সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯
সোমবার, ৯ই বৈশাখ ১৪২৬
সর্বশেষ
 
 
বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের প্রশংসা জাতিসংঘ মহাসচিবের
প্রকাশ: ০৫:০৫ pm ২৯-০৪-২০১৮ হালনাগাদ: ০৫:০৫ pm ২৯-০৪-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


বিভিন্ন দেশে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োজিত বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন সংস্থাটির মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেজ। 

জাতিসংঘ সদরদপ্তরে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের গৌরবময় অংশগ্রহণের ৩০ বছর পূর্তি উপলক্ষে এক বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

বুধবার আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বিশ্বখ্যাত আন্তর্জাতিক সংস্থা জাতিসংঘ সদরদপ্তরে আয়োজিত উচ্চ পর্যায়ের এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশ নেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ, জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি মিরোচেভ লাইচ্যাক, ডিপার্টমেন্ট অব পিস কিপিং অপারেশন এর প্রধান আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ল্যাক্রুয়া এবং জাতিসংঘের পুলিশ অ্যাডভাইজর লুইস ক্যারিলহো।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ তাঁর বক্তৃতায় বলেন, বাংলাদেশের উপর কৃতজ্ঞ থাকার অনেক কারণ আছে। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল সাম্প্রতিক সময়ে সীমান্ত উন্মুক্ত করে দিয়ে এক মিলিয়নেরও বেশী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় ও সুরক্ষা দেয়ার মতো অবর্ণনীয় উদারতা প্রদর্শন। দ্বিতীয় কারণ হল, শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের অত্যন্ত শক্তিশালী প্রতিশ্রুতি।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ অতি সম্প্রতি স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জন করেছে এবং এক্ষত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্য দেখিয়েছে। কিন্তু যদি পিসকিপিংয়ের কথা বলা হয়, তবে এক্ষত্রে শুরুতেই উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনে বিরাট সাফল্য দেখিয়েছে বাংলাদেশ।

জাতিসংঘ মহাসচিব শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের বিশাল সাফল্যের কথা তুলে ধরতে গিয়ে বলেন, আমি আমার অফিস স্টাফদের বলেছিলাম, বাংলাদেশ পিসকিপিং-এ কতটা সফল তার কিছু ইন্ডিকেটর তৈরি করতে। সেটা তারা তৈরি করে আমাকে দিয়েছিল, কিন্তু সাফল্যের সেই ইন্ডিকেটরগুলো এত বেশী যে আমার পক্ষে মনে রাখা সম্ভব ছিলনা। এতে প্রতীয়মান হয় বাংলাদেশ বৈশ্বিক শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে কতটা সফল, কতটা গুরুত্বপূর্ণ। এই মূহুর্তে বাংলাদেশ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী কার্যক্রমে দ্বিতীয় বৃহত্তম। শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশের প্রায় ৭ হাজার নারী ও পুরুষ শান্তিরক্ষী কাজ করছে। সাইপ্রাসে ফোর্স কমান্ডার; মালি, দারফুর ও সাউথ সুদানে সেক্টর কমান্ডার এবং কঙ্গোতে বাংলাদেশের বিগ্রেড কমান্ডার রয়েছে। যা প্রমান করে শুধু সংখ্যার দিকেই নয় মানের দিক থেকেও বাংলাদেশ অতি উঁচু স্থান দখল করে আছে।

জাতিসংঘের কাছে বাংলাদেশ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের অব্যাহত অংশগ্রহণ এবং সহযোগিতা না হলে আমাদের পক্ষে শান্তিরক্ষায় এ ধরনের সার্পোট দেখা সম্ভব হতো না। জাতিসংঘ মহাসচিব বৈশ্বিক শান্তিরক্ষায় কর্তব্যরত অবস্থায় জীবনদানকারী বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের গভীর কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করেন এবং তাঁদের অসামান্য আত্মত্যাগের প্রতি সর্বোচ্চ সম্মান প্রদর্শন করেন।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি মিরোচেভ লাইচ্যাক শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে যৌন নিগ্রহ ও যৌন অপব্যবহারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ‘শুণ্য’ রেকর্ড উল্লেখ করে বলেন, এটি বিশ্বের বুকে একটি উদাহরণ তৈরি করেছে। বিশ্বের ৪০টি দেশে ৫৪ পিস কিপিং মিশনে সফলতার সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা সত্যিই বিস্ময়কর। ত্রিশ বছর ধরে বাংলাদেশ অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে তাদের প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

ত্রিশ বছর পূর্তি উপলক্ষে অনুষ্ঠানে একটি কেক কাটা হয়। অনুষ্ঠানস্থলের চারিদিকের দেওয়াল সুসজ্জিত করা হয় বাংলাদেশ উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের অবদান ও সাফল্যগাঁথার অসংখ্য আলোকচিত্র দ্বারা। অনুষ্ঠানটিতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত বিভিন্ন অর্জন ও কর্মকান্ডের উপর একটি ভিডিও প্রদর্শন করা হয়। কর্তব্যরত অবস্থায় আত্মদানকারী বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের প্রতি সম্মান জানিয়ে একমিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা গরহর রিজভী, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডা: দীপু মনি এমপি, বাংলাদেশের এসডিজি কো-অর্ডিনেটর আবুল কালাম আজাদ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের জন নিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার লেফট্যানেন্ট জেনারেল মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান; সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী এবং বাংলাদেশ পুলিশের উর্দ্বতন কর্মকর্তা; স্থায়ী মিশন, নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল ও জাতিসংঘে কর্মরত বাংলাদেশ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাগণসহ নিউইয়র্ক প্রবাসী বিশিষ্ট বাংলাদেশী নাগরিকগণ এ অনুষ্ঠানে অংশ নেন।


বিডি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71