মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮
মঙ্গলবার, ১০ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
পিএসজিকে হারাল রিয়াল
প্রকাশ: ০৯:২৯ am ১৫-০২-২০১৮ হালনাগাদ: ০৯:২৯ am ১৫-০২-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


স্প্যানিশ কাপ থেকে বিদায় নেওয়া আর লা লিগায় শিরোপা লড়াইয়ে অনেক পিছিয়ে পড়া রিয়াল মাদ্রিদ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সেই চেনা রূপেই। ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর জোড়া গোলে শেষ ষোলোর প্রথম লেগে পিএসজিকে হারিয়েছে জিনেদিন জিদানের দল।

বুধবার রাতে সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে ৩-১ গোলের জয়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের অন্য গোলটি করেন মার্সেলো। আদ্রিওঁ রাবিওর গোলে ম্যাচে প্রথম এগিয়ে গিয়েছিল পিএসজি।

শুরু থেকে চাপ সৃষ্টি করে খেলা রিয়াল মাদ্রিদই ম্যাচে প্রথম সুযোগটা পায়। ডি-বক্সের বাইরে থেকে টনি ক্রুসের শট ডানে ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক আলফুঁস আরিওলা।

২৬তম মিনিটে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে রোনালদোর ফ্রি-কিক ক্রসবারের উপর দিয়ে যায়। দুই মিনিট পর গ্রুপ পর্বের ছয় ম্যাচে নয় গোল করা এই ফরোয়ার্ডকে বঞ্চিত করেন গোলরক্ষক। বাঁ দিক-থেকে মার্সেলোর বাড়ানো বল ধরে ডি-বক্সের ভেতর থেকে জোরালো শট নিয়েছিলেন রোনালদো। বল প্রতিহত হয় এগিয়ে আসা আরিওলার মুখে লেগে।

 ৩৩তম মিনিটে খেলার ধারার বিপরীতে এগিয়ে যায় পিএসজি। বাঁ দিক থেকে ফরাসি ফরোয়ার্ড কিলিয়ান এমবাপের ক্রসে ব্যাকহিল করেছিলেন নেইমার। বল পেয়ে ডান পায়ের শটে জালে পাঠান ফরাসি মিডফিল্ডার আদ্রিওঁ রাবিও।
পাঁচ মিনিট পর ব্যবধান বাড়ানোর দারুণ সুযোগ পেয়েছিল অতিথিরা। বল নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়া ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নেইমারের পাস পেয়ে শট নিয়েছিলেন এদিনসন কাভানি, কোনোমতে পা বাড়িয়ে ঠেকান কাসেমিরো।

 ৪৩তম মিনিটে বেনজেমার জোড়ালো শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান আরিওলা। তবে একটু পরই রোনালদোর পেনাল্টি ঠেকাতে পারেননি। আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার জিওভানি লো সেলসো ডি-বক্সে জার্মান মিডফিল্ডার ক্রুসকে কাঁধ ধরে ঠেকানোর চেষ্টা করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। ৪৫তম মিনিটে নেওয়া স্পট কিকে ঠিক দিকেই ঝাঁপিয়েছিলেন আরিওলা। তবে বল ফেরাতে পারেননি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে শততম গোলটি পেয়ে যান রোনালদো।
আর কোনো খেলোয়াড়ই এক দলের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শততম গোলের মাইলফলক ছুঁতে পারেননি। আর এ নিয়ে এবারের মৌসুমে টুর্নামেন্টের সাতটি ম্যাচেই গোল পেলেন রোনালদো।

বিরতির পর চতুর্থ মিনিটে রিয়ালের ত্রাণকর্তা কেইলর নাভাস। পাল্টা আক্রমণে নেইমারের বাড়ানো বল ধরে এমবাপের জোরাল নিচু শট শুয়ে পড়ে ঠেকান কোস্টা রিকার এই গোলরক্ষক।

৭৩তম মিনিটে রিয়ালের রক্ষাকর্তা অধিনায়ক সের্হিও রামোস। কর্নার থেকে ডি-বক্সের জটলায় আসা বলে কিমপেমবের জোরালো শট পা বাড়িয়ে ঠেকান স্প্যানিশ এই ডিফেন্ডার। একটু পর স্প্যানিশ ডিফেন্ডার ইউরি বেরচিচের ক্রসে পা লাগাতে পারেননি এমবাপে ও দানি আলভেসের কেউই।

 অপরপ্রান্তে ৮৩তম মিনিটে বুদ্ধিদীপ্ত ফিনিশিংয়ে রিয়ালকে এগিয়ে নেন রোনালদো। বদলি হিসেবে নামা মার্কো আসেনসিওর ক্রস গোলরক্ষক আরিওলা ফিরিয়েছিলেন, কাছে থাকা পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড হাঁটু দিয়ে বল জালে পাঠিয়ে দেন।
এবারের আসরে রোনালদোর গোল হলো সর্বোচ্চ ১১টি। ইউরোপের সেরা ক্লাবগুলোর এই প্রতিযোগিতায় সব মিলিয়ে সর্বোচ্চ ১১৬টি।

 তিন মিনিট পরই জয় নিশ্চিত হয় মার্সেলোর গোলে। বাঁয়ে আসেনসিওকে বল পাঠিয়েছিলেন, ফেরত পেয়ে জোরালো শটে বাঁ পোস্ট ঘেষে বল জালে পাঠান পুরো ম্যাচে দুর্দান্ত খেলা ব্রাজিলিয়ান এই ডিফেন্ডার।
চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রথম শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে কাড়ি কাড়ি ইউরো খরচ করে দল গড়া পিএসজির রিয়ালের মাঠে সান্ত্বনা হয়ে রইল কেবল মূল্যবান অ্যাওয়ে গোলটি। কোয়ার্টার-ফাইনালে উঠতে হলে আগামী ৬ মার্চ প্যারিসে নিজেদের মাঠে ফিরতি লেগে কমপক্ষে ২-০ গোলে জিততে হবে উনাই এমেরির দলের।

দিনের অপর ম্যাচে সাদিও মানের হ্যাটট্রিকে পোর্তোকে তাদের মাঠেই ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার-ফাইনাল প্রায় নিশ্চিত করে ফেলেছে লিভারপুল।

প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71