শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
শনিবার, ১১ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
পাকিস্তানকে উড়িয়ে সেমিতে অস্ট্রেলিয়া
প্রকাশ: ০৮:৪৫ am ২০-০৩-২০১৫ হালনাগাদ: ০৮:৪৫ am ২০-০৩-২০১৫
 
 
 


জস হ্যাজেলউডের দারুণ বোলিংয়ে ছোট লক্ষ্য পেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। নাটকীয়তার কোনো সুযোগ রাখেননি স্টিভেন স্মিথ, শেন ওয়াটসন, গ্লেন ম্যাক্সওয়েলরা। পাকিস্তানকে উড়িয়ে ফেভারিটের মতোই জিতে সেমি-ফাইনালে পৌছেছে অস্ট্রেলিয়া।
শুক্রবার অ্যাডিলেইড ওভালে একপেশে কোয়ার্টার-ফাইনালে পাকিস্তানকে ৬ উইকেটে হারায় অস্ট্রেলিয়া।

আট জন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কে পৌঁছালেও সংগ্রহ খুব একটা বড় হয়নি পাকিস্তানের। থিতু হয়ে ব্যাটসম্যানরা উইকেট ছুঁড়ে আসায় লড়াইয়ের পুঁজি পায়নি দলটি। ব্যাটিং ব্যর্থতায় এক বল বাকি থাকতে ২১৩ রানে অলআউট হয়ে যায় তারা।  

ছোট পুঁজি নিয়েও লড়াইয়ের চেষ্টা করেছিলেন পাকিস্তানের বোলাররা। কিন্তু কয়েকটি সুযোগ হাতছাড়া করায় বড় ব্যবধানেই হারে মিসবাহ-উল-হকের দল। স্মিথ ও ওয়াটসনের অর্ধশতকে ৩৩ ওভার ৫ বলে ৪ উইকেটে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া।

আগামী বৃহস্পতিবার সেমি-ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে খেলবে অস্ট্রেলিয়া।

২১৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে অস্ট্রেলিয়ার শুরুটা ভালো হয়নি। ৫৯ রানে তিন উইকেট হারিয়ে অস্বস্তিতে পড়ে তারা।

তৃতীয় ওভারেই অ্যারন ফিঞ্চকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন সোহেল খান। পরপর দুই ওভারে ডেভিড ওয়ার্নার ও মাইকেল ক্লার্ককে ফিরিয়ে দেন ওয়াহাব রিয়াজ।

চতুর্থ উইকেটে স্মিথের সঙ্গে ৮৯ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেন ওয়াটসন। এহসান আদিলের বলে স্মিথ এলবিডব্লিউ হলে ভাঙে ১৬ ওভার স্থায়ী জুটি। ৬৫ রান করা স্মিথের ৬৯ বলের ইনিংসটি গড়া ৭টি চারে।

একবার করে জীবন পাওয়া ওয়াটসন ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল বাকি কাজটুকু সহজেই সারেন। অবিচ্ছিন্ন পঞ্চম উইকেটে ৬৮ রানের জুটি গড়েন এই দুই জনে। ওয়াটসন অপরাজিত থাকেন ৬৪ রানে। তার ৬৬ বলের ইনিংসটি ৭টি চার ও ১টি ছক্কায় সাজানো।

নেমেই ঝড় তোলা ম্যাক্সওয়েল অপরাজিত থাকেন ৪৪ রানে। তার ২৯ বলের আক্রমণাত্মক ইনিংসটি ৫টি চার ও ২টি ছক্কা সমৃদ্ধ।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ২৪ রানে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের বিদায়ে শুরুতেই চাপে পড়ে পাকিস্তান। পঞ্চম ওভারে মিচেল স্ট্যার্কের বলে স্লিপে ওয়াটসনের দারুণ ক্যাচে পরিণত হয়ে বিদায় নেন আগের ম্যাচে শতক করা সরফরাজ আহমেদ।

পরের ওভার অন্য উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান আহমেদ শেহজাদকে বিদায় করেন ম্যাচ সেরা হ্যাজেলউড। প্যাট কামিন্সের বদলে দলে ফেরা এই পেসার ৩৫ রানে ৪ উইকেট নেন।

তৃতীয় উইকেটে হারিস সোহেল ও মিসবাহর দৃঢ়তায় প্রতিরোধ গড়ে পাকিস্তান। এক সময়ে পাকিস্তানের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ৯৭ রান। বড় স্কোরের সম্ভাবনা জাগালেও শেষ পর্যন্ত কোনোমতে দুইশ’ পার হয় তাদের সংগ্রহ।

গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বলে ছক্কা হাকাতে গিয়ে মিসবাহর বিদায়ে ভাঙে ৭৩ রানের জুটি। অধিনায়কের বিদায়ের পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় পাকিস্তান। দলটি শেষ ৮ উইকেট হারায় ১১৬ রানে।

সোহেল, শোয়েব মাকসুদ, শহিদ আফ্রিদি, উমর আকমল আউট হন উইকেটে থিতু হয়ে। মিসবাহ, আকমল ও আফ্রিদি ফিরে যান ডিপ মিডউইকেটে ক্যাচ দিয়ে। তিনটি ক্যাচই তালুবন্দি করেন ফিঞ্চ।

৬ উইকেটে ১৮৮ রান করা পাকিস্তান আড়াইশর কাছাকাছি যেতে তাকিয়ে ছিল মাকসুদ, ওয়াহাব রিয়াজের দিকে। হতাশ করেছেন দুই জনই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান: ৪৯.৫ ওভারে ২১৩ (শেহজাদ ৫, সরফরাজ ১০, হারিস ৪১, মিসবাহ ৩৪, আকমল ২০, মাকসুদ ২৯, আফ্রিদি ২৩, ওয়াহাব ১৬, আদিল ১৫, সোহেল ৪, রাহাত ৬*; হ্যাজেলউড ৪/৩৫, স্ট্যার্ক ২/৪০, ম্যাক্সওয়েল ২/৪৩, ফকনার ১/৩১, জনসন ১/৪২)

অস্ট্রেলিয়া: ৩৩.৫ ওভারে ২১৬/৪ (ওয়ার্নার ২৪, ফিঞ্চ ২, স্মিথ ৬৫, ক্লার্ক ৮, ওয়াটসন ৬৪*, ম্যাক্সওয়েল ৪৪*, ওয়াহাব ২/৫৪, আদিল ১/৩১, সোহেল ১/৫৭)

ম্যাচ সেরা: জস হ্যাজেলউড।

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71