সোমবার, ০১ জুন ২০২০
সোমবার, ১৮ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
সর্বশেষ
 
 
বাঁশখালীতে রেহাই পায়নি অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ, ৭৫ বছরের বৃদ্ধা মা!
প্রকাশ: ১১:৫৬ pm ১০-০৫-২০২০ হালনাগাদ: ১১:৫৬ pm ১০-০৫-২০২০
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


বাঁশখালীর গন্ডামারা ৯ নং ওয়ার্ডের অসহায় হিন্দু জেলে কালিদাসের ছেলেকে মিথ্যা মাছ চুরির অজুহাতে গত ৫ মে মঙ্গরবার সন্ধ্যায় মারধর করে জখম করে, যাহা বাড়ির পাশের মসজিদে নামাজি, মুসুল্লিদের কাছে বিচার চাইলে রাতে কালিদাসের পরিবারে আক্রমন করে!

পুরুষরা পালিয়ে প্রানে বাঁচে। কিন্তু রেহাই পায়নি অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ, ৭৫ বছরের বৃদ্ধা মা। কালিদাসের স্ত্রীকে লাটি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। কালিদাসের মা ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে লাঠি দিয়ে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেয়

ঘটনাটি ঘটেছে চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী উপজেলার গন্ডামারায়। 

ছেলের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে মারার সময় মাটিতে গড়িয়ে পড়ে সন্ত্রাসীদের কাছে প্রান ভিক্ষা করে প্রানে বাঁচে। বাড়ির ধর্মীয় আসনের মুর্তি, ছবি, ঘট লাথি মেরে মেরে সব ভাঙ্গে। ভাতের সকল ডেক্সি ভেঙ্গে দেয়। ঘর, দরজা ভেঙ্গে লুটপাট করে।

সন্ত্রসীরা যাবার সময় সবাইকে প্রানে মারার হুমকি দিয়ে যায়। হিন্দু সম্প্রদায়ের নামে অকথ্য ভাষায় গালি দেয়। মুসলিম হয়ে যেতে বলে! নির্যাতিতরা সবাই ভয়ে ভয়ে নিজেরা নিজেরা ক্ষতস্থানে লতাপাতা লাগিয়ে সারা রাত আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে পালিয়ে রাত কাটান।

পরদিন কালিদাস স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানালে, আসামীরা এমপির নিকটাত্মীয় হওয়ায় তাদের বিচার সে করতে পারবে না বলেন। পরে ৬ মে থানায় অভিযোগ করতে গেলে আসামীরা থানার উত্তর পাশে দাড়িয়ে কালিদাসকে চোর বলে হেনেস্থা করে গতিরোধ করে থানায় যেতে বাঁধা দেয়। পরে তারা নিরুপায় হয়ে স্ত্রীসহ ইউএনও মহোদয়ের নিকট গিয়ে অভিযোগ দায়ের করিলে ইউএনও মহোদয় থানায় ওসিকে অনুরোধ করে ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ লিখে।

যাহা দায়িত্বরত ডিউটি অফিসার কোন গুরুত্ব দেয়নি। পরে নিজে আলাদা অভিযোগ নিয়ে তদন্ত করে সন্ত্রাসী হামলাকারী আজু মিয়া পীং রশিদআহমদ, হোসেন পীং রশিদ আহম্মদ কে ফোনে বলে যে, কালিদাসকে যেন আর না মারে। কালিদাস বর্তমান মাছ ধরা পেশা ছেড়ে পরিবার পরিজন নিয়ে পালিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

তারা বিগত চারদিন যাবৎ ইউএনও, ওসি, ডিউটি অফিসারের কাছে গিয়ে কোন বিচার না পেয়ে প্রশাসন ও মানবাধিকার কর্মীর দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 

 

E-mail: info.eibela@gmail.com

a concern of Eibela Ltd.

Request Mobile Site

Copyright © 2020 Eibela.Com
Developed by: coder71