শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৭ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
বাজেটের পর কোটা সংস্কার করা হবে: মুহিত
প্রকাশ: ০৯:৫৩ pm ১১-০৪-২০১৮ হালনাগাদ: ০৯:৫৩ pm ১১-০৪-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


আগামী বাজেটের পর কোটা সংস্কারে হাত দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান ৫৬ শতাংশ কোটা ‘বোধ হয়’ অনেক বেশি হয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভ্যাট বসানো হবে না বলেও জানিয়েছেন। তবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকরা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে যে ফি ও চার্জ নেয়, সেখান থেকে যে মুনাফা হয় তার ওপর মালিকদের আয়কর দিতে হবে বলে জানান মন্ত্রী।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) লভ্যাংশ প্রদান অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

কোটা সংস্কার বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি চাকরিতে কোটা অবশ্যই থাকবে। সমাজে যারা পশ্চাৎপদ, তাদের জন্য কোটা থাকা উচিত। প্রশ্ন হচ্ছে, কত শতাংশ কোটা থাকবে? কোটা এখন যা আছে, তা বোধ হয় অনেক বেশি হয়ে গেছে। এটি সংস্কার করা উচিত। কোটা সংস্কারের বিষয়টি আমার মন্ত্রণালয়ের কাজ নয়। এর পরও আমি প্রধানমন্ত্রীকে পরামর্শ দিয়েছি এটাকে সংস্কার করার জন্য। বাজেটের পর ৫৬ শতাংশ কোটা অবশ্যই সংস্কার করা হবে। কারণ কোটায় যত পদ আছে, তত লোক পাওয়া যায় না।’

অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, কোটা যা আছে তা পূরণ হয় না। সমস্যা হচ্ছে আনুপাতিক হার নিয়ে। এ জন্য কোটা পদ্ধতির পুনঃপরীক্ষা প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রীকে বিষয়টি বলা হয়েছে। কাজ শুরু করতে বলেছেন তিনি। অর্থ মন্ত্রণালয় কাজে হাতে দেবে বাজেটের পর।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আগামী বাজেটে ভ্যাট আরোপের যে কথা সোমবার সংবাদপত্রের সম্পাদক ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সিইওদের সঙ্গে বৈঠকের পর বলেছিলেন অর্থমন্ত্রী, সে ধরনের কোনো কিছু আগামী বাজেটে আরোপ করা হবে না বলে কাল পরিষ্কার করেছেন মুহিত।

অর্থমন্ত্রী জানান, তিনি ভ্যাট আরোপের কথা বলতে চাননি। বলতে চেয়েছিলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যে লাভ করে, তার ওপর আয়কর দিতে হবে।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার একনেক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ধরনের কোনো ভ্যাট, কর আরোপের প্রস্তাব নাকচ করে দিয়ে দিয়েছেন। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভ্যাট বসানোর কথা অর্থমন্ত্রীর ব্যক্তিগত মত, এটি সরকারের বক্তব্য নয়।

শেয়ারবাজার বিষয়ক এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, পুঁজিবাজারে বড় ধরনের উত্থান-পতনের কোনো সুযোগ নেই। এটিকে এখন আর ফাটকাবাজার বলা যাবে না। শেয়ারবাজার এখন ঠিক হয়ে গেছে। ছয় বছর পর এখন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনা হবে।

বাংলাদেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি নিয়ে বিশ্বব্যাংক যে সংশয় প্রকাশ করেছে সে বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘তারা প্রতিবছরই সংশয় প্রকাশ করে। আমার দৃষ্টিতে এ বছর জিডিপির প্রবৃদ্ধির হার হবে কমপক্ষে ৭.৩ শতাংশ। আগামী তিন মাস পর বিষয়টি চূড়ান্ত হবে।’

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71