বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
প্রেমের ফাঁদে ফেলে অন্তঃস্বত্তা  হিন্দু তরুণী; দেশ ছাড়তে হুমকি দিচ্ছে এসআই
প্রকাশ: ১০:৫৬ pm ১২-০৬-২০১৭ হালনাগাদ: ১১:৪৩ am ১৩-০৬-২০১৭
 
 
 


চন্দন আচার্য:  বাংলাদেশে বসবাসরত সংখ্যালঘুদের প্রতি অত্যাচার-নির্যাতনের মাত্রা যেন দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। সংখ্যালঘু নির্যাতন যেন জাতীয় আইনে পরিনত হয়ে যাচ্ছে এদেশে।

বাংলাদেশে অবস্থানরত সংখ্যালঘুরা কি অসহায়ত্ব নিয়েই বেঁচে থাকবে আজীবন? এদের পাশে দাড়ানোর মতো, এদের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া চলমান নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবার মতো অভিভাবক কি কখন-ই হবে না?

কেন প্রতিনিয়তই অত্যাচারিত-নিপিড়িত হতে হচ্ছে তাদের, কি অপরাধের সমতুল্য শাস্তি হিসেবে প্রতিনিয়ত ধর্ষিত হচ্ছে এতো এতো মা-বোনদের? একটি দেশে সবচেয়ে উর্ব্ধে রযেছে দেশের আইন।

আর সেই আইনের লোক-ই যদি প্রনীত আইনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপকর্মে লিপ্ত হয় তখন এদেশের অসহায় সংখ্যালঘুদের সঠিক বিচার পাবার নির্ভরযোগ্য স্থান কোথায়?

লোক সমাজের অগোচরে অইন লঙ্ঘন করে বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত এমনই একজন আইন রক্ষাকারী ব্যক্তিত্ব্ খুলনার খালিশপুরে মুজগুন্নী আবাসিক এলাকার ৯ নম্বর রোডের ১০২ নম্বর বাড়ির মালিক আব্দুল আজিজের ছেলে চাকরিচ্যুত এসআই তাজউদ্দিন মানিক। সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারের এক তরুনীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে দীর্ঘদিন শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলায় বর্তমানে অন্তস্বত্তা সেই তরুনী। 

জানা জায়, এমতাবস্থায় এই তরুণীর পরিবারকে বাংলাদেশ ছেড়ে ভারতে যেতে হুমকি দিচ্ছেন চাকরিচ্যুত পুলিশের এসআই তাজউদ্দিন মানিক (৪১)।

গতকাল রোববার দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে উক্ত বিষয়টির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন হয়রানির শিকার তরুণী। সংবাদ সম্মেলনে অসহায় পরিবারটি বিশেষভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য করেছে। 

প্রতারনার শিকার পরিবারটির অভিযোগ, তাদের জীবননাশের হুমকিসহ অন্তঃস্বত্তা কন্যাকে নিয়ে ভারতে চলে যাবার জন্য ভয় দেখানো হচ্ছে। তাদের সাথে এমন হয়রানির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে না পারার অসহায়ত্ব নিয়ে উপায়ান্তর না পেয়ে আজ দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসে সাংবাদিকের সামনে মা শেফালী রানী রায় ও মেয়ে শিমা রায় তাদের অসহায়ত্বের কথা তুলে ধরেন।

এসময় তাদের জীবন রক্ষা তথা প্রতারক মানিকের শাস্তি ও হাতিয়ে নেয়া টাকা উদ্ধার করার জন্য প্রশাসনসহ প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য কামনা করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে শেফালী রানী তার লিখিত বক্তবে জানান, এক বছর আগে প্রতারক মানিক প্রেমের ফাঁদে ফেলে বরিশালের উজিরপুর তারাশিরা এলাকার শুভ রঞ্জনের মেয়ে শিমা রায়কে (২০) নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে কথিত বিয়ে করেন। এরপর শিমার পরিবার বাধ্য হয়ে মেয়ের সুখের কথা ভেবে ঘটনাটি মেনে নেয়।

সুযোগ সন্ধানী মানিক ব্যবসা বাণিজ্যের নামে শিমার পরিবারের কাছ থেকে নগদ ও স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ৭৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। এরপর শিমা অন্তঃস্বত্তা হয়ে পড়লে মানিকের সাবেক রূপ বেড়িয়ে আসতে থাকে। শুরু হয় শিমাকে তাড়ানো ও সকল টাকা পয়সা আত্মসাতের প্রক্রিয়া। প্রতারক তাজউদ্দিন মানিক এর আগেও ৩টি বিয়ে করেছেন। তার প্রথম স্ত্রী ছিলেন খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য অ্যাডঃ ডলি, দিতীয় স্ত্রী মেহেরপুরের জনৈক নাহার খাতুন এবং তৃতীয় স্ত্রী পিরোজপুর জেলার সাথী আক্তার।

তাদের সঙ্গেও একই ধরনের প্রতারণা করেছে মানিক। প্রথম স্ত্রীর দায়ের করা মামলা ও নানা অভিযোগে স্থায়ীভাবে পুলিশ থেকে চাকরিচ্যুত হয়েছিলেন তাজউদ্দিন মানিক। তবে এখন পর্যন্ত তার অপরাধ থেমে নেই। তার বিরুদ্ধে এ সকল বিষয়ে একাধিক মামলা হলেও সে আইনের ফাঁকফোকড় দিয়ে বেড়িয়ে আসে।

সংবাদ সম্মেলনে শিমা ও তার পরিবার মানিকের এমন জঘন্যতম ব্যবহারকে ধিক্কার জানিয়ে এর বিরুদ্ধে যেন বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয় সেই ব্যাপারে প্রশাসন তথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে খালিশপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমীর তৈমূর ইলী জানান, গত ১৮ মে মানিকের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা হয়েছে (নং-৩২)। এই মামলায় সে আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন।

 

এইবেলাডটকম/গোপাল

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71