বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
বুধবার, ১১ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
বাংলাদেশ-পাকিস্তান প্রথম ওয়ানডে আজ
প্রকাশ: ১০:২৫ pm ১৬-০৪-২০১৫ হালনাগাদ: ১০:২৫ pm ১৬-০৪-২০১৫
 
 
 


পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়টা যেন সোনার হরিণ। টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়ার পর আজ অবধি পাকিস্তানের বিপক্ষে কোনো জয় নেই বাংলাদেশের। আনপ্রেডিক্টেবল বিবেচিত দলটির বিপক্ষে বাংলাদেশের একমাত্র জয়টি ১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেটে। এর পর সর্বোচ্চ সাফল্য ২০১২-এর এশিয়া কাপে। এশিয়া কাপ ফাইনালে ২ রানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল স্বাগতিকদের। এর পর গত এশিয়া কাপেও দুই দলের লড়াইটা ছিল সমানে সমান। তবে সবে শেষ হওয়া বিশ্বকাপে ভিন্ন এক বাংলাদেশকে দেখেছে ক্রিকেটবিশ্ব। অতীত যেমন পাকিস্তানের প্রেরণা, তেমনি বিশ্বকাপের টাটকা স্বাদে নিজের উঠোনে আরো বড় কিছুর ডাক শুনতে পাচ্ছে বাংলাদেশ। এমন অবস্থায় আজ মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের মুখোমুখি হচ্ছে স্বাগতিক বাংলাদেশ।
বেশ কয়েক দিন আগেই পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশ ফেভারিট বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। নিষেধাজ্ঞার কারণে মাশরাফি না থাকায় আজ বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন বিশ্বকাপের সহ-অধিনায়ক সাকিব। সফরকারীদের বিপক্ষে তার দল ফেভারিট— আগের এ বক্তব্য থেকে একচুলও সরে আসেননি এ অলরাউন্ডার। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে আগের বক্তব্যের সূত্র ধরেই বলেছেন, ‘২০১২-এর এশিয়া কাপে দুটি ম্যাচ খেলেছি পাকিস্তানের বিপক্ষে। দুটি ম্যাচেই জেতার কথা ছিল, কিন্তু হয়নি। ২০১৪ এশিয়া কাপেও আমরা খুব কাছাকাছি চলে গিয়েছিলাম। কিন্তু জয় ধরা দেয়নি। এত কাছাকাছি ছিলাম যে, একটু এদিক-ওদিক হলেই জয় পাওয়া সম্ভব হতো। অতীতে হয়তো আমরা পারিনি। কিন্তু এবার এটা পরিবর্তন করতে হবে। ১৬ বছর হয়নি বলে কখনই হবে না, এটা ভাবার সুযোগ নেই।’
২০১২ সালে এশিয়া কাপের ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ২ রানে হেরে শিরোপা হাতছাড়া হয়েছে বাংলাদেশের। এর পুনরাবৃত্তি হয়েছে গত বছর এশিয়া কাপে। ৩২৬ রানের মতো চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েও জয়বঞ্চিত বাংলাদেশ। পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়ের খুব কাছাকাছি গিয়েও তীরে তরী ভেড়ানো সম্ভব হয়নি। কিন্তু এবারের প্রেক্ষাপটা ভিন্ন। সেটা শুধু স্বাগতিক শিবিরিই নয়, মানছে প্রতিপক্ষ শিবিরও। এবারের বাংলাদেশ সফর পাকিস্তানের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন তাদের কোচ ওয়াকার ইউনুস। বাংলাদেশের ঊর্ধ্বগতির পারফরম্যান্সের ওপর চোখ রেখে পাকিস্তান কোচ জানালেন, ‘শেষ বিশ্বকাপে তারা (বাংলাদেশ) দুর্দান্ত খেলেছে। শুধু বিশ্বকাপেই নয়, এর আগ থেকেই তারা ভালো করছে। অভিজ্ঞ ও তরুণদের মিশেলে দারুণ একটি দল। কোনো সন্দেহ নেই, তারা সাম্প্রতিক সময়ে ভালো করছে।’ তবে নতুন তৈরির কারখানা হিসেবে বিশেষ খ্যাতি আছে পাকিস্তানের। আর ওয়াকারের আত্মবিশ্বাসের জায়গাটিও তাদের এ সম্ভাবনাময় তারুণ্য। তার ভাষায়, ‘আমাদের এ দলেও ভালো ক্রিকেটার রয়েছে; যারা হয়তো তরুণ কিন্তু সম্ভাবনাময়। আমাদের ভাগ্য যে, আমাদের দেশে অনেক তরুণ ট্যালেন্ট রয়েছে। এবারের দলে যারা এসেছে, আমার বিশ্বাস তারাও নিজেদের সেরাটা তুলে ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দীর্ঘদিন টিকে থাকবে। তবে সব মিলিয়ে আসন্ন সিরিজে আমরা কঠিন চ্যালেঞ্জেরই অপেক্ষা করছি।’
প্রস্তুতি ম্যাচ দিয়েই অর্ধশক্তির বাংলাদেশ ‘এ’ দল বুঝিয়ে দিয়েছে, পাকিস্তানের এবারের সফরটা অতীতের মতো সহজ হবে না। বুধবার প্রস্তুতি ম্যাচে পূর্ণ শক্তির পাকিস্তান দলকে ১ উইকেটে হারিয়েছে বিসিবি একাদশ। তবে এ ফলাফলকে দুই দলের কেউই নিচ্ছেন না হিসাবের মধ্যে। গতকাল এ বিষয়ে সাকিব বলেছেন, ‘অনুশীলন ম্যাচ আসলে কাদের ওপর কতটা প্রভাব ফেলে, এটা বলা কঠিন। ভালো দিক হচ্ছে, আমাদের জাতীয় দলের কিছু খেলোয়াড় ছিল ম্যাচে। ওরা তথ্যগুলো শেয়ার করতে পারবে। কয়েকজন ভালো খেলেছে। তাদের আত্মবিশ্বাসটা ভালো থাকবে।’ অন্যদিকে পাকিস্তান অধিনায়ক আজহার আলীর ভাষ্য, ‘ওটা নেহাতই একটি প্রস্তুতি ম্যাচ। তবে ওই ম্যাচ দিয়ে আমাদের প্রস্তুতিটা ভালো হয়েছে। আশা করছি, সেগুলো মূল ম্যাচে কাজে আসবে।’
এদিকে গতকাল মাঠের অনুশীলনে হাজির হয়েই সাকিব ছুটে গেছেন উইকেট দেখতে। ঘরের মাঠের উইকেট; বহু চেনা কিন্তু বরাবরই এ উইকেট দু’হাত ভরিয়ে দিয়েছে পাকিস্তানকে। কাল কি নতুন সূর্য উঠবে? সাকিবের ধারণা, উইকেট হবে স্পোর্টিং। পাকিস্তানের বিপক্ষে নতুন ইতিহাস লিখতে স্পোর্টিং উইকেটই চান এ নাম্বার ওয়ান অলরাউন্ডার। পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় ছাড়া দু-দুটো এশিয়া কাপের ক্ষত যে শুকোবার নয়? কেননা ক্রিকটার তো বটেই, বাংলাদেশের মানুষের চোখে বারবার ভেসে ওঠে ২০১২ সালের এশিয়া কাপ ফাইনালের সেই স্মৃতি। তিন বছর আগের ওই ফাইনালে নাসিরকে জড়িয়ে ধরে চোখের পানি ফেলেছেন ইস্পাত পাথর মানসিকতার সাকিব আল হাসান।
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71