শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮
শুক্রবার, ২রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
নড়াইলে নির্যাতিত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সাথে পুলিশের মতবিনিময় সভা
প্রকাশ: ০৮:০২ pm ০১-০৬-২০১৮ হালনাগাদ: ০৮:০৪ pm ০১-০৬-২০১৮
 
নড়াইল প্রতিনিধি:
 
 
 
 


নড়াইলে নির্যাতিত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জবর দখলকৃত জমি পুনঃরুদ্ধারে সহায়তা করার আশ্বাস দিয়েছেন নড়াইলের পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন পিপিএম। সেই সাথে কুখ্যাত ভূমিদস্যুদের এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকার জন্য কঠোর হুঁশিয়ারি প্রদান করেন। 

তিনি বলেন, যতদিন আমি নড়াইল জেলায় আছি ততদিন সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের জানমালের নিরাপত্তার দায়িত্ব নিয়েছি আমি। নির্যাতিত সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের সাথে মতবিনিময় সভা চলাকালে তিনি এ প্রতিশ্রুতি দেন। 

নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া পাঠাগারে এ মতবিনিময় সভা হয়। সভায় বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, মুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারী, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বিপুল কুমার সিকদার, আ’লীগ নেতা দীপক বিশ্বাস, মিটুল কুন্ডু, ব্যবসায়ী দীপক রায় প্রমুখ। গণমাধ্যমকর্মীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়, সাধারণ সম্পাদক মোঃ হিমেল মোল্যা, ক্লাবটির সকল সদস্যবৃন্দসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। 

বৃহস্পতিবার রাত ৯ টার দিকে নড়াইলের মুলিয়া ইউনিয়ন এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতন ও ভূমিদস্যুতা নিয়ে অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় সভায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে আশ্বস্ত করে পুলিশ সুপারের দেয়া বক্তব্যে উপস্থিত হিন্দুরা খুশি হলেও তাদের আতঙ্ক এখনও পর্যন্ত কাটেনি বলে জানান এলাকার হিন্দুরা। 

মতবিনিময় সভায় পুলিশ সুপারের সামনে দেয়া বক্তব্যে আ’লীগ নেতা দীপক বিশ্বাস অভিযোগ করে বলেন, কয়েক বছর ধরে মুলিয়া ইউনিয়নের হিন্দুদের উপর নির্যাতন করছে তথাকথিত ভূমি ব্যবসায়ীরা। ভূমি ব্যবসার নামে তারা ভূমি সন্ত্রাস করছে। কৌশলে ও জোর করে হিন্দুদের জায়গা জমি গ্রাস করছে। জমি দিতে না চাইলে বা কোন কথা বলতে গেলেই হিন্দুদের নির্যাতন করা হচ্ছে। ভূমিদস্যুরা নিজের জমির সাথে অন্যের জমি জড়িয়ে বড় বড় গভীর গর্ত খুড়ছে। এতে অন্যের জমি ভেঙ্গে গর্তের মধ্যে তথা ভূমিদস্যুর জমির মধ্যে চলে যাচ্ছে। আবার মাটি কেটে অন্যের জমি জড়িয়ে পাড়া বাঁধা হচ্ছে। জমির মালিক কিছু বলতে গেলে ভয় ভীতি দিয়ে তার নিকট জমি বিক্রির জন্য চাপ দিচ্ছে। ভূমিদস্যুরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দুর্বল কাগজপত্র দেখে দেখে কম দামে জমি কিনছে। নাম মাত্রমূল্যে জমি কিনেই সে জমির মাটি বিক্রি করে দিচ্ছে। গভীর করে মাটি কেটে ট্রাক ট্রাক মাটি ইট ভাটায় বিক্রি করছে। যে দামে জমি কিনছে তার চেয়ে বেশি দামের মাটি বিক্রি করে দিচ্ছে। অন্যের জমির কিছু অংশ জড়িয়ে গভীর করে মাটি কাটা হচ্ছে এস্কভেটার দিয়ে। জমির মালিক এসে কিছু বলতে গেলে প্রথমে ভদ্র ও নমনীয় ব্যবহার করে বলা হচ্ছে সরি আর এ রকম হবে না। মালিক চলে গেলে আবারও কাটা হচ্ছে। পুনরায় মালিক এসে কিছু বলতে গেলে ভাড়াটে মাদকাসক্ত সন্ত্রাসীদের দিয়ে অপমান অপদস্থ করা হচ্ছে। কাউকে কাউকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে। রাতে বাড়িতে গিয়ে হুমকি দিচ্ছে। 

বক্তারা আরোও বলেন, ২৬ মে নড়াইল শহরের কুড়িগ্রামের ভূমিদস্যু রবিউল ইসলাম রবি মুলিয়ার পানতিতা মৌজার একটি জমি একই ভাবে মাটি কেটে জবর দখলের চেষ্টা করে। জমির মালিক মুলিয়ার নারায়ন কুমার মাষ্টারের ছেলে কল্যাণ বিশ্বাস লালু কুমার বাঁধা দেয়। তার সাথে গিয়ে এলাকার ব্যবসায়ী দীপক রায় এ ঘটনার প্রতিবাদ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ভূমি সন্ত্রাসী রবি’র ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা মুলিয়া বাজারে লালু ও দীপক’র উপর হামলা করে। এ সময় স্থানীয়দের সাথে ভূমি সন্ত্রাসীদের মুলিয়া বাজারে মারামারি হয়। সন্ত্রাসীদের হাতের লাঠি নিয়ে দেখে দেখে ধুতিপরা হিন্দুদের মারপিট করেন। ভুক্তভোগি বক্তারা পুলিশ সুপারকে সরেজমিন ভূমিদস্যুদের গর্তকেটে জমি দখলের পরিস্থিতি দেখার অনুরোধও জানান। 

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, মতবিনিময় সভায় দু’জন কুখ্যাত ভূমিদস্যু উপস্থিত ছিলেন। যারা রবিউলের থেকে অনেক বেশি জমি জবর দখল করে বসে আছেন। তারা সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে মতবিনিময় সভায় উপস্থিত থাকায় তাদের ব্যাপারে কেউ মুখ খুলতে চায়নি।


বিডি/ইউআর

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71