সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোমবার, ৯ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে
বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সংবাদ সম্মেলন
প্রকাশ: ০৩:১৮ pm ১৩-১০-২০১৭ হালনাগাদ: ০৩:২৮ pm ১৩-১০-২০১৭
 
 
 


বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ বলেছে, সাম্প্রতিক সময়ে সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া একটি রায়কে নিয়ে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাকে কটাক্ষ করে সরকারি দল ও জোটের কোনো কোনো মন্ত্রী ও নেতা যেসব বক্তব্য দিয়েছেন তা আওয়ামী ওলামা লীগের বক্তব্যেরই প্রতিফলন। কারণ এসকে সিনহা যখন প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন ওইদিন জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে মানববন্ধন করে ওলামা লীগ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেছিলো ‘মুসলমান রাষ্ট্র বাংলাদেশে হিন্দু প্রধান বিচারপতি মানি না’। একটি রায়কে কেন্দ্র করে শুধুমাত্র প্রধান বিচারপতি সিনহাকে উদ্দেশ্য করে সরকারি দল জোটের মহল বিশেষ থেকে শুধু আক্রমণাত্মক বক্তব্যই দেওয়া হয়নি বিদ্বেষমূলক সাম্প্রদায়িক উস্কানিও দেওয়া হচ্ছে। 

বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে পরিষদের পক্ষ থেকে এই বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়। লিখিত ওই বক্তব্য পাঠ করেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কোনো বিচারকের রায় বা আদেশে কেউ সংক্ষুদ্ধ হলে সংবিধান ও আইনে তার প্রতিকারের বিধান আছে। আবার ওই রায় নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ ও জ্ঞানগর্ভ আলোচনা ও তর্কবিতর্ক চলতে পারে। গণতন্ত্র ও আইনের শাসনকে সমুন্নত রাখার তাগিদে ও বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ন রাখার স্বার্থে এটা দরকার। তবে কোনো বিচারকের ধর্মবিশ্বাস বা তার সম্প্রদায়গত অবস্থানকে কটাক্ষ করা হলে সেই ধর্মের বিশ্বাসী লোকজন বা সম্প্রদায়কে তা আহত করে। দুঃখজনক হলেও প্রধান বিচারপতির ক্ষেত্রে তাই ঘটেছে। তিনি সাম্প্রদায়িক ও ব্যক্তিগত আক্রমণের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হওয়ায় বিচার বিভাগ তথা গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানসমূহ, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা বিপন্ন এবং অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের ভিত্তি আঘাতপ্রাপ্ত হয়। এর পরিণতিতে স্বাধীনতাবিরোধী ও অসাংবিধানিক শক্তির লাভবান হওয়ার শঙ্কা বৃদ্ধি পায়।

বক্তব্যে আরো বলা হয়, প্রধান বিচারপতি সংক্রান্ত ইস্যুকে সামনে রেখে সরকারের অভ্যন্তরে ঘাপটি মেরে থাকা কোনো মহল কোনো প্রকার অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করে সাম্প্রদায়িক চক্রান্তে লিপ্ত কিনা তা খতিয়ে দেখতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঐক্য পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজল দেবনাথ, ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক, সুব্রত চৌধুরী, জয়ন্ত সেন দীপু, জেএম ভৌমিক, মিলন কান্তি দত্ত, যুগ্ম সম্পাদক মনীন্দ্র কুমার নাথ, সাংগঠনিক সম্পাদক পদ্মাবতী দেবী, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং, হিন্দু মহাজোটের নির্বাহী পরিচালক পলাশ কান্তি দে প্রমুখ।

আরডি/
 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71