বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
পুলিশ সদস্য কর্তৃক চৌগাছার কলেজছাত্রী ধর্ষণ
প্রকাশ: ০২:৩২ am ২১-০৩-২০১৫ হালনাগাদ: ০২:৩২ am ২১-০৩-২০১৫
 
 
 


শাহানুর আলম উজ্জল, চৌগাছা (যশোর) থেকে : যশোরের চৌগাছার এক কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে পুলিশ সদস্য কর্তৃক ধর্ষণের ঘটনায় জনমনে দিন দিন ক্ষোভ বেড়েই চলেছে। একই সাথে ভুক্তভোগী পরিবারে সঠিক বিচার নিয়ে নেমে এসেছে চরম হতাশা। অনেকে বলছেন এর সুষ্ঠু বিচার না হলে পুলিশ অপরাধমূলক কাজে আরো উৎসাহিত হবে।
সূত্র জানায়, বহুল আলোচিত কলেজ ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে জনগণের মাঝে চরম ক্ষোভ দেখা দেয়। এই ক্ষোভ দিন দিন আরো বাড়তে থাকে। মানুষের মুখে একটাই কথা-জনগণের বন্ধু হচ্ছে পুলিশ। কোন সমস্যায় পড়লে জনগণ নিরাপত্তার জন্য পুলিশের নিকট ছুটে যায়। দেশের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা একজন পুলিশ সদস্য যে ন্যাক্কারজনক কাজ করল তাতে গোটা পুলিশ বাহিনীর অবস্থান ভূলুণ্ঠিত হলো।
সূত্র জানায় চৌগাছা বাজার সন্নিকটে বিশ্বাস পাড়া মহল্লার এক ব্যক্তির মেয়ে যশোর এমএম কলেজের ছাত্রী। তার সাথে প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে ওঠে ঝিনাইদহ জেলার হরিণাকুন্ড থানার কর্মরত পুলিশ সদস্য আপনের। দু’জনের মধ্যে মোবাইল ফোনে প্রায়ই কথা হতো। ভাল মানুষের মুখোশ পরা পুলিশ সদস্য আপন সময়ে অসময়ে ছুটি নিয়ে আসে যশোরে মেয়েটির সাথে দেখা করে কথা বলে আবার ফিরে যায় কর্মস্থলে। ৫ মার্চ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বারবাজার নামক স্থানে নিয়ে যায় ময়েটিকে। সেখান থেকে নেয়া হয় খুলনাতে। মেয়েটির পরিবার ওই রাতে তার খোঁজ শুরু করে। কিন্তু ফোন বন্ধ পাওয়ায় তাদের সন্দেহ হয়। এরপর থেকে তারা সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুজি করে কোন সন্ধান না পাওয়ায় তার পিতা ঘটনার পাঁচ দিন পর ১০ মার্চ চৌগাছা থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। মামলার পর পুলিশ মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে মেয়েটির অবস্থান নিশ্চিত করে। নিশ্চিত হওয়ার পর ওই রাতেই পুলিশ খুলনার দিকে রওনা হয়। এক পর্যায়ে খুলনা দিঘলিয়া এলাকার একটি বাজার থেকে তাকে তারা উদ্ধার করে। উদ্ধারের পর ঘটনা শুনে সেই রাতেই উদ্ধারকারী পুলিশের ওই টিম ঝিনাইদহ জেলার হরিণাকুন্ডু থানায় যায় এবং অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যকে আটক করে।
সূত্র জানায়, এ ঘটনায় ভুক্তভোগি পরিবারের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। ওই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে সঠিক বিচার হবে কিনা তা ভেবে দিশেহারা পড়েছেন ভুক্তভোগি পরিবার। চৌগাছাবাসিসহ ভুক্তভোগি পরিবারটি সুষ্ঠু বিচারের জন্য প্রশাসনের আশু দৃষ্টি কামনা করেছেন।
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71