শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯
শনিবার, ৭ই বৈশাখ ১৪২৬
সর্বশেষ
 
 
নির্বাচনের আগেই সংখ্যালঘু মা-মেয়ে ধর্ষণের জবাব দিতে হবে : রানা দাশগুপ্ত
প্রকাশ: ০৯:৪৫ pm ২৪-০৬-২০১৮ হালনাগাদ: ০৯:৪৫ pm ২৪-০৬-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


নির্বাচনের আগে কটিয়াদীতে সংখ্যালঘু বিধবা নারী ও কিশোরী কন্যার ওপর পাশবিক নির্যাতনের ঘটনা এবং এ ঘটনাকে আড়াল করার চেষ্টার জন্য প্রশাসনকে জবাব দিতে হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশ গুপ্ত।

বিধবা নারী ও কিশোরী কন্যার ওপর পাশবিক নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত করতে শনিবার বিকালে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে এক প্রতিবাদ সমাবেশে তিন একথা বলেন।

অ্যাডভোকেট রানা দাশ গুপ্ত বলেন, শুধু এজাহার নয়, হাসপাতালে যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনে দেয়া ওই নির্যাতিতা নারী যে বক্তব্য দিয়েছে, তাতে মনে হয়েছে এটি জামিনযোগ্য অপরাধের মামলা নয়। তারপরও এজাহারটি জামিনযোগ্য অপরাধের আওতায় নেয়া হলো কেন? আমরা এর তদন্ত চাই। ধর্ষণ করলেই যে, শুধু নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হবে তা নয়। কোনো নারীর কোনো অঙ্গে কোনোভাবে কোনো বস্তু দিয়েও যদি স্পর্শ করা হয়, সেটিও নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের আওতায় পড়বে। আমাদের কাছে মনে হয়েছে, কোথাও একটা কিন্তু আছে।

তিনি বলেন, একজন আইনজীবী হিসেবে বলতে চাই, আমি এজাহারটি পড়েছি, আমি মেয়েটিকে হাসপাতালে নেয়ার পর তার করুণ আর্তনাদ ও আহাজারি যমুনা টেলিভিশনে শুনেছি। এটা দেখে চোখ দিয়ে পানি পড়েছে।

তিনি প্রশ্ন রাখেন, আসামি গ্রেফতার হওয়ার পরের দিন কেন জামিনে পেল? এর জবাব আজকে সবাইকে দিতে হবে, কারণ এ অপরাধ জামিনযোগ্য অপরাধ নয়। আমরা সব ঘটনার তদন্ত চাই। একদিকে আসামি ধরা হবে, আরেক দিকে বেরোনোর পথ খোলা রাখা হবে এটি হবে না। সামনে নির্বাচন ইতিমধ্যেই মন্দির জ্বালানো শুরু হয়েছে ও সংখ্যালঘু নির্যাতন শুরু হয়ে গেছে। এসব ঘটনার জন্য প্রশাসনকে জবাব দিতে হবে।

সংগঠনের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য্য বলেন, এ রকম দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা আমার জীবনে কম দেখেছি। বাবা-চাচা ও সন্তান মিলে একটা দুষ্কর্ম করবে, অমানবিক আচরণ করবে, মা ও কন্যাকে একসঙ্গে পাশবিক নির্যাতন করবে, ওই পাক বাহিনীর অনুচররা কোথায় ছিল এত দিন? আমার মনে হয় তারা কোনো দলে ও প্রশাসনে ঘাপটি মেরে বসে আছে।

কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার বনগ্রামের বিধবা নারী ও কিশোরী কন্যার ওপর পাশবিক নির্যাতনের ঘটনা যুগান্তর ও যমুনা টিভিতে প্রচারের পর বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশ গুপ্ত, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য্য এবং বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট পূরবী মজুমদার ও মনিন্দ্রনাথের নেতৃত্বে একটি বিশেষ দল শনিবার বিকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন। এসে তারা এ প্রতিবাদ সমাবেশে মিলিত হন।

সমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতারা পাশবিক নির্যাতনের ঘটনা আড়াল করতে মারামারির মামলা নেয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং এ ঘটনায় প্রশাসনকে জবাব দিতে হবে বলেও হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন নেতারা। এর আগে এ ঘটনার প্রতিবাদে এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল এবং জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে জেলা মহিলা পরিষদের নেতৃত্বে বিভিন্ন সংগঠনের নারীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এছাড়া সংবাদ সম্মেলন করে জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ।

উল্লেখ্য, আশ্রয়দাতা সেজে কটিয়াদি উপজেলার বনগ্রামে বাড়িতে আটকে রেখে পাল সম্প্রদায়ের বিধবা নারী ও তার কিশোরী কন্যাকে ধনাঢ্য ও প্রভাবশালী পরিবারের কর্তা ব্যবসায়ী ধনু মিয়া ও তার ভাই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছেলু মিয়া ওই বিধবা গৃহপরিচারিকার ওপর পাশবিক নির্যাতন করে। এছাড়া ধনু মিয়ার ছেলে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন মিয়া ওই বিধবার কিশোরী কন্যার ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। খবর পেয়ে ১৫ জুন শুক্রবার রাত ২টার দিকে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। 

বিডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71