শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
শুক্রবার, ১০ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
পুলিশকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলেন এমপি
প্রকাশ: ১১:৩৪ pm ২৩-০৩-২০১৭ হালনাগাদ: ১১:৩৪ pm ২৩-০৩-২০১৭
 
 
 


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাজ্যের ফরেন অফিস মিনিস্টার টবিয়াস এলউড এখন সবার চোখে ‘হিরো’।

নিজের নিরাপত্তার কথা না ভেবে পার্লামেন্টের বাইরে সন্ত্রাসী হামলায় আহত পুলিশ কর্মকর্তা কিথ পামারকে সহায়তা করতে এগিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসাও দিয়েছেন।

হামলাকারীর ছুরিকাঘাতে আহত পুলিশ কর্মকর্তা পামারকে নতুন জীবন দিয়েছেন কনজারভেটিভ পার্টির পার্লামেন্ট সদস্য ও সাবেক সেনা কর্মকর্তা এলউড। তাঁর মুখে মুখ লাগিয়ে তিনি বাতাস দেন। ক্ষতস্থান হাত দিয়ে চেপে ধরেন।

ওয়েস্টমিনস্টারের নিউ প্যালেস ইয়ার্ডের ওই সন্ত্রাসী হামলায় একজন পুলিশ কর্মকর্তাসহ পাঁচজন নিহত হন। আহত হন ৪০ জন। এর মধ্যে তিনজন পুলিশ সদস্য।

প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিরা বলেছেন, একজন পুলিশ সদস্যের ওপর হামলার পর হামলাকারী পার্লামেন্ট ভবনের কাছে আরেকজন পুলিশ কর্মকর্তার দিকে এগিয়ে গিয়েছিলেন। প্যারামেডিকরা তাঁর জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করেন। আহত ওই পুলিশ কর্মকর্তা পার্লামেন্টের সামনে পড়ে যান।

এলউডের দীর্ঘদিনের বন্ধু কনজারভেটিভ পার্টির আরেক পার্লামেন্ট সদস্য অ্যাডাম আফরিইয়ে।তিনি বলেন, পুলিশ সবাইকে নিরাপদ জায়গায় সরে যেতে নির্দেশ দিচ্ছিল। এর মধ্যেই তিনি এলউডকে আহত পুলিশ কর্মকর্তাকে সহায়তা করার জন্য এগিয়ে যেতে দেখেন।

ছবিতে দেখা গেছে, এলউড আহত ওই পুলিশ কর্মকর্তার ক্ষতস্থান হাত দিয়ে চেপে ধরে আছেন। তাঁর রক্ত লেগে আছে এলউডের হাত ও মুখে।

সহকর্মীরা এলউডের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। কনজারভেটিভ পার্টির পার্লামেন্ট সদস্য বেন হাউলেট এক টুইটে বলেন, আহত পুলিশ কর্মকর্তাকে বাঁচাতে যেভাবে টবিয়াস এলউড এগিয়ে গিয়েছেন, তাতে বোঝা যায়, তিনি সত্যিই নায়ক।

লিবারেল ডেমোক্র্যাট নেতা টিম ফ্যারন বলেন, এলউড পার্লামেন্ট সদস্যদের জন্য সুনাম বয়ে এনেছেন। ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে বাঁচাতে সাধ্যমতো সবকিছু তিনি করেছেন।

ফরেন অফিস মিনস্টার এলউড মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা ও সন্ত্রাসী তালিকাভুক্ত দেশগুলোতে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০২ সালে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন এলউডের ভাই।

লন্ডনের স্থানীয় সময় গতকাল বুধবার দুপুরে ওই হামলা হয়। এ সময় পার্লামেন্টে যৌথ অধিবেশন চলছিল। প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে সংসদ ভবনে ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীকে দ্রুত সংসদ ভবন থেকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়।

এমপিদের নিরাপত্তায় পুরো সংসদ ভবন এলাকা ঘিরে ফেলা হয়। কয়েক ঘণ্টার জন্য অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে পার্লামেন্ট ভবন।টেমস নদীর ওপর অবস্থিত ওয়েস্টমিনস্টার ব্রিজের দক্ষিণ প্রান্ত এসে লেগেছে পার্লামেন্ট এলাকায়।

এই ওয়েস্টমিনস্টার সেতুর ওপর দিয়ে পার্লামেন্টের দিকে আসার পথে সজোরে গাড়ি চালিয়ে পথচারীদের ওপর উঠিয়ে দেন এক হামলাকারী। এরপর গাড়িটি পার্লামেন্টের নিরাপত্তাবেষ্টনীতে গিয়ে আঘাত হানে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, হামলাকারী একটি ছুরি নিয়ে পার্লামেন্ট ভবনে প্রবেশের চেষ্টা করেন। বাধা দিলে এক পুলিশ সদস্যের ওপর ছুরিকাঘাত করেন হামলাকারী। তখন হামলাকারীকে গুলি করে পুলিশ।

সুত্র : বিবিসি

এইবেলাডটকম/এফএআর

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71