শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯
শনিবার, ৯ই চৈত্র ১৪২৫
 
 
বাবার অপমান সহ্য করতে না পেরে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
প্রকাশ: ১০:৪৩ am ১৫-১০-২০১৮ হালনাগাদ: ১০:৪৩ am ১৫-১০-২০১৮
 
খুলনা প্রতিনিধি
 
 
 
 


খুলনা নগরীতে উত্ত্যক্তকারীরা বাবাকে মারধর করায় সরকারি করোনেশন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী শামসুন নাহার চাঁদনী (১২) আত্মহত্যা করেছে।

শুক্রবার (১৩ অক্টোবর) রাতে খুলনা নগরীর হরিণটানা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে নিজ বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে সে। রাতেই পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। 

এ ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল শনিবার সকাল থেকেই ক্ষোভে ফুঁসছে এলাকার মানুষ। বখাটে শুভ ও তার পরিবারের সদস্যদের শাস্তির দাবিতে দফায় দফায় বিক্ষোভ করেছে তারা। 

চাঁদনী হরিণটানা এলাকার বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা মো. রবিউল ইসলামের মেয়ে। সে নগরীর সরকারি করোনেশন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। তিন ভাই-বোনের মধ্যে সবার ছোট চাঁদনী প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছিল। 

এলাকাবাসী জানায়, কয়েক মাস ধরে স্কুল যাওয়া-আসার পথে চাঁদনীকে উত্ত্যক্ত করত হরিণটানা মধ্যপাড়া (মেম্বরপাড়া) এলাকার শাহ আলমের ছেলে শুভ। শুভ লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। এ ঘটনা পরিবারকে জানায় চাঁদনী। এরপর শুভর বাড়িতে গিয়ে ঘটনাটি জানিয়ে মেয়েকে আর উত্ত্যক্ত না করতে অনুরোধ করে আসেন চাঁদনীর বাবা রবিউল ইসলাম।

চাঁদনীর বাবা বলেন, শুক্রবার শুভদের বাড়িতে গিয়ে তার বাবা-মাকে বলে আসি যাতে আমার মেয়েকে আর বিরক্ত না করে। পরে ওইদিন রাতে হরিণটানা রিয়াবাজার এলাকার মাফিয়া কবির নামের এক নারী, শুভর বাবা শাহ আলম ও শুভ দলবল নিয়ে তাদের বাড়িতে আসে। এ সময় মাফিয়া কবির চাঁদনীর সঙ্গে শুভর প্রেমের সল্ফপর্ক আছে বলে তাকে জানায়। 

চাঁদনীর বাবা বিলাপ করতে করতে বলেন, 'চাঁদনী প্রেমের সল্ফপর্ক অস্বীকার করলে মাফিয়া চাঁদনীর গালে থাপ্পড় দেয়। আমি এর প্রতিবাদ করায় শুভ ও তার সঙ্গের লোকজন লাঠি এবং লোহার রড দিয়ে আমাকে মারধর শুরু করে। এ ঘটনা দেখে চাঁদনী ঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে ফ্যানের সঙ্গে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে।' 

নগরীর লবণচরা থানার ওসি শফিকুল ইসলাম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মাফিয়াকে আটক করা হয়েছে। আর শুভ ও তার পরিবারের লোকজন এলাকা থেকে পালিয়েছে। তবে চাঁদনীর পরিবারের পক্ষ থেকে এখনও কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71