বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯
বৃহঃস্পতিবার, ১১ই মাঘ ১৪২৫
 
 
প্রথমবারের মত বিশ্বকাপের স্টেডিয়ামে সৌদি নারীরা
প্রকাশ: ০৩:৪৯ pm ১৫-০৬-২০১৮ হালনাগাদ: ০৩:৪৯ pm ১৫-০৬-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


ধর্মীয় রীতিনীতিতে আটকে রেখে দীর্ঘদিন যাবত নারীদের স্টেডিয়ামে যেতে বাঁধা দিয়ে রেখেছিল মুসলিম অধ্যুষিত দেশ সৌদি আরব। কিন্তু যুবরাজ সালমানের কল্যাণে যেন আশার আলো দেখতে পায় সে দেশের নারীরা।

‘ভিশন-২০৩০’এর লক্ষ্য নিয়ে নেমেই সৌদি আরবের সংস্কৃতিতে আমুল পরিবর্তন আনেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। যার একটি ছিল, স্টেডিয়ামে বসে সৌদি নারীদের খেলা দেখতে দেওয়া। তারই আলোকে, প্রথমবার বিশ্বকাপ স্টেডিয়ামে দেখা গেলো সৌদি নারীদের।

সৌদি নারীরা প্রথম স্টেডিয়ামে ম্যাচ দেখতে আসে চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে। আল আহলি ও আল বাইতানের মধ্যকার ম্যাচটি প্রথমবারের মত মাঠে বসে উপভোগ করে সৌদি নারীরা। এবার আরো বড় মঞ্চে আবির্ভাব হলো তাদের। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী দিনেই সৌদি আরবের ম্যাচে দেখা গেল সেদেশের নারীদের।

সৌদি আরবের পতাকার রঙ্গে জিন্স, স্কার্ফ ও হিজাব পরে অনেক সৌদি নারী আসেন রাশিয়া বনাম সৌদি আরবের মধ্যকার ম্যাচটি দেখতে। সঙ্গে সৌদি আরবের পতাকাও ছিল। সেখানে তারা পুরুষদের সঙ্গে বসেই খেলা উপভোগ করেন।

তেমনই একজন হলেন নাদা আলতুয়াইজরি। সৌদি আরবের নাগরিক হলেও ১২ বছর বয়স থেকে বসবাস করেন ব্রিটেনে। ছোটবেলা থেকেই ফুটবল প্রিয় নাদা স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে এসে বলেন, যদি আপনারা আমাদেরকে বড় পর্দায় দেখান তাহলে আমি বলতে পারি, আরো অনেক সৌদি নারীরা দেশকে সমর্থন দিতে রাশিয়ায় আসবে।

স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে আসা অন্যান্য সৌদি নারীরা এসেছিলেন নিজ দেশের পতাকা হাতে। অনেকে মোহাম্মদ বিন সালমানের ছবি সম্বলিত পোস্টারও নিয়ে এসেছেন। সংস্কৃতির পালা বদলে ৩২ বছর বয়সী সালমান এখন সারা সৌদিতে উজ্জ্বল এক নাম।

নাদার মত খেলা দেখতে এসেছেন সৌদি নারী রায়েল আল-মুতেইরি। মস্কোতে নিজের মা ও স্বামীর সঙ্গে এসেছেন সরকারি খরচে। ২৫ বছর বয়সী এই সরকারী কর্মকর্তা নারী বলেন, আমি অনেক দূর থেকে এসেছি জাতীয় দলকে অনুপ্রেরণা যোগাতে। সৌদি নারীদের বর্তমান অবস্থান নিয়ে আমরা গর্ব করতে পারি। এটা দেশ এবং ফুটবল দলেরও গর্বের বিষয়।

প্রাচ্যের শিকল ভেঙ্গে সৌদি নারীদের বিশ্বকাপের মঞ্চে স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে আসা অনুপ্রেরণা জোগাবে অন্য নারীদেরও। তারা প্রমাণ করলেন, সৌদি নারীরাও এখন সমঅধিকার নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে।

বিডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71