শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮
শুক্রবার, ২রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
পিরোজপুরে আমড়ার বাম্পার ফলন
প্রকাশ: ০৩:৪৮ pm ১৩-০৯-২০১৫ হালনাগাদ: ০৩:৪৮ pm ১৩-০৯-২০১৫
 
 
 


পিরোজপুর প্রতিনিধি: দেশের দক্ষিণাঞ্চলের উপকূলীয় জেলা পিরোজপুরে এবারো বর্ষাকালীন মৌসুমী ফল আমড়ার বাম্পার ফলন হয়েছে। আমড়ার বাজার দর চড়া থাকায় এ অর্থকরী ফল বিক্রি করে বাগান মালিক, ব্যাপারী, পাইকার, আড়ৎদার, খুচরা বিক্রেতাসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই যথেষ্ট লাভবান হচ্ছে। এদিকে আমড়া চাষ করে কম খরচে অধিক আয়ের সুবিধা থাকায় এ জেলার অনেক গৃহস্থই এখন বাণ্যিজিকভাবে আমড়া বাগান করছে। কেউ কেউ সড়কের পাশে, পুকুর পাড়ে, বাড়ির আঙ্গিনায় দু’চারটি করে ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ আমড়ার চারা রোপণ করছে।

পিরোজপুর জেলার সাতটি উপজেলার মধ্যে নাজিরপুর, স্বরুপকাঠী এবং কাউখালীতে আমড়ার বাগান করে বাণ্যিজিকভাবে চাষাবাদ করে স্বাবলম্বী হচ্ছে বাগান মালিকরা। অন্যান্য উপজেলায়ও আমড়া চারা রোপনের প্রবণতা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৬৫০ হেক্টরের বাগানে এ বছর এই মৌসুমে ফলটির ফলন হয়েছে ৭২০০ মেট্রিক টন। এই আমড়া স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে বাগান মালিকরা প্রায় ২০ কোটি টাকা উপার্জন করবে।

জেলা কৃষি অফিসের সাথে সংযুক্ত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অরুন রায় জানিয়েছেন, লাভজনক এই মৌসুমী ফল আমড়া গাছে রোগ-বালাই খুবই কম। কিছু কিছু গাছে বৈশাখের শুরুতে নতুন গজানো পাতায় পোঁকার আক্রমণ হয়। কৃষি বিভাগের মাঠ কর্মীরা ঘুরে ঘুরে বাগানে গিয়ে চাষিদের বিভিন্ন ধরণের কীটনাশক ছিটানোর পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

কাউখালী এবং স্বরূপকাঠীতে গড়ে উঠেছে শতাধিক আমড়ার আড়ৎ। আমড়ার বেপারীরা শ্রাবণ ও ভাদ্র মাসে বাগানে গিয়ে বাগান মালিকদের কাছ থেকে ৭৫০ থেকে ৮০০টি আমড়া ভরা বস্তা গড়ে ১৬০০ টাকায় ক্রয় করে থাকে। এই আমড়া স্বরূপকাঠী ও কাউখালীর আড়তে এনে ২২০০ থেকে ২৫০০ টাকায় বিক্রিয় করা হয়। আড়ৎ মালিকেরা এই আমড়া ঢাকাগামী দ্বিতল লঞ্চে করে চাঁদপুর এবং ঢাকা মোকামে পাঠায়। সেখানে ২৯০০ থেকে ৩২০০ টাকায় প্রতি বস্তা আমড়া বিক্রি হয়ে থাকে।

স্বরূপকাঠীর আড়ৎদার মো. মোস্তফা শেখ জানালেন ভ্যান ভাড়া, লঞ্চ ঘাটের টোল, লঞ্চ ভাড়া এবং অন্যান্য খরচসহ ঢাকা ও চাঁদপুর মোকামে এক ব¯Íা আমড়া প্রেরণে ২৫০ থেকে ২৭৫ টাকা খরচ হয়ে থাকে। এরপরও তাদের প্রতি বস্তা আমড়ায় ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত লাভ হয়।

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন শহরে ফেরিওয়ালারা ঘুরে ঘুরে আমড়ার ছাল ফেলে বিট লবণ দিয়ে প্রতিটি আমড়া ৫ টাকা করে বিক্রি করে থাকে। শহরের অনেকেই চাটনী খেতে কেজি বা কুড়ি হিসেবে ক্রয় করে থাকে। ইদানিং বিভিন্ন ফাস্ট ফুডের দোকানে আমড়ার মোরব্বার কদর বাড়ছে। আকারে বড়, পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু পিরোজপুরের আমড়া মুখোরোচক বিধায় বিক্রি হয় দেদারছে। পিরোজপুরের মাটি আমড়া চাষের জন্য খুবই উপযোগী বলে জানালেন কৃষি কর্মকর্তা। চার থেকে পাঁচ বছরে আমড়ার ফলন শুরু হয়। তবে এই গাছ দ্রæত বর্ধনশীল এবং নরম বিধায় কালবৈশাখী, টর্নেডো, সাইক্লোনসহ একটু জোরে বাতাস হলে ভেঙ্গে বা গাছের গোড়া থেকে উপরে পড়ে যায়। এ ছাড়া নিম্নচাপের কারণে, অতি বর্ষণে পিরোজপুর জেলার নিম্নাঞ্চল তলিয়ে চার পাঁচ দিন আমড়া গাছের নিচে পানি জমে থাকলে শিকর পঁচে গিয়ে গাছ মরে যাওয়ার আশংকা সৃষ্টি হয়।

নাজিরপুরের আমড়া বাগানের মালিক কুমুদ বড়াল আশাবাদ ব্যক্ত করে বললেন, যে হারে আমড়া বাগানের ঝোঁক দেখা যাচ্ছে তাতে অনেকেই আগামীতে আমড়া বিক্রি করে স্বাবলম্বী হবেন এবং পিরোজপুরের এই সুস্বাদু আমড়া অচিরেই দেশ বিদেশে ছড়িয়ে পড়বে।

এইবেলা ডটকম/এইচ আর
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71