুর করা হয়। এরপর আরও চার দফায় হিন্দুদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করা হয়। এসব ঘটনায় আটটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় আতিকুরসহ ১০৭ জন গ্রেপ্তার রয়েছেন।

 

এইবেলাডটকম/পিসি 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71