শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮
শুক্রবার, ২রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
পূজা মন্ডপে নারীদের উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় হামলা ও ভাংচুর, আহত ৭ 
প্রকাশ: ১১:৪৫ am ০৮-০৩-২০১৮ হালনাগাদ: ১১:৪৫ am ০৮-০৩-২০১৮
 
মাদারিপুর প্রতিনিধি
 
 
 
 


মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার পাইকপাড়া ইউনিয়নের দিঘলিয়া-কাশিমপুর গ্রামে শুক্রবার রাতে পুলিন মন্ডলের বাড়ীতে কালী পূঁজার অনুষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুর করেছে একদল দুর্বৃত্ত। 

ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, পুলিন মন্ডলের বাড়ীতে প্রায় ৫০ বছর পূর্বে থেকে কালী পূঁজা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। এবছরও তারা যথারীতি পূঁজার আয়োজন করেছিল। শুক্রবার ছিল পুজার নির্ধারিত দিন। পুজা মন্ডবে পাশ্ববর্তী বাসুদেবপুর গ্রামের কিছু বখাটেরা এসে হিন্দু মেয়েদের উত্ত্যক্ত করতে থাকে। এসব কর্মকান্ড দেখে সত্যবতী গ্রামের কিছু লোক তাদের নিষেধ করলে উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়।

পরে বাসুদেবপুর গ্রামের হুমায়ুন মুন্সীর ছেলে আরিফ ও নসু। মাতুব্বরের ছেলে কাদেরের নেতৃত্বে কতিপয় সন্ত্রাসী রাত ৯ টার দিকে পুলিন মন্ডলের বাড়ীতে হামলা ও নারকীয় তান্ডব চালায়। সন্ত্রাসীরা এ সময় পুলিন মন্ডলের বৃদ্ধা মা শুশীলা মন্ডলকে(৮৫) বেদম মারপিট করে। বর্তমানে তিনি রাজৈর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এছাড়াও পুলিন মন্ডল(৬৫), শংকর মন্ডল(৫০), শেফালী মন্ডল(৪৫), খুশি মন্ডল(৩৫), আশা মন্ডল(৩৫) ও বেলা মন্ডলকে(৩০) পিটিয়ে আহত করে। 

এসময় তারা মন্দিরের পূঁজার সব উপকরন নষ্ট করে ফেলে এবং বাড়ী-ঘরে ভাংচুর চালায়। তাদের কর্মকান্ড দেখে পূজা মন্ডবের সমস্ত লোকজন আতংকিত হয়ে পরে।

খবর পেয়ে রাজৈর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শান্তি দাস, পাইকপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান সাহাদাৎ হোসেন ও রাজৈর থানা পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। রাত ২ টার দিকে রাজৈর থানা পুলিশের সহায়তায় কোনরকমে পূঁজা অনুষ্ঠিত হয়। বর্তমানে পরিবারটি আতঙ্কের মধ্যে আছে। যারা এসব তাদের চালিয়েছে তাদের অবিভাবকরা এসে পুলিন মন্ডলের বাড়ীতে অবস্থান করে যাহাতে তারা কারও সাথে কথা বলতে না পারে। 

এ ব্যাপারে পুলিন মন্ডল জানান, আমরা এ গ্রামে ১ ঘর হিন্দু বসবাস করি। আমাদেরকে উচ্ছেদ করার জন্য পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। 

রাজৈর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শান্তি দাস জানান, খবর পেয়ে রাতেই আমি সেখানে ছুটে যাই। পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করা হয়েছে। পরিবারটির মধ্যে এখন আতঙ্ক বিরাজ করছে। 

রাজৈর থানার ইনস্পেক্টর (তদন্ত) সিরাজুল হক সরদার জানান, খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে রাতেই পূঁজা করার পরিবেশ তৈরী করা হয়েছে। তারা এখনও অভিযোগ করেনি। অভিযোগ করলে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

প্রচ
 

 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71